1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্রকারী গ্রেফতার খবরে চাঞ্চল্য

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা পরিকল্পনার ষড়যন্ত্রে জড়িত সন্দেহে ভারতীয় এক নারীকে গ্রেফতারের খবর দিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা রয়টার্স৷ এই খবরে ঢাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে৷

এদিকে রবিবার ভারতের জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনআইএ'র একটি দলের ঢাকায় আসার কথা রয়েছে৷ গত ২ অক্টোবর পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমানে খগড়াগড়ে একটি বাড়িতে বোমা বানাতে গিয়ে দুই জন নিহত হন৷ তারা হলেন শাকিল আহমেদ এবং সোবহান মণ্ডল৷ ভারতীয় গোয়েন্দারা তখনই দাবি করেন নিহত দুইজন বাংলাদেশের নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ, জেএমবি-র সদস্য এবং তারা বাংলাদেশের নাগরিক৷

এরপর ভারতীয় তদন্ত সংস্থা এবং গোয়েন্দাদের বরাত দিয়ে বেরিয়ে আসতে থাকে নানা তথ্য৷ যার মধ্যে সবচেয়ে ভয়ংকর তথ্য হলো ভারতের মাটিতে বসে জেএমবি-র বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার ওপর হামলার পরিকল্পনা৷ শুধু তাই নয়, তারা আরো রাজনৈতিক নেতা এবং গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় হামলারও ছক তৈরি করে বলে ভারত এবং আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের খবর৷ এই হামলা পরিকল্পনার উদ্দেশ্য ছিল বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক কাঠামো ধ্বংস করে সুবিধা নেয়া৷

আর শনিবার আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার পরিকল্পনায় জড়িত সন্দেহে এক নারীকে গ্রেপ্তার করেছে ভারতীয় পুলিশ৷ ৩৬ বছর বয়সি ওই নারী শেখ হাসিনাকে হত্যার পরিকল্পনা অনুযায়ী অস্ত্র সংগ্রহ করছিলেন৷ বাংলাদেশে সামরিক অভ্যুত্থানের পরিকল্পনাও ছিল তাঁর৷ আসাম পুলিশের বিশেষ অপারেশন ইউনিট তাঁকে গ্রেপ্তার করেছে বলে নিশ্চিত করেছেন ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যটির পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিচালক পল্লব ভট্টাচার্য৷

Indien Explosion Bahnhof Polizei Absperrung

ভারতীয় পুলিশ

শেখ হাসিনাকে হত্যার বিষয়ে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জেএমবি-র পলাতক জঙ্গিদের একটি পরিকল্পনা ভারত ভণ্ডুল করে দিয়েছে, এমন ঘোষণার কয়েক দিনের মধ্যেই ওই নারীকে আটক করলো আসাম পুলিশ৷

বর্ধমান বিস্ফোরণে জড়িত পলাতক জামায়াত-উল-মুজাহিদিন জঙ্গিদের সন্ধানে রবিবার ঢাকা আসার কথা রয়েছে ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা এনআইএ-র একটি দল৷ বিস্ফোরণের ঘটনার তদন্তে পাওয়া প্রাথমিক তথ্য এরইমধ্যে বাংলাদেশকে জানিয়েছে ভারত৷ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে ভারতীয় হাইকমিশনার পংকজ শরণ এ তথ্য দেন৷

বিশেষজ্ঞ মত

বাংলাদেশের নিরাপত্তা বিশ্লেষক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শাহেদুল আনাম খান (অব.) ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর হামলার চেষ্টা বা পরিকল্পনা এই প্রথম নয়৷ তাঁকে এর আগে বারবার হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে৷ আর এবার হত্যা পরিকল্পনায় জড়িত একজনকে ভারতে আটকের খবরে ঘটনা নতুন মোড় নিল৷ তার কাছ থেকে হয়ত আরো অনেক তথ্য জানা যাবে৷'' তিনি বলেন, ‘‘যেসব তথ্য পাওয়া যাচ্ছে তাতে স্পষ্ট যে বাংলাদেশে জঙ্গিরা একটি অরাজক পরিস্থিতির সৃষ্টি করতে চেয়েছিল৷ আর এর মাধ্যমে হয়ত তারা নতুন কোনো পরিকল্পনা করছিল৷''

এই নিরাপত্তা বিশ্লেষক বলেন, ‘‘সরকারের উচিত হবে শুরুতেই জঙ্গিদের এই অপচেষ্টা রুখে দেয়া৷ আর এজন্য উচিত সার্বিকভাবে দেশের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা জোরদার করার পাশাপাশি ব্যক্তি নিরাপত্তাও জোরদার করা৷ বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিরাপত্তা এখন সর্বোচ্চ গুরুত্বের দাবি রাখে৷'' তিনি বলেন, ‘‘জঙ্গিরা যেভাবে আন্তঃরাষ্ট্র নেটওয়ার্ক গড়ে তুলছে তা খুবই আতঙ্কের৷ তাই জঙ্গি দমনে এখন একক নয়, যৌথ উদ্যোগ প্রয়োজন৷'' শাহেদুল আনাম খান বলেন, ‘‘ভারতীয় তদন্তকারীরা বাংলাদেশে আসছে বলে খবর জানা গেছে৷ বাংলাদেশের গোয়েন্দাদের সেখানে যাওয়া উচিত৷ দুই দেশের এই বিষয়টি নিয়ে নিবিড় যোগাযোগ রেখে কাজ করা উচিত৷''

ভারতে বাংলাদেশের জঙ্গি

ভারতীয় গোয়েন্দাদের মতে বাংলাদেশ থেকে অন্তত ১৮০ জন জঙ্গি ভারতে গিয়ে গা ঢাকা দিয়েছে৷ বাংলাদেশের গোয়েন্দারা বলছেন, এখানে জঙ্গি বিরোধী অভিযান জোরদার হওয়ায় বেশ কিছু জঙ্গি ভারতে গিয়ে আশ্রয় নিয়েছে বলে তাদের কাছেও খবর আছে৷ তাঁরা বলেন, জামায়াতুল মুজাহিদিন জঙ্গি গ্রুপ ভারতেও রয়েছে৷ ভারতে যে ৩৬টি নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠনের তালিকা এনআইএ তৈরি করেছে, তার ২৭ নম্বরে রয়েছে জেএমবি৷ আর বাংলাদেশে ৫টি নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠনের এক নম্বর হলো জেএমবি৷ বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে সীমান্তে নিরাপত্তা এবং নজরদারি বাড়ানো হয়েছে৷ বাড়ানো হয়েছে অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা৷ জানা গেছে ভারতে শেখ হাসিনাকে হত্যা পরিকল্পনার ষড়যন্ত্রে জড়িত সন্দেহে এক ভারতীয় নারীকে গ্রেফতারের খবর পাওয়ার পর স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শীর্ষ পুলিশ এবং গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করে বিস্তারিত তথ্য জানার চেষ্টা করছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়