1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

হাসনাত ও হাসিবের খোঁজ নেই!

গুলশানের হোলি আর্টিজান রেস্টুরেন্ট থেকে উদ্ধার হওয়া হাসনাত করিম এবং তাহমিদ হাসিবের কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না বলে তাদের পরিবার দাবি করেছে৷

হাসনাত নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির সাবেক শিক্ষক এবং তাহমিদ ক্যানাডার টরোন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র৷ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এই ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে৷ তবে বাংলাদেশের পুলিশ বলছে, ‘‘উদ্ধারের পর তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে ছেড়ে দেয়া হয়েছে৷''

গত সপ্তাহে হাসনাত করিমের বাবা রেজাউল করিম সংবাদ মাধ্যমের কাছে অভিযোগ করেন, ‘‘আমার ছেলেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নেয়া হলেও পুলিশ এখন বলছে তাদের কাছে হাসনাত করিম নেই৷ তাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে৷ তবে আমরা তার কোনো খোঁজ পাচ্ছি না৷ সে বাসায়ও ফেরেনি৷''

তবে বৃহস্পতিবার রেজাউল করিমের সঙ্গে ডয়চে ভেলে'র পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘‘আমি সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে কথা বলবো না৷ কোনো স্টেটমেন্ট দেব না৷'' তিনি তাঁর ছেলেকে পেয়েছেন কিনা সেই প্রশ্নেরও জবাব দিতে রাজি হননি৷

১ জুলাই সকালে অভিযানের আগে গুলশান আর্টিজান রেস্টুরেন্ট থেকে একই পরিবারের যে চারজনকে হামলাকারীরা মুক্তি দেয়, হাসনাত করিম তাদের একজন৷ তিনি সেই পরিবারের প্রধান৷

একই সময়ে তাহমিদ হাসিবকেও আলাদাভাবে মুক্তি দেয় হামলাকারীরা৷ তাহমিদ ঢাকার আফতাব বহুমূখী ফার্মস-এর এমডি ফজলে রহিম শাহরিয়ারের ছেলে৷ তাহমিদ ক্যানাডার স্থায়ী বাসিন্দা ও টরন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী৷

পুলিশ তাকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নেয়৷ এখন বলছে, তাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে৷ তবে তাহমিদের পরিবার দাবি করছে, তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না৷ তাহমিদকে খুঁজে পেতে ক্যানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর সহায়তা চেয়েছে তার পরিবার৷

অডিও শুনুন 01:19

‘গুলশানের রেস্টুরেন্ট থেকে মোট ৩১ জনকে উদ্ধার করা হয়’

তাহমিদের বাবা এখন হাসপাতালে চিকিত্‍সাধীন৷ ছেলেকে খুঁজে না পাওয়ায় তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বলে তার পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে৷ তবে এ নিয়ে পরিবারের কেউ ডয়চে ভেলের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি৷

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল জানিয়েছে, রবিবার ১০ জুলাই পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয় হাসনাত তাদের হেফাজতে নেই৷ তবে তার পরিবার জানিয়েছে, হাসনাত এখনও বাড়ি ফেরেননি৷ ২ জুলাই পরিবারসহ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে আটক করে পুলিশ৷ ৩ জুলাই তাকে ছাড়া পরিবারের সবাইকেই ছেড়ে দেওয়া হয়৷

বিবৃতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলা হয়, হাসনাত করিম কোথায়, কিভাবে আছেন কর্তৃপক্ষকে তা নিশ্চিত করে জানাতে হবে৷

অ্যামনেস্টির দক্ষিণ এশিয়া বিভাগের পরিচালক চম্পা প্যাটেল বলেছেন, ‘‘হাসনাত করিমের পরিবারকে এমনিতেই অনেক মানসিক বিপর্যয় সইতে হয়েছে৷ তাকে এখনও আটক রাখা হয়েছে কিনা, তা অবশ্যই তার পরিবারকে জানাতে হবে৷ তার সঙ্গে পরিবারকে কথা বলতে দিতে হবে৷''

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ডেপুটি কমিশনার (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘গুলশানের রেস্টুরেন্ট থেকে মোট ৩১ জনকে উদ্ধার করা হয়৷ তাদের সবাইকে গোয়েন্দা দপ্তরে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের পর ছেড়ে দেয়া হয়েছে৷ তারা কেউ এখন আর পুলিশের হেফাজতে নাই৷ হাসনাত করিম এবং তাহমিদকেও ছেড়ে দেয়া হয়েছে৷''

তিনি আরও দাবি করেন, ‘‘তাদের যে এখন খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না এমন কোনো অভিযোগ তাদের পরিবারে পক্ষ থেকে পুলিশের কাছে করা হয়নি৷ অভিযোগ করা হলে পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে৷''

পুলিশের ডেপুটি কমিশনার আরো বলেন, ‘‘৩১ জনকে এই শর্তে ছাড়া হয়েছে যে তাদের জিজ্ঞাসাবাদের প্রয়োজন হলে তারা আবার হাজির হবেন৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়