1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

১৪ প্রজাতির নাচুনে ব্যাঙের সন্ধান

ভারতের পশ্চিম ঘাট পর্বতমালায় নতুন ১৪ প্রজাতির নাচুনে ব্যাঙের সন্ধান পাওয়া গেছে৷ তবে জলবায়ুর পরিবর্তন আর মানুষের আগ্রাসনে তাদের সংখ্যা দ্রুত কমে আসছে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা৷

Erdbeerfröschchen

প্রতীকী ছবি

বর্ষার শুরুতে পাহাড়ে ঢল নামলেই শুরু হয় ব্যাঙের প্রজনন মৌসুম৷ কিন্তু পুরুষ ব্যাঙের প্রেমের ডাক জলের কলধ্বনিতে চাপা পড়ে যায় বলে এসব প্রজাতির সদস্যরা সঙ্গিনীদের নজর কাড়তে বিশেষ ভঙ্গিতে লম্ফঝম্প করে৷ এ কারণেই বিজ্ঞানীরা আদর করে এদের নাম দিয়েছেন নাচুনে ব্যাঙ বা ড্যান্সিং ফ্রগ৷

দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সত্যভামা দাশ বিজু জানান, এসব নাচুনে ব্যাঙের আবাসস্থল গত ১২ বছরে অনেকটাই শুকিয়ে গেছে৷ ফলে তাদের সংখ্যাও দ্রুত কমে আসছে৷

‘‘বিশ্বকে নতুন এসব প্রজাতির খবর জানাতে পেরে আমাদের যেমন আনন্দ হচ্ছে, তেমনি খুব কষ্ট হচ্ছে, কারণ এসব ব্যাঙকে রক্ষা করার মতো সময় আমাদের হাতে নেই৷''

বিজু ও তাঁর সহকর্মীরা যেসব নতুন প্রজাতির সন্ধান পেয়েছেন, সম্প্রতি সেগুলোর বিবরণ প্রকাশ করা হয়েছে বিজ্ঞান সাময়িকী ‘সিলন'এ৷ সব মিলিয়ে ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে এখন ২৪ প্রজাতির নাচুনে ব্যাঙ পাওয়া যায় বলে জানাচ্ছেন তাঁরা৷

ভারতীয় বিজ্ঞানীরা জানান, এসব ব্যাঙ প্রজাতির পুরুষ সদস্যরাই কেবল নাচে৷ ক্ষুদে শরীরের দুই পাশে পা ছড়িয়ে দিয়ে তারা জোরে জোরে চাপড় দিতে থাকে৷ দেহের আকার যতো বড় হয়, নাচও হয় ততো দর্শনীয়৷

এসব প্রজাতিতে ছেলে ও মেয়ে ব্যাঙের সংখ্যার অনুপাত ১০০:১৷ ফলে প্রজনন ঋতুতে সঙ্গী জোগাড় করতে পুরুষ ব্যাঙকে যথেষ্ট কায়দা কসরত করতে হয়৷ প্রতিদ্বন্দ্বীদের দূরে রাখতে লম্বা লম্বা পাগুলো তারা ব্যবহার করে৷

বিজু জানান, মধ্য আমেরিকা ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার কিছু এলাকাতেও নাচুনে ব্যাঙ দেখা যায়৷ তবে মিক্রিজালিদাই পরিবারভুক্ত ভারতীয় ব্যাঙগুলো তাদের পূর্বপুরুষদের কাছ থেকে আলাদা হয়েছে আনুমানিক সাড়ে ৮ কোটি বছর আগে৷

‘‘ক্ষুদে এই ব্যাঙ প্রজাতির অবস্থা এতোটাই নাজুক যে পরিবেশের সামান্য পরিবর্তন ঘটলেই এদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখা কঠিন হয়ে দাঁড়াবে,'' বলেন তিনি৷

ভারতে যত ধরনের উদ্ভিদ ও প্রাণীর দেখা মেলে, তার অর্ধেকই পশ্চিম ঘাটের এই পার্বত্য এলাকায় পাওয়া যায়৷ কিন্তু লোহা ও বক্সাইটের জন্য খোঁড়াখুঁড়ি, দূষণ, অপরিকল্পিত চাষাবাদ এবং জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বহু প্রাণী প্রজাতি তাদের আবাসস্থল হারিয়ে বিলুপ্ত হতে বসেছে৷

বিজুর ধারণা, পশ্চিম ঘাটের আদিম প্রকৃতিতে হয়ত আরো অনেক অজানা প্রজাতির ব্যাঙ আছে৷ কিন্তু পরিস্থিতি যেভাবে বদলাচ্ছে, তাতে বিজ্ঞানীরা খোঁজ পাওয়ার আগেই এর মধ্যে অনেক প্রজাতি হয়ত বিলুপ্ত হয়ে যাবে৷

জেকে/জেডএইচ (এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়