1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

হাসিনার পদত্যাগ বনাম খালেদার গ্রেপ্তারের দাবি

বাংলাদেশে রাজনৈতিক অস্থিরতার রেশ ভালোভাবেই পড়েছে টুইটারে৷ সরকার এবং বিরোধীপক্ষের সমর্থকরা বিভিন্ন হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে লড়ছেন একে অন্যের বিপক্ষে৷ এরকম দু’টো হ্যাশট্যাগ #স্টেপডাউনহাসিনা এবং #অ্যারেস্টখালেদাজিয়া৷

ইংরেজি হ্যাশট্যাগ #স্টেপডাউনহাসিনা গত কয়েকসপ্তাহ ধরেই চলে আসছে৷ বিশেষ করে বিএনপি জোটের সমর্থকরা এই হ্যাশট্যাগটি বেশি ব্যবহার করেন৷ এমনকি কয়েকটি টুইটার প্রোফাইলের শিরোনামও তারা ব্যবহার করেছেন হ্যাশট্যাগটি৷ নিরাপত্তা বাহিনীর কথিত ‘ক্রসফায়ারে' নিহত মানুষের অসম্পাদিত এবং রক্তাক্ত ছবি ও জামায়াত, শিবিরের আন্দোলনের তথ্যের সঙ্গেও #স্টেপডাউনহাসিনা দেখা যায়৷

অন্যদিকে, #অ্যারেস্টখালেদাজিয়া হ্যাশট্যাগটি অপেক্ষাকৃত নতুন৷ কুমিল্লায় বাসে পেট্রল বোমায় সাত ব্যক্তি নিহত হওয়ার পর থেকে হ্যাশট্যাগটি বাংলাদেশে ট্রেন্ড করছে৷ মূলত আওয়ামী লীগের সমর্থকরা এটি ব্যবহার করছেন৷ পেট্রল বোমায় ঝলসে যাওয়া, পুড়ে যাওয়া মানুষের অসম্পাদিত ছবিও রয়েছে এই হ্যাশট্যাগে৷

প্রসঙ্গত, অনলাইনে দুই পক্ষের প্রকাশিত ছবি, ভিডিও এবং তথ্য থেকে এটা পরিষ্কার যে বাংলাদেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা ক্রমশ জটিল থেকে জটিলতর হচ্ছে৷ আর এর বলি হচ্ছে মূলত সাধারণ মানুষ এবং বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীরা৷ ইংরেজিতে প্রকাশিত এ সব টুইটে অ্যামনেস্টি, হিউম্যানরাইটসের মতো মানবাধিকার সংগঠনগুলোর পাশাপামি বিবিসি, আল-জাজিরা এবং ডয়চে ভেলেকেও ট্যাগ করা হচ্ছে৷ ফলে বাংলাদেশের বর্তমান সহিংস পরিস্থিতি সম্পর্কে আন্তর্জাতিক সমাজও জানতে পারছে৷

আলোচিত দু'টি হ্যাশট্যাগ ছাড়াও #সেভবাংলাদেশ নামক একটি হ্যাশট্যাগ গত কয়েকদিন ধরে নিয়মিত ট্রেন্ড করছে বাংলাদেশে৷ সরকারি এবং বিরোধী পক্ষ উভয়েই ব্যবহার করছে এই হ্যাশট্যাগটি৷ কিছু দৃশ্যত নিরপেক্ষ মন্তব্যও রয়েছে৷ সত্যিকার অর্থে সাধারণ মানুষের মতামত অবশ্য টুইটারে তেমন একটা দেখা যাচ্ছে না৷ তবে সরকারি এবং বিরোধী জোট – উভয় পক্ষই দাবি করছে, জনগণের জন্য কাজ করছেন তাঁরা৷ প্রশ্ন হচ্ছে, পুড়িয়ে, গুলি করে মানুষ মেরে কোন জনগণের জন্য কাজ করছেন তাঁরা?

সংকলন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন