1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

১৯৫ পাকিস্তানির বিচার শুরুর ভয় পাচ্ছে পাকিস্তান?

জামায়াতে ইসলামীর আমীর মতিউর রহমান নিজামীর ফাঁসি নিয়ে পাকিস্তানের অবস্থান ক্ষুব্ধ করেছে বাংলাদেশকে৷ বৃহস্পতিবার পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত সুজা আলমকে ঢাকায় বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ডেকে তীব্র প্রতিবাদ জানানো হয়েছে৷

ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহরিয়ার কবির ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এ ধরনের প্রতিবাদ এর আগেও একাধিকবার জানানো হয়েছে৷ কিন্তু পাকিস্তান তার অবস্থান থেকে সরেনি৷ তাই এবার আমাদের উচিত হবে পাকিস্তানের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করা এবং যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে অভিযুক্ত পাকিস্তানের ১৯৫ জন সেনাসদস্যের বিচার শুরু করা৷''

সাবেক কূটনীতিক এবং যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদূত এম হুমায়ুন কবির ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের ইস্যুতে পাকিস্তান যা করছে, তা কূটনৈতিক শিষ্টাচারের চরম লঙ্ঘন৷''

অডিও শুনুন 03:04

‘যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের ইস্যুতে পাকিস্তান যা করছে, তা কূটনৈতিক শিষ্টাচারের চরম লঙ্ঘন’

বুধবার রাতে নিজামীর ফাঁসি কার্যকর হওয়ার পর বুধবারই পাকিস্তানের সংসদে নিন্দা প্রস্তাব পাশ করা হয়৷ দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বাংলাদেশে এহেন বিচারিক হত্যা বন্ধের আহ্বানও জানায়৷ তারা বলে, নিজামী একাত্তরে পাকিস্তানের পক্ষে অবস্থান নিয়েছিলেন৷ এটাই তার অপরাধ৷ এ কারণে তাকে ফাঁসি দেয়া হয়েছো৷''

নিজামীর ফাঁসিতে পাকিস্তান জামায়াতও ক্ষোভ প্রকাশ করে৷ এর আগেও জামায়াত নেতা আলি আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদের ফাঁসি কার্যকরের সময় পাকিস্তান একইভাবে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিল৷

শাহরিয়ার কবির বলেন, ‘‘পাকিস্তান বাংলাদেশের অস্তিত্বই স্বীকার করে না৷ তাই এই দেশটির সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক রাখার কোনো মানে হয় না৷ তারা বার বার জেনভো কনভেনশন লঙ্ঘন করছে৷ তাই তাদের কাছে এই মামুলি প্রতিবাদ জানিয়ে কাজ হবে না৷ কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় যুদ্ধাপরাধী হিসেবে চিহ্নিত ১৯৫ জন পাকিস্তানি সেনাসদস্যের বিচার শুরু করতে হবে৷ আর সেটা বাংলাদেশই করতে পারে৷''

অডিও শুনুন 04:59

‘পাকিস্তান বাংলাদেশের অস্তিত্বই স্বীকার করে না, তাই তাদের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক রাখার মানে নেই’

তিনি আরো বলেন, ‘‘জামায়াত নেতারা পাকিস্তানের আইএসআই-এর চর৷ এখন তাদের মৃত্যুদণ্ডে পাকিস্তান কান্না শুরু করেছে৷''

সাবেক রাষ্ট্রদূত হুমায়ুন কবির বলেন, ‘‘একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াত নেতাদের ফাঁসি কার্যকর হওয়ায় পাকিস্তান চাপ অনুভব করছে৷ কারণ মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধের জন্য পাকিস্তানের ১৯৫ জন সেনাসদস্যও চিহ্নিত৷ সুতরাং তাদের বিচারের প্রশ্ন এখন আসে কিনা – তা নিয়ে চিন্তায় আছে পাকিস্তান৷''

তবে তিনি বলেন, ‘‘কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার সময় এখনো আসেনি বলেই আমি মনে করি৷ কারণ যুদ্ধরত দু'টি দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক থাকে৷ আমি মনে করি, বাংলাদেশ সরকারের উচিত হবে পাকিস্তানকে বাংলাদেশের ভেতরের বিষয় নিয়ে কথা না বলতে আরো কার্যকরভাবে চাপ দেয়া৷''

এদিকে নিজামীর ফাঁসি কার্যকর করার প্রতিক্রিয়ায় বাংলাদেশ থেকে তুরস্ক তাদের রাষ্ট্রদূতকে প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছে৷ তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেচেপ তাইয়েপ এর্দোয়ানকে উদ্ধৃত করে এ খবর দিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলি৷

নিজামীর ফাঁসির পর লাহোরের চিত্র

নিজামীর ফাঁসির পর পাকিস্তানের লাহোরে বিক্ষোভ

নিজামীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের প্রতিবাদে তুরস্কেও বিক্ষোভ হয়৷ তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় নিজামীর ফাঁসি দেয়ায় নিন্দা জানিয়ে বিবৃতিও প্রকাশ করেছে ইতিমধ্যে৷

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াত নেতা নিজামীর ফাঁসির পর পাকিস্তান কি সত্যিই সেই দেশের ১৯৫ জনেরও বিচার শুরুর ভয় পাচ্ছে? লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়