1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

২০৩০ সালে আসছে জিয়াও, মিয়াও ও শিয়াও

চোখ বুঝে ‘গাড়ি’ শব্দটা মনে করলে কী মনে আসে? বড়সড়, ভারি, চার চাকার এক যান, যার ইঞ্জিন সব সময় তেল খাওয়ার জন্য বুভুক্ষু হয়ে রয়েছে৷ ২০৩০ সালের গাড়ির সঙ্গে কিন্তু এই বর্ণনার মিল থাকবে না৷

default

এমনই দেখতে হবে জিয়াও, মিয়াও ও শিয়াও

জেনারেল মোটর্স ও চীনের এসএআইসি সংস্থা ২০৩০ সালের মধ্যে গাড়ির সংজ্ঞাই বদলে দিতে চায়৷ তারা সবার আগে ২০৩০ সালের মেগাসিটি'র পরিকাঠামো সম্পর্কে আগাম ধারণা পাওয়ার চেষ্টা করেছে৷ সেই পরিস্থিতির ভিত্তিতেই তৈরি হয়েছে ভবিষ্যতের এই গাড়ির নক্সা৷

জিএম সংস্থার হিসেব অনুযায়ী ২০৩০ সালে বিশ্বের জনসংখ্যা দাঁড়াবে প্রায় ৮০০ কোটি৷ তাদের মধ্যে প্রায় ১২০ কোটি মানুষের নিজস্ব গাড়ি থাকবে৷ প্রায় ৬০ শতাংশ মানুষ শহরাঞ্চলে বসবাস করবেন৷ ফলে পরিবহনের পরিকাঠামো চালু রাখা হয়ে উঠবে বিশাল এক চ্যালেঞ্জ৷

EN-V Elektroauto der Zukunft China GM Flash-Galerie

চীনের এসএআইসি সংস্থা ২০৩০ সালের মধ্যে গাড়ির সংজ্ঞাই বদলে দিতে চায়

আগামী ১লা মে থেকে ৩১শে অক্টোবর চীনের শাংহাই শহরে অনুষ্ঠিত হবে বিশ্বমেলা ‘এক্সপো ২০১০'৷ সেখানেই দেখা যাবে জিএম ও এসএআইসি'র প্রস্তাবিত নতুন সংজ্ঞার গাড়ির মোট তিনটি মডেল – যাদের নাম চীনা ভাষায় জিয়াও (গর্ব), মিয়াও (জাদু) এবং শিয়াও (হাসি)৷ দুই চাকার অনেকটা ডিম্বাকৃতি এই গাড়িগুলিতে ২ জন করে আরোহীর জায়গা থাকবে৷ টেলিফোন বুথের চেয়ে বেশী জায়গা দখল করবে না এই গাড়ি৷ তবে তাদের উচ্চতা কিন্তু আজকের অনেক মিনি-ভ্যানের চেয়ে বেশী৷ অতএব জায়গার অভাব চওড়ায় নয় – লম্বায় পুষিয়ে দেবে ভবিষ্যতের গাড়ি৷ ভেবে দেখুন, আজ একটি গাড়ি পার্ক করতে যতটা জায়গা লাগে, জিয়াও, মিয়াও এবং শিয়াও সেখানে অনায়াসে নিজেদের স্থান করে নেবে৷ এমনকি হয়তো আরও কিছুটা জায়গা খালি থেকে যাবে! আর চার চাকার গাড়ির মত পার্কিং করতে গিয়ে অত কসরত করতে হবে না – হেলে-দুলে দিব্যি নিজের জায়গা করে নেবে এই তন্বিরা৷

বলাই বাহুল্য, তেলের ট্যাঙ্কের কোন জায়গা নেই এই গাড়িতে – কারণ তেলের প্রয়োজনই যে আর থাকবে না! কে জানে, ততদিনে হয়তো পৃথিবীতে তেলও ফুরিয়ে যাবে৷ বিদ্যুতশক্তিই ভবিষ্যতের গাড়ির জ্বালানি হবে৷ শহরের মধ্যে ঘণ্টায় ৪০ কিলোমিটার বেগে গাড়ি চালাতে হলে ব্যাটারি একবার চার্জ করলে মোটামুটি ৮ ঘন্টার জন্য দিব্যি ঘুরে বেড়ানো যাবে৷

প্রতিবেদন: সঞ্জীব বর্মন, সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়