1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘হিলারি অ্যামেরিকার ম্যার্কেল হতে চান'

নির্বাচনে জিতলে ডোনাল্ড ট্রাম্প অ্যামেরিকার পররাষ্ট্র নীতির খোলনলচে বদলে দিতে চান৷ ম্যার্কেল শরণার্থীদের প্রতি যে উদার নীতি গ্রহণ করেছেন, তার তীব্র সমালোচনা করে প্রতিপক্ষ হিলারি ক্লিন্টন সম্পর্কে বিষোদগার করলেন তিনি৷

‘‘হিলারি ক্লিন্টন অ্যামেরিকার আঙ্গেলা ম্যার্কেল হতে চান৷ আপনারা জানেন, ব্যাপক হারে অভিবাসন জার্মানি ও জার্মানির মানুষের জন্য কত বড় বিপর্যয় নিয়ে এসেছে৷ অপরাধের হার অকল্পনীয় মাত্রায় পৌঁছে গেছে'' – এমন মন্তব্য করে সরাসরি জার্মানির চ্যান্সেলরের শরণার্থী নীতির বিরুদ্ধে তোপ দেগে বিষয়টিকে মার্কিন নির্বাচনের প্রচারে হাতিয়ার করলেন রিপাবলিকান পদপ্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প৷

এমনকি ওবামা প্রশাসন অ্যামেরিকায় আরও সিরীয় শরণার্থীদের আহ্বান করার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তারও সমালোচনা করেন ট্রাম্প৷ যেসব অঞ্চল থেকে অতীতে সন্ত্রাসবাদ রপ্তানি করা হয়েছে, সেই সব স্পর্শকাতর এলাকা থেকে শরণার্থীদের প্রবেশ সাময়িকভাবে বন্ধ করতে হবে বলে মনে করেন তিনি৷

নির্বাচনে জিতলে ট্রাম্প-এর পররাষ্ট্র নীতির রূপরেখা কী হতে চলেছে, তা ধীরে ধীরে স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে৷ এতকাল দলমত নির্বিশেষে মার্কিন নীতিমালার একটা বড় অংশ বর্জন করে এক সংকীর্ণ পথে এগোতে চান তিনি৷ বাকি পৃথিবীর কী দশা, তাতে তাঁর কিছুই যেন যায় আসে না৷ ট্রাম্প যে বিষয়গুলি অ্যামেরিকার জন্য গুরুত্বপূর্ণ মনে করেন, তাঁর আমলে সেগুলির বাইরে অন্য কোনো ক্ষেত্রে অ্যামেরিকা জড়িয়ে পড়বে না – এটাই তাঁর সাফ কথা৷ তবে এর আগে সামরিক জোট ন্যাটো সম্পর্কে নেতিবাচক মন্তব্য করলেও এখন এই জোটের প্রশংসা করছেন তিনি৷

ট্রাম্প-এর জরুরি কাজের তালিকায় রয়েছে তথাকথিত ‘ইসলামিক স্টেট' সংগঠনকে ধ্বংস করা৷ বর্তমান প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ও ডেমোক্র্যাটিক দলের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিলারি ক্লিন্টনকে তিনি আইএস-এর বাড়বাড়ন্তের জন্য দায়ী করেন৷ মধ্যপ্রাচ্যে ব়্যাডিকাল ইসলামিক ভাবধারার শিকড় ছড়াতে দিয়ে এই দু'জন মারাত্মক ভুল করেছেন বলে অভিযোগ করেন ট্রাম্প৷ তিনি সন্ত্রাসবাদ দমনের লক্ষ্যে বৃহত্তর আন্তর্জাতিক জোট গঠন করার আহ্বান জানান৷

ট্রাম্প-এর বিরুদ্ধে একই দিনে তোপ দেগেছেন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন৷ ক্লিন্টনের সমর্থনে প্রথমবার এক জনসভায় ভাষণ দিতে গিয়ে তিনি বলেন, ট্রাম্প দেশে-বিদেশে অ্যামেরিকার প্রতিনিধি হবার একেবারেই যোগ্য নন৷ ভ্লাদিমির পুটিন ও সাদ্দাম হুসেনের যে প্রশংসা করে, সেই প্রার্থী সম্পর্কে মোটেই উচ্চ ধারণা পোষণ করেন না তিনি৷ পররাষ্ট্র নীতির ক্ষেত্রে ক্লিন্টনের ‘অসামান্য' কাজের ঢালাও প্রশংসা করেন বাইডেন৷

এসবি/এসিবি (ডিপিএ, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়