২০২২ সালে অলিম্পিক আয়োজনের বিপক্ষে মিউনিখ | খেলাধুলা | DW | 12.11.2013
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

২০২২ সালে অলিম্পিক আয়োজনের বিপক্ষে মিউনিখ

২০২২ সালে শীতকালীন অলিম্পিকে মিউনিখ আয়োজক হবে কিনা – এ বিষয়ে ভোটাভুটি হয়েছে রবিবার৷ ভোটে দেখা গেছে, মিউনিখবাসী অলিম্পিক আয়োজনের বিপক্ষে৷ অর্থাৎ, না ভোটের পক্ষে মত দিয়েছেন বেশিরভাগ অধিবাসীই৷

শীতকালীন অলিম্পিক আয়োজনের প্রার্থী হতে যেখানে দরকার ছিল সংখ্যাগরিষ্ঠের ভোট, সেখানে সমর্থন গেল না ভোটের পক্ষে৷ রবিবার গণভোটের মাধ্যমে জনগণের কাছ থেকে ২০২২ সালের শীতকালীন অলিম্পিকের আবেদনের জন্য অনুমোদন চাওয়া হলে ‘না' ভোট পড়ে৷

German athletes present the official uniforms of the German Olympic team for the Sochi 2014 Winter Olympic Games in Duesseldorf October 1, 2013. REUTERS/Ina Fassbender (GERMANY - Tags: SPORT OLYMPICS FASHION)

২০১৪ সালে সোচি শীতকালীন অলিম্পিকের জার্মান ‘টিম’

ইন্টারন্যাশনাল স্কি ফেডারেশন এফআইএস-এর প্রেসিডেন্ট সোমবার জানিয়েছেন, মিউনিখবাসীর এই ভোটই বলে দিচ্ছে যে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি আইওসি-র উপর তাঁদের আস্থা নেই৷ প্রেসিডেন্ট গিয়ান ফ্রাঙ্গো কাসপার বার্তা সংস্থা ডিপিএ-কে বলেছেন, রবিবারের গণভোটে না ভোটের আধিক্যই এটা প্রমাণ করে৷ তিনি বলেন, ২০১৪ সালে সোচি শীতকালীন অলিম্পিক এবং ২০২২ সালে কাতারের ফুটবল বিশ্বকাপ অনুষ্ঠানের আয়োজন নিয়ে নিয়মিত শিরোনাম ও খবরও এ ব্যাপারে তাঁদের মনে কোনো আগ্রহ তৈরি করেনি৷

কাসপারের মতে, আয়োজনটা কোন দেশে হচ্ছে বা স্বাগতিক দেশ কোনটি – সেটা মূখ্য বিষয় না হয়ে সেখানকার নেতিবাচক দিকগুলো মূখ্য হয়ে উঠেছে, যা তাঁদের মনে ভীতির সঞ্চার করছে৷

অলিম্পিকের ভেন্যু হিসেবে মিউনিখের যে চারটি জায়গার নাম প্রস্তাব করার কথা, প্রতিটি অঞ্চলের অধিবাসীরাই ‘না' ভোট দিয়েছেন৷ এই চারটি জায়গা হলো মিউনিখ শহর, গার্মিশ-পার্টেনকির্শেন, ট্রাউনস্টাইন এবং ব্যার্চটেসগাডেন্যার৷

এর আগে ২০১৮ সালে শীতকালীন অলিম্পিকের আয়োজনের জন্য মিউনিখ আবেদন করলেও সেবার জেতে দক্ষিণ কোরিয়ার পিয়ংচাং শহরটি৷ ২০২২ অলিম্পিক আয়োজনের প্রার্থী হতে আবেদন করবে নরওয়ের রাজধানী অসলো, ইউক্রেনীয় শহর লভিভ, বেইজিং-এর অদূরে ঝানজিয়াকু, কাজাখস্তানের আলমাতি এবং পোল্যান্ডের ক্রাকাও৷

বৃহস্পতিবারের মধ্যে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির কাছে চূড়ান্ত নামসহ আবেদন পেশ করতে হবে৷ ২০১৫ সালে কুয়ালালামপুরে এ ব্যাপারে ভোট হবে৷

এপিবি/ডিজি (ডিপিএ/এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন