1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

১,৬৫২ ভাষার দেশ ভারত

না, শিরোনাম দেখে চমকে উঠবেন না, ভাববেন না ভুল করে লেখা৷ ভারতের ১৯৬১ সালের আদমশুমারিতে ১,৬৫২ টি ভাষা ও আঞ্চলিক ভাষাকে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছিল৷ যদিও পরে তা কমিয়ে আনা হয়েছে৷ বর্তমান সংখ্যাটিও একটি দেশের জন্যে নেহাৎ কম নয়৷

default

সবাই ভারতীয়, কিন্তু কার ভাষা কোনটি?

প্রথমেই চলুন নতুন দিল্লীর আদালতে নিয়ে যাই আপনাদের৷ এই মাসে আইনজীবী গোভিন্দার সিং করেছেন এক অবিশ্বাস্য কাণ্ড৷ মানে অবিশ্বাস্য বলছি এই জন্য, যে এই কাজ আগে কেউ করার সাহস করেননি৷ গোভিন্দার আদালতে বিচারকের সঙ্গে কথা বলেছেন হিন্দি ভাষায়৷ অবাক হচ্ছেন, ভারতে হিন্দি ভাষাতেই তো কথা হবে৷ আপনার চিন্তা ঠিকই, কিন্তু ভারতের আদালতে সেটা হয় না, সেখানে বাকবিতণ্ডার আনুষ্ঠানিক ভাষা এখনো ‘ইংরেজি'৷

আগেই তো বলেছি, ভারতে স্বীকৃত ভাষার সংখ্যা ছিল ১,৬৫২টি৷ ২০০১ সালে এই ভাষার তালিকাকে আরেকটু অর্থবহ করে তোলা হয়েছে৷ দশ লাখ বা বেশি মানুষ কথা বলে এরকম ২৯টি ভাষাকে নির্বাচন করা হয়েছে৷ আর দশ হাজার মানুষ কথা বলে এরকম ১২২ টি ভাষাকে আলাদা করা হয়েছে৷ ২০০৪ সালে অবশ্য স্বীকৃত ভাষার এই তালিকা ছোট করে ২২টি করা হয়েছে৷ তবে, এখন নাকি আবার বেড়েছে চাপ, আরো অন্তত ৩৮ টি ভাষাকে আনুষ্ঠানিক তালিকায় যোগ করতে চলছে জোর তদবির৷

Indien Bombay Geschäftsfrau FBF

ভারতের নতুন প্রজন্ম অবশ্য ইংরেজি ভাষার দিকেই ঝুঁকছে (ফাইল ফটো)

কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, এত ভাষার এই দেশে এমন কী কোন ভাষা নেই যেটি জুড়তে পারে সবাইকে মানে সব ভারতীয়কে? আপাতত, এই প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাচ্ছে না৷ তবে প্রকৃত চর্চা যেটি হচ্ছে সেটিকে বলা যায়, ‘বহুভাষিক চর্চা'৷ সাংবাদিক জয় শঙ্করকেই ধরুননা৷ নিজে তিনি কেরালার লোক, যেখানকার ভাষা মালায়ালাম৷ অন্যদিকে, তাঁর সহধর্মিনীর এলাকা গুজরাট, ভাষা গুজরাটি৷ দু'জনের কেউই একে অপরের ভাষা বোঝেন না, তাই কাজ চালান হিন্দি আর ইংরেজি মিশিয়ে৷ তাদের যখন সন্তান হলো, তখন প্রশ্ন: কোন ভাষা শিখবে সে?

সন্তানের বয়স যখন চার, তখন শঙ্করের বাস বাঙ্গালোরে৷ যেখানকার স্থানীয় ভাষা আবার কানাড়া৷ ফলে উপায়ান্তর না দেখে, শঙ্কর ছেলেকে ভর্তি করিয়ে দিলেন ইংরেজি মাধ্যমের স্কুলে৷ তাঁর সন্তানের বয়স এখন ১৩ এবং সে হিন্দি ও ইংরেজি ভাষায় কথা বলে, আর মা-বাবা'র মাতৃভাষা এক অক্ষরও বোঝে না সে৷

ভারতের মধ্যবিত্তের অবস্থাটা এমনই৷ বহুভাষার এক জগাখিচুড়ি তৈরি করে নিচ্ছেন তারা৷ কারণ প্রতিযোগিতার বাজারে, কখন কোথায় চাকরি মিলবে কিংবা কখন কোথায় বাস করতে হবে তার তো ঠিক নেই, তাই সব ভাষাই একটু একটু জানলে খারাপ কী?

Flash-Galerie Szene am Bahnhof in Neu Delhi

২০০৪ সালে অবশ্য স্বীকৃত ভাষার এই তালিকা ছোট করে ২২টি করা হয়েছে (ফাইল ফটো)

আরেকটি প্রশ্ন বেশ ভাবাবে আপনাকে৷ সেটি হচ্ছে, ইংরেজি ভাষার ব্যবহার কোন দেশে সবচেয়ে বেশি? ভাবছেন তো অ্যামেরিকা, অথবা ব্রিটেন৷ আরো বাবা, অতদূরে যাচ্ছেন কেন? উত্তরটা ভারত৷ যদিও ঠিক কি ইংরেজি ভারতে চর্চা হচ্ছে তা নিয়ে প্রশ্ন আছে৷ কারণ, ইংরেজির রক্ষক মানে খোদ ব্রিটিশ কাউন্সিল জানাচ্ছে, ভারতে ইংরেজি ভাষার ভালো শিক্ষকের সংখ্যা মাত্রাতিরিক্ত কম এবং ইংরেজি শেখায় এমন মানসম্পন্ন ইন্সটিটিউটও কম৷ তাই, যে ইংরেজি শিখছে ভারতের নতুন প্রজন্ম, তা তাদের ‘জাতে তোলার' বদলে, ডোবাতেই হয়তো বেশি ভূমিকা রাখবে!

শেষ করার আগে আরেকটি ছোট্ট তথ্য দেই৷ ভারতের সবচেয়ে বড় ভাষা কোনটি? এই প্রশ্নের উত্তর চোখ বুজেই দিতে পারবেন৷ হ্যাঁ, উত্তর হিন্দি৷ এবার পরের প্রশ্ন, তাহলে দ্বিতীয় বড় ভাষা কোনটি? চিন্তায় পড়লেন, আরে ধ্যাৎ, এটার উত্তর আরো সোজা, ‘বাংলা'৷ তবে, শতকের হিসেবে দু'ভাষার ব্যবধান অনেক, একটি ৪১ শতাংশ, অন্যটি ৮.১ শতাংশ৷ তাও বা কম কিসের!

প্রতিবেদক: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সংশ্লিষ্ট বিষয়