1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মতামত

হ্যাপী সম্পর্কে পাঠকরা যা বললেন

হ্যাপীর ফেসবুকে পুরুষ বন্ধু  না থাকার কারণ বা তাঁর এই পরিবর্তন সম্পর্কে ফেসবুক পাতায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া তুলে ধরেছেন ডয়চে ভেলের অনেক পাঠক৷

পাঠক আবদুল্লাহ মনে করেন, ধার্মিক মানুষের ফেসবুক অ্যাকাউন্টই থাকা উচিৎ নয়৷ অর্জুন বৈদ্যর ধারণাও অনেকটা এরকম৷ তাছাড়া মুভি দেখে কারো স্বভাব চরিত্র বদলাতে পারে– এ কথা অর্জুন মোটেই বিশ্বাস করেন না৷

 হ্যাপীর ব্যাপারটা তো হেসেই উড়িয়ে দিচ্ছেন পাঠক পল্লব৷ 

আর নাবিল চৌধুরী বলছেন, হ্যাপী ফার্সি ভাষায় ছবি দেখে কিভাবে এতটা ধার্মিক হতে পারে তা বোধগম্য নয়৷

ইমরান হক সজিব হ্যাপীকে ‘মানসিক বিকারগ্রস্থ' বলে মন্তব্য করেছেন৷

তবে হ্যাপীর এই পরিবর্তনকে ডয়চে ভেলের পাঠক জহুরহল হক জায়েদ স্বাগত জানিয়েছেন৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘হ্যাপী  যে পরিবেশ থেকে ফিরে ইসলামিক জীবনকে বেছে নিয়েছেন, তার জন্য তাঁকে বিবেক, চিন্তা, অনুভুতি দিয়ে অনেক ভাবতে হয়েছে৷ কারণ, তাঁর কাছে বিষয়টা অনেক কঠিন ছিল৷''

পাঠক আল রশীদও পছন্দ করছেন হ্যাপীর এই পরিবর্তন৷

‘সেই সময় তাঁর জীবনে একটি বিশেষ অধ্যায় চলছিল' শিরোনামে প্রকাশিত আব্দুল্লাহ আল ফারুকের সাক্ষাৎকারটি পড়ে হানিফ তালুকদারের মন্তব্য, ‘‘হ্যাপীকে ধন্যবাদ এবং শুভকামনা৷ প্রত্যেক মানুষের উচিত তাঁর ধর্মের আদেশকে মেনে জীবন চালানো৷''

 সংকলন: নুরুন নাহার সাত্তার

সম্পাদনা: আশীষ চক্রবর্ত্তী

নির্বাচিত প্রতিবেদন