1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

হিউম্যান রাইটস ওয়াচকে চ্যালেঞ্জ জানালো বিজিএমইএ

পোশাক শ্রমিকদের হয়রানিমূলক মামলায় আটক ও তাদের বাক-স্বাধীনতা হরণের অভিযোগ তুলে দেয়া এইচআরডাব্লিউ-র বিবৃতিকে চ্যালেঞ্জ করেছেন বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি বলেছেন, এইচআরডাব্লিউ না জেনে কথা বলছে৷

তারা না জেনে অন্যের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে এসব কথা বলছে৷ তিনি তাদের বাংলাদেশের পোশাক কারখানা সরেজমিন পরিদর্শনেরও আহ্বান জানান৷

যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডাব্লিউ) গত ডিসেম্বরে ঢাকার অদূরে আশুলিয়ায় মজুরি বাড়ানোর দাবিতে পোশাক শ্রমিকদের আন্দোলন এবং তা বন্ধে সরকারের ব্যবস্থা নিয়ে এক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে৷ বৃহস্পতিবার প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়৷ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘‘২০১৬ সালের ডিসেম্বরে বেতন ইস্যুতে ধর্মঘটের পর থেকে হয়রানি ও নিপীড়নের শিকার হতে হচ্ছে পোশাক শ্রমিকদের৷ এসব গার্মেন্টস কর্মী ও শ্রমিক নেতাদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত অভিযোগ আনা হয়েছে৷’’

এইচআরডাব্লিউ’র মতে, ‘‘অপরাধের বিশ্বাসযোগ্য অভিযোগের চেয়ে শ্রমিক সংগঠনগুলোর বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নিতেই অধিক আগ্রহী পুলিশ৷ আশুলিয়ার ধর্মঘট এলাকা থেকে গ্রেফতারকৃতদের অনেকেই পুলিশের ক্ষমতার অপব্যবহারের শিকার হচ্ছেন৷’’

তাদের কাছে এ পর্যন্ত ৩৪ জনকে গ্রেপ্তারের সুনির্দিষ্ট তথ্য রয়েছে বলেও দাবি করেছে এইচআরডাব্লিউ৷ তবে সংবাদ মাধ্যম বলছে মোট ৪৪ জনকে আটক করা হয়েছে৷ আরো ১৫৯ জনকে নজরদারির মধ্যে রাখা হয়েছে৷ যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থাটি বলছে, আটকদের মধ্যে সাংবাদিকও রয়েছেন৷ এবং সাংবাদিক নাজমুল হুদাসহ অন্তত দু’জনকে ক্রসফায়ারের ভয় দেখানো হয়েছে৷

গত ডিসেম্বরে আশুলিয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে কমপক্ষে ১০টি মামলা করে পুলিশ৷ এসব মামলায় যাদের আটক করা হয়েছে, তারা ছাড়াও ১৫০ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে৷ আর অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে দেড় হাজারেরও বেশি৷ বিতর্কিত তথ্যপ্রযুক্তি আইন এবং বিশেষ ক্ষমতা আইনেও মামলা করা হয়েছে৷

এইচআরডব্লিউর প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘‘বেতন বাড়ানোর দাবিতে ১১ থেকে ১৯ ডিসেম্বর ধর্মঘটে অংশ নেন কয়েক হাজার গার্মেন্টসকর্মী৷ আন্দোলনকারীদের দাবি ছিল, তাদের মাসিক বেতন যেন পাঁচ হাজার ৩০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৫ হাজার বা ১৬ হাজার টাকা করা হয়৷ ২০১৬ সালে লেবার অ্যাসোসিয়েশনের অনুসন্ধানে বাংলাদেশের গার্মেন্ট শ্রমিকদের ক্রয়ক্ষমতা সংক্রান্ত কিছু তথ্য উঠে আসে৷ এতে দেখা যায়, একজন গার্মেন্টকর্মীর গড়পড়তা ক্রয়ক্ষমতা বিশ্বব্যাংক নির্ধারিত দারিদ্রসীমার চেয়েও নিচে৷’’

অডিও শুনুন 00:59

তারা না জেনে অন্যের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে এসব কথা বলছে: বিজিএমইএ সভাপতি

বাংলাদেশ সরকার এবং গার্মেন্টস মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ উভয়েই গার্মেন্টস কর্মীদের বেতন পর্যালোচনার দাবি প্রত্যাখ্যান করে৷ কিছুদিনের জন্য আশুলিয়ার প্রায় ৬০টি ফ্যাক্টরি বন্ধ রাখে বিজিএমইএ৷ ফলে সাময়িকভাবে কর্মহীন হয়ে পড়েন হাজার হাজার গার্মেন্টসকর্মী৷ এক পর্যায়ে ওই ধর্মঘটের অবসান ঘটে৷

হিউম্যান রাইটস ওয়াচ-এর এশিয়া অঞ্চলের ডেপুটি ডিরেক্টর ফিল রবার্টসন বলেন, ‘‘বেতন নিয়ে শ্রমিকদের ক্ষোভের দিকে নজর দেওয়ার বদলে শ্রম অধিকারকর্মীদের টার্গেটে পরিণত করা এবং শ্রমিকদের আতঙ্কিত করে তোলা হলে তা বাংলাদেশের সুনাম ক্ষুন্ন করবে৷’’

তিনি আরো বলেন, ‘‘বাংলাদেশ থেকে পণ্য সংগ্রহকারী আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড এবং দাতাদের উচিত কর্মী এবং শ্রম অধিকারকর্মীদের ওপর নিপীড়ন বন্ধে সরকারের ওপর চাপ প্রয়োগ করা৷’’

২৫ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ঢাকা অ্যাপারেল সামিট৷ এইচআরডাব্লিউর ওই প্রতিবেদনে এ প্রসঙ্গ টেনে আনা হয়৷ বলা হয়, এ সামিটে অংশ নিচ্ছে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন ব্র্যান্ড ও দাতাগোষ্ঠীগুলো৷ এ সম্মেলনের আয়োজন করছে বাংলাদেশে গার্মেন্ট সামগ্রী রফতানিকারকদের সংস্থা৷ এইচআরডব্লিউ’র প্রতিবেদনে বলা হয়, আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড ও দাতাদের উচিত শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে সব ধরনের নিপীড়ন বন্ধ করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো৷ একইসঙ্গে কর্মীদের সংগঠন করার যে স্বাধীনতা রয়েছে তার সুরক্ষার জন্য আওয়াজ তুলতে হবে৷

তবে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক প্রস্তুতকারক কারাখানার মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ’র সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান ডয়চে ভেলেকে বলেন,  ‘‘এইচআরডাব্লিউ’র ওই প্রতিবেদন মনগড়া৷ তাদের প্রকৃত পরিস্থিতি সম্পর্কে ধারণা নেই৷ তারা শুনে বা অন্য কারুর কাছ থেকে তথ্য নিয়ে প্রতিবেদন তৈরি করেছে, যার সঙ্গে বাস্তবের কোনো মিল নেই৷ আমি তাদের চ্যালেঞ্জ করছি এবং আহ্বান জানাচ্ছি যে, তারা যেন বাংলাদেশে এসে সরেজমিন পোশাক কারখানা এবং শ্রমিক অধিকারের বিষয়গুলো দেখে৷’’

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘এতে ঢাকা অ্যাপরেল সামিট-এ কোনো প্রভাব পড়বে না৷ তবে এ ধরণের অসত্য প্রচারণা যে কোনো দেশ এবং তার শিল্পের জন্য ক্ষতিকর৷ আমরা একটা স্বাধীন দেশ৷ আমরা আমাদের আইন অনুযায়ী চলি৷ এখানে শ্রমিক, মালিক সবার জন্যই আইন আছে৷ শ্রমিক অধিকার আইনের আওতায় নিশ্চিত করা হয়েছে৷’’

প্রিয় পাঠক, আপনি কিছু বলতে চাইলে নীচে মন্তব্যের ঘরে লিখুন...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়