1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

হেফাজতের ১৩ দফা প্রত্যাখান, নারীদের গণসমাবেশ

বাংলাদেশের নারীরা মনে করেন হেফাজতে ইসলাম যে ১৩ দফা দিয়েছে তা শুধু নারী প্রগতি বিরোধী নয়, দেশের উন্নয়ন ও সংবিধান বিরোধীও৷ তাই তাদের দাবি মেনে নেয়া দূরের কথা, কোনো ধরণের সহানুভূতিও দেখানো যাবেনা৷

ঢাকার প্রেসক্লাবের সামনে শনিবারের প্রতিবাদী নারী গণসমাবেশে তৃনমূল থেকে সমাজের প্রতিষ্ঠিত নারী, শ্রমজীবী, গৃহিনী – সবার উপস্থিতি নিশ্চিত করা হয়েছে৷ নারীরা তাদের অধিকার রক্ষা এবং আদায়ে মাঠে নেমেছে এবং তাদের আন্দোলন চলবে, যা ডয়চে ভেলেকে জানান আয়োজদের একজন সুপ্রীতি ধর৷

সুপ্রীতি জানান, দেশের ৮০টি নারী সংগঠন ছাড়াও বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, শ্রমিক সংগঠন ও সাধারণ নারীরা তাদের সঙ্গে এখন একাত্ম৷ তাই তাদের পাশ কাটিয়ে তাদের হেয় করে মৌলবাদী চক্রের দাবি মানার কোনো সুযোগ নেই৷ তিনি জানান, এটি নারীদের সমাবেশ হলেও এই সমাবেশ দেশের সব নাগরিকের কল্যাণে৷ কারণ, হেফাজতের ১৩ দফা দাবি মানলে দেশ অন্ধকার যুগে চলে যাবে৷ উন্নয়ন এবং প্রগতির চাকা হয়ে যাবে বন্ধ৷

তিনি বলেন, ৫ই মে শাপলা চত্তরে হেফাজত ও জামায়াত শিবির দাবি আদায়ের নামে যে তাণ্ডব এবং নৃশংসতা চালিয়েছে, তাতেই তাদের চেনা গেছে৷ বোঝা গেছে তাদের উদ্দেশ্য৷

নারী নেত্রী খুশী কবির ডয়চে ভেলেকে বলেন, হেফাজতের ১৩ দফা তো মেনে নেয়া যাবেই না বরং বাংলাদেশে ধর্ম ব্যবহার করে রাজনীতি বন্ধ করতে হবে৷ আর সরকার যে নারী নীতি করেছে তা পুরোপুরি বাস্তবায়ন করতে হবে৷ তিনি জানান, হেফাজত বাংলাদেশের সংবিধানের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে৷ অবস্থান নিয়েছে নারী প্রগতির বিরুদ্ধে৷ তারা নারীদের হেয় করছে৷ এই ধরণের কূপমণ্ডূক এবং ধর্মান্ধ গোষ্ঠিকে কোনোভাবেই আশ্রয় প্রশ্রয় দেয়া যাবেনা৷ যারা তাদের সমর্থন দিচ্ছে, তাদের সহযোগিতা করছে, তাদের হেফাজতের সঙ্গ ত্যাগ করার আহ্বান জানান তিনি৷ খুশী কবির বলেন, ভোটের হিসাব করে লাভ নেই৷ হেফাজতের ভোটে কাজ হবেনা৷ দেশের অর্ধেক ভোটার যে নারী, সেটা মনে রাখতে হবে৷

খুশী কবির বলেন, ‘ধর্ম যার যার, রাষ্ট্র সবার' – এই নীতিতে তারা বিশ্বাস করেন৷ কিন্তু সংবিধানে রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম অন্য ধর্মকে হেয় করেছে৷ সংবিধানে কোনো ধর্মের প্রাধান্য থাকতে পারেনা৷ সব ধর্মকে সমান অবস্থানে রাখতে হবে৷ রাজনীতিবিদরা ধর্মকে এভাবে ব্যবহার করে বলেই ধর্ম ব্যবসায়ীদের এত আস্ফালন৷ কিন্তু বাংলাদেশের নারীরা তাদের এই আস্ফালন মেনে নেবেনা৷

তিনি জানান, ঢাকার এই প্রতিবাদী নারী গণসমাবেশই শেষ নয়৷ তারা আরো কঠোর আন্দোলনে যাবেন৷ তারা তাদের অধিকার আদায়ের আন্দোলন সারা দেশে ছড়িয়ে দেবেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন