1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

১৫ শিংয়ের ডাইনোসরে'র সন্ধান মিলেছে উটা মরুভূমিতে

সম্প্রতি মার্কিন মুলুকের উটা অঞ্চলের মরুভূমি খুঁড়ে আজ থেকে ৭৬ মিলিয়ন বছর আগের পৃথিবীতে ঘুরে বেড়াত, এমন বিরল প্রজাতির ডাইনোসরাসের সন্ধান পেয়েছেন জীবাশ্মবিদরা৷

default

শিঙেল ডাইনো

সেই যে ছড়া, সুকুমার রায় লিখেছিলেন – ‘সিংহের শিং নেই, এই তার কষ্ট/ হরিণের সাথে মিলে শিং হল পষ্ট৷' হরিণের সাথে মিলেছিল কিনা জানা যায় নি, কিন্তু এ যেন খানিকটা তাই৷ সম্প্রতি কয়েকজন জীবাশ্মবিদ মার্কিন মুলুকের পশ্চিমাংশের উটা মরুভূমি খুঁড়ে দীর্ঘ শিংওলা বিরল প্রজাতির ডাইনোসরের সন্ধান পেয়েছেন৷

এই শিঙেল ডাইনো'রা নাকি হার্বিভোরাস টাইসেরাটোপ প্রজাতির ডাইনোসরদের নিকটাত্মীয় ছিলো৷ জীবাশ্মবিদরা মাটি খুঁড়ে ডাইনোসরের দুইটি করোটি পেয়েছেন৷ একটি সাত ফুট লম্বা করোটি, আর অন্য করোটিতে নাকি ১৫টি শিং সাজানো ছিল৷ এক মাথায় ১৫ শিং নিয়ে কি বিচিত্রই না দেখাতো এই প্রাগৈতিহাসিক প্রাণীগুলোকে৷

গবেষকরা জানিয়েছেন, অতিকায় নিরামিষাশী এই ডাইনোরা ছিল হারিয়ে যাওয়া প্রাচীন মহাদেশ ‘লারামিডিয়া'র অধিবাসী৷ যার অবস্থান ছিল এখনকার উত্তর আমেরিকার কাছে৷ খুঁজে পাওয়া এই প্রাগৈতিহাসিক প্রাণীগুলোর একটা নামও তো চাই, তাই নয় কি! গবেষকরা এই ডাইনো দুটির একটির নাম রেখেছেন ‘উটা-সেরাটপ'৷ উটা'র মরুভূমিতেই যে এদের সন্ধান মিলেছে৷

দুই জীবাশ্মের মধ্যে যে ডাইনোটি অপেক্ষাকৃত ছোট, সেটির নাম রাখা হয়েছে ‘কসমসেরাটপস রিচার্ডসনি'৷ ল্যাটিন ভাষায় কসমস মানে হচ্ছে বিশদভাবে অলংকৃত৷ আর গবেষক স্কট রিচার্ডসন একে খুঁজে পেয়েছিলেন বলেই তার নামের রিচার্ডসন এর সঙ্গে মিলিয়ে রাখা হয়েছে রিচার্ডসনি৷

চেহারা দেখেশুনে আরেক জীবাশ্ম গবেষক মার্ক লোওয়েন জানিয়েছেন, আদতে এই উটাসেরাটপ'দেরকে মস্ত মাথার বিশালকায় গণ্ডারই বলা যায়৷ নাকের ওপরে বসানো লম্বা শিংটির কথা বাদ দিলে অন্য শিংগুলো ঊর্ধ্বমুখী না হয়ে তাদের মুখের পাশ দিয়ে বেরিয়ে থাকতো৷ ৩ থেকে ৪ টন ওজন হতো এদের৷ ঝাড়া ১৮ থেকে ২২ ফুট দৈর্ঘের এসব ডাইনোসর উচ্চতায় ছিল ৬ ফুট৷

কিন্তু গবেষকদের মাথা ব্যথার মূল কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে এখন এই ১৫ টি শিং৷ বিশাল মাথায় বিচিত্রভাবে সাজানো এতোগুলো শিং দিয়ে এই ‘কসমসেরাটপস রিচার্ডসনি'রা আসলে কি করতো! এ নিয়ে বিষম ধন্দে পড়ে গিয়েছেন তারা৷ অবশ্য কেউ কেউ বলছেন, এই শিং গুলো প্রতিদ্বন্দ্বী আর শত্রুদের ঠেঙাতেই ব্যবহার করতো কসমসেরাটপ রিচার্ডসনিরা৷ কখনো কখনো নাকি প্রেমের ভাব প্রকাশেও এর ব্যবহার ছিল৷ অন্তত বিজ্ঞানীদের তেমনটিই ধারণা৷ সেক্ষেত্রে এই বিরল প্রজাতির ডাইনোদের বিচিত্র এই শিং সমাহার সমরাস্ত্র এবং প্রেমাস্ত্র, মানে প্রেম প্রকাশের অস্ত্র হিসেবেও ব্যবহার করতো এরা৷

প্রতিবেদন: হুমায়ূন রেজা

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন