1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

হিটলারের বই নিয়ে লেখা সংস্করণ জার্মানিতে ‘বেস্ট সেলার'

প্রকাশ হওয়ার মাত্র এক বছরের মধ্যে জার্মানিতে অ্যাডলফ হিটলারের লেখা বই ‘মাইন কাম্ফ'-এর টীকা সংস্করণটির ৮৫ হাজার কপি বিক্রি হয়েছে৷ প্রকাশক অবশ্য বলছেন, বইটির বেশিরভাগ ক্রেতা শিক্ষক এবং ইতিহাসপ্রেমী, ডানপন্থি নয়৷

দুই খণ্ডের সংস্করণটি এক বছরে জার্মানিতে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়েছে বলে ৩ জানুয়ারি ঘোষণা করেন এর প্রকাশক৷ এই বইটির নাম ‘হিটলার, মাইন কাম্ফ: আ ক্রিটিকাল এডিশন', যা এ পর্যন্ত ৮৫ হাজার কপি বিক্রি হয়েছে৷ এতে বিস্মিত হয়েছেন প্রকাশক৷ প্রকাশনা সংস্থা মিউনিখের ইনস্টিটিউট ফর কনটেম্পোরারি হিস্ট্রি আইএফজেড জানিয়েছে, এ মাসের শেষেই বইটির ষষ্ঠ সংস্করণ বের করতে তারা৷ আইএফজেড-এর কর্ণধার আন্দ্রেয়াস ভির্সিং সংবাদ সংস্থা ডিপিএ কে জানিয়েছেন, ‘‘ঝড়ের গতিতে বই বিক্রি হচ্ছে৷ এমনটা আমি কেন কেউই আশা করেনি৷ ''

বহু বছর ধরে হিটলারের মূল বইটির উপর নানা মন্তব্য ও বক্তব্য জোগাড় করে আসছে প্রকাশনা সংস্থাটি৷ বর্তমান বইটির পৃষ্ঠা সংখ্যা ১,৯৪৮ এবং এটির দাম ৫৯ ইউরো৷ ষষ্ঠ সংস্করণে চার হাজার কপি বের করার পরিকল্পনা আছে তাদের৷ বইয়ের বিক্রি যদি আগের মতোই অব্যাহত থাকে তবে আরও প্রিন্ট বের হবে বলে জানিয়েছে তারা৷ ২০১৬ সালের এপ্রিলে জার্মানির সাপ্তাহিক ‘ডেয়ার স্পিগেল' এ বেস্ট সেলার নন-ফিকশন বইয়ের তালিকার শীর্ষে ছিল এটি৷

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ সমাপ্তির পর বাভারিয়ান রাজ্য সরকার হিটলারের ঐ আত্মজীবনীটির কপিরাইট নিষিদ্ধ করে দেয়৷ ২০১৫ সালে সেই নিষিদ্ধ সময় পেরিয়ে গেলে জার্মানিতে এই নতুন সংস্করণটি প্রথম প্রকাশিত হয়৷ নতুন এই বইটির প্রচারণার জন্য কেবল জার্মানি নয় পুরো ইউরোপ জুড়ে বিভিন্ন সভা সমাবেশ করেছে প্রকাশনা সংস্থাটি৷ এটা যে নাৎসিবাদ বা ডানপন্থি মতাবাদ ছড়ানোর জন্য প্রকাশ করা হচ্ছে না সেটাও তুলে ধরা হয়েছে সেমিনারগুলোতে৷

আন্দ্রেয়াস ভির্সিং জানান, ‘‘অনেকের মনেই আতঙ্ক ছিল যে, এই সংস্করণটি হয়ত হিটলারের মতাবাদ ছড়িয়ে দেবে এবং নব্য নাৎসিদের উৎসাহিত করবে৷ কিন্তু এমনটা হয়নি৷'' এ কারণে প্রকাশনা সংস্থাটি বই ক্রেতাদের তথ্য রাখতে বলেছিলেন এবং ক্রেতাদের তালিকায় বেশিরভাগই এমন ছিলেন যাদের রাজনীতির বা ইতিহাসের প্রতি আগ্রহ আছে, তবে এদের মধ্যে কোনো ডানপন্থিকে পাননি তারা৷

ভিডিও দেখুন 05:45

হিটলার তার নাৎসি মতাবাদ নিয়ে ‘মাইন কাম্ফ' লিখেছিলেন ১৯২৫ থেকে ২৬ এর মধ্যে কোনো এক সময়৷ ১৯২৩ সালে কারাগারে বন্দি থাকা অবস্থায় এটি লেখেন তিনি৷ ইংরেজিতে ‘মাই স্ট্রাগল' নামে ঐ বইটিতে জার্মানির রক্ষণশীল সমাজে নিজের চিন্তাভাবনার বিস্ফোরণ ঘটাতে এই বইয়ের আশ্রয় নিয়েছিলেন তিনি, যেখানে নিজেকে তুলে ধরেছিলেন জার্মানির ত্রাণকর্তা হিসেবে৷ গত ৭০ বছর ধরে জার্মানিতে হিটলার সম্পর্কিত সব ধরনের বই প্রকাশে নিষেধাজ্ঞা ছিল৷

এপিবি/ডিজি (এপি, এএফপি, রয়টার্স, ডিপিএ)

আমাদের দেশে পথে-ঘাটেই পাওয়া যায় ‘মাইন কাম্ফ’৷ বইটি আপনি কি পড়েছেন? জানান আপনার মন্তব্য, নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন