1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

২০১৩ সালে গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন চরমে

পৃথিবী হয়ত সেই গ্যাস নির্গমন শুষে নেওয়ার শক্তি হারাচ্ছে – অবাক হচ্ছেন? কিন্তু এমনটাই বলছে ডাব্লিউএমও, অর্থাৎ বিশ্ব আবহাওয়া বিজ্ঞান সংগঠন৷ সাগরের জল অম্ল হচ্ছে বিগত ৩০ কোটি বছরের মধ্যে সবচেয়ে দ্রুত হারে৷

২০১৩ সালে যে গ্রিনহাউস গ্যাসটি সত্যিই বেড়েছে, সেটি হলো কার্বন ডাই অক্সাইড৷ অপরদিকে সিওটু-র মাত্রা যেভাবে বাড়ছে, তা কিন্তু কয়লা গোত্রীয় তথাকথিত অশ্মীভূত জ্বালানির ব্যবহারের চেয়েও বেশি – যার অর্থ, আমাদের পৃথিবীর সিওটু শুষে নেবার যে স্বাভাবিক ক্ষমতা আছে, তা দৃশ্যত কমে যাচ্ছে৷

ডাব্লিউএমও-র মহাসচিব মিশেল জারো গত মঙ্গলবার সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় অনুষ্ঠিত একটি সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন যে, বিশ্বের বায়োস্ফিয়ার, অর্থাৎ উদ্ভিদ ও মাটি, হয়ত আগের মতো সিওটু শুষে নিতে পারছে না৷ তা যদি সত্যি প্রমাণিত হয়, তাহলে সেটা হবে একটা উদ্বেগের বিষয়৷

মানুষ ও তার গতিবিধি থেকে যে পরিমাণ কার্বন ডাই অক্সাইড নির্গত হয়, বায়োস্ফিয়ার ও সাগরের জল তার প্রায় ২৫ শতাংশ করে শুষে নেয়৷

গ্যাস শুষে নেওয়া কমে গেলে, বায়ুমণ্ডলে সিওটু-র পরিমাণ বাড়তে থাকবে – এবং বায়ুমণ্ডলে সেই কার্বন ডাই অক্সাইড শত শত বছর ধরে থাকতে পারে৷

সাগরের অম্লতাও দ্রুত বাড়ছে, যার ফলে সাগরের জলও সিওটু শুষে নেবার ক্ষমতা হারাচ্ছে৷ কী হারে বাড়ছে সাগরের অম্লতা? ডাব্লিউএমও বলছে, প্রাক-শিল্পায়ন যুগ থেকে সাগরের অম্লতা বেড়েছে ২৫ শতাংশ, তার মধ্যে ছয় শতাংশ শুধুমাত্র গত দশ বছরে৷

কার্বন নির্গমন যদি এভাবে বাড়তে থাকে...

২০৫০ সালের মধ্যে যদি মানুষের গতিবিধি থেকে সৃষ্ট কার্বন নির্গমন ৮০ শতাংশ কমেও যায়, তা-তেও শতাব্দীর শেষ অবধি বিশ্বের তাপমাত্রা বৃদ্ধির বিশেষ কোনো হেরফের হবে না৷ বলতে কি, অতীত, বর্তমান এবং ভবিষ্যতের সিওটু নির্গমন, এই তিন মিলিয়েই বিশ্বের উষ্ণায়ন ও সাগরের অম্লতা কতটা বাড়বে, তা নির্ধারিত হবে৷

২০১৩ সালে কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ ছিল প্রতি দশ লাখ ভাগে ৩৯৬ ভাগ, যা কিনা ২০১২ সালের তুলনায় দুই দশমিক নয় ভাগ বেশি৷ গ্রিনহাইস গ্যাসগুলির নির্গমন বাড়ছে মূলত চীন, ভারত ও অন্যান্য দ্রুত উন্নয়নশীল দেশে ব্যাপক শিল্পায়নের ফলে৷ তা সত্ত্বেও ডাব্লিউএমও-র ভবিষ্যদ্বাণী হলো: বৈশ্বিক উষ্ণায়নকে দুই ডিগ্রি সেলসিয়াস-এর নীচে রাখার মতো জ্ঞান ও পন্থা, দুই-ই আমাদের হাতে আছে৷

এসি/ডিজি (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়