1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাঠক ভাবনা

‘হুমায়ূন আহমেদকে মিস করছি’

হুমায়ূন আহমেদের স্মৃতিময় ‘ছবিঘরটি’ আমাকে মুগ্ধ করলো৷ আমি বেশ কয়েকবার হুমায়ূন আহমেদের নুহাশ পল্লীতে গিয়েছি৷ তাঁর সৌখিনতার পরিচয় পাওয়া যায় তাঁর একান্ত জায়গা নুহাশ পল্লীতে গেলে৷

সময় পেলেই যেতে ইচ্ছে করে৷ ধন্যবাদ ডয়চে ভেলেকে এই সুন্দর ক্ষণগুলো মনে করিয়ে দেয়ার জন্য৷ মো. সোহেল রানা হৃদয়, ঢাকা সেনানিবাস, ঢাকা থেকে লিখেছেন৷

আজ ‘বিজ্ঞান পরিবেশ' বিভাগে অনেকগুলি লেখা পেয়ে খুব ভালো লাগল৷ ‘ঘাম শরীরের এয়ার কন্ডিশনিং-এর কাজ করে' – এই লেখাটার প্রতিপাদ্য অনেকটাই জানা ছিল৷

ঘামের যে নিজস্ব কোনো দুর্গন্ধ নেই, জানতাম সেটাও৷ কিন্তু অবাক হলাম, হাতিদের ঘর্মগ্রন্থি নেই জেনে৷ হাতিরা যে কানের সাহায্যে তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে এই তথ্যও আমার কাছে নতুন৷ অনেক ধন্যবাদ আপনাদের এই অজানা তথ্যগুলির জন্য৷

একই রকম উপভোগ্য ‘বসার টুল যখন খেলার সাথি' লেখাটিও৷ স্পোর্ট-হকার খেলা সম্বন্ধে অনেক কিছু জানতে পারলাম লেখাটি থেকে৷

‘ভারতে জার্মান সহায়তায় সৌর প্রকল্প' লেখাটি থেকে মাউন্ট আবুর প্রজাপিতা ব্রহ্মাকুমারী ঈশ্বরীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের আশ্রমের জন্য বিশাল সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্প সম্বন্ধে জানতে পেরে ভালো লাগল৷ ভারতবর্ষ এক বিশাল দেশ, যেখানে বিভিন্ন জায়গায় বছরের বিভিন্ন সময় পর্যাপ্ত সূর্যালোক পাওয়া যায়৷ তাই এই প্রকল্প সফলভাবে রূপায়িত হলে ভারতের শক্তিক্ষেত্রে তা যুগান্তকারী প্রভাব ফেলবে৷ এটির অনুকরণে বহু ছোট ও বড় সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র ক্রমশ গড়ে উঠবে৷ প্রকল্পটির মুখ্য স্থপতি জার্মান যোগী গোলো পিলৎসকে ধন্যবাদ জানাই, কৃতজ্ঞতা জানাই জার্মান সরকারকেও তাদের সাহায্যের জন্য৷

‘এইডস-এর বিরুদ্ধে সংগ্রামে নতুন প্রচেষ্টা' লেখাটি অত্যন্ত তথ্যপূর্ণ, খুব ভালো লাগল৷ ‘মহাকাশে ডুবে মরছিলেন ইটালির লুকা' – এই প্রতিবেদনটি পড়ে একটা কথাই শুধু মনে হলো, ‘থ্যাঙ্ক গড!' ঈশ্বর মঙ্গলময়৷ তাই মহাকাশচারী লুকা বড় বিপদ থেকে বাঁচলেন৷ অন্বেজা মাজি, ধীরেন্দ্রনাথ মাজি, শিং ভাঙ্গা মোড়, গঙ্গাজলঘাটী, বাঁকুড়া থেকে পাঠিয়েছেন এই ই-মেলটি৷

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন