1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মধ্যপ্রাচ্য

হারাম আল-শরিফ বা টেম্পল মাউন্ট: এক ধর্মীয় বিবাদ

অবশেষে জেরুসালেমের টেম্পল মাউন্টে ঢোকার পথ থেকে মেটাল ডিটেক্টর সরিয়ে নেয়ার পথই বেছে নিয়েছে ইসরায়েল৷ বিষয়টি নিয়ে ধর্মীয় সংঘাত নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ায় পিছু হটতে বাধ্য হলো তারা৷

বিষয়টি নিয়ে বেশ কয়েকটি সংঘর্ষের ঘটনার পর ইসরায়েলের নিরাপত্তা মন্ত্রণালয় মঙ্গলবার জেরুসালেমের এই পবিত্র স্থানে প্রবেশদ্বারে মেটাল ডিটেক্টর সরিয়ে ফেলার সিদ্ধান্ত নেয়৷ দেশটির প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহুর অফিস থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, মেটাল ডিটেক্টরের বদলে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আরো উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে৷

কিন্তু কখন এই মেটাল ডিটেক্টর সরছে এবং এর বদলে কী প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে, তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি৷ স্থানীয় গণমাধ্যমের প্রকাশ যে, মুখ চিনতে পারে এমন ক্যামেরা ব্যবহার করা হতে পারে, মুসলিম ও খ্রিষ্টান উভয় সম্প্রদায়ের কাছেই পবিত্র বলে পরিচিত এই হারাম আল-শরিফ বা টেম্পল মাউন্টে প্রবেশের সময়৷

Westjordanland Ausschreitungen

পশ্চিম তীরের একটি চেকপয়েন্টের কাছে প্যালেস্টাইনের প্রতিবাদকারীরা টায়ার জ্বালিয়ে দেন

আপাতত মনে করা হচ্ছে, যদি মেটাল ডিটেক্টর উঠিয়ে নেয়া হয়, তাহলে উত্তেজনা প্রশমিত হবে৷ তবে স্পষ্টতই এ নিয়ে দ্বিমুখী চাপে পড়েছে ইসরায়েলের প্রশাসন৷

একদিকে, প্যালেস্টাইনবাসী এই ডিটেক্টরের মধ্য দিয়ে পবিত্র স্থানে যেতে নারাজ৷ অন্যদিকে, দেশটির ভেতরে সরকারের এই ‘নতজানু' অবস্থানের সমালোচনা চলছে৷ ইসরায়েলি পত্রিকা হারেৎস-এ আলোচিত সাংবাদিক জুডি মল্জ লিখেছেন যে, মেটাল ডিটেক্টর সরিয়ে নেয়া মানে শুধু প্যালেস্টাইনের চাপের কাছেই নতি স্বীকার করা নয়, বরং সন্ত্রাসের কাছে নতজানু হওয়া৷

বিষয়টি নিয়ে ধর্মীয় ও রাজনৈতিক উস্কানির অভিযোগ উঠেছে৷ প্যালেস্টাইনের পত্রিকা আল-কুদসের মতে, ১৯৪৮ সালে যখন ইসরায়েল গঠিত হয়, তখন থেকেই আল-আকসা মসজিদকে ‘ইহুদীকরণ'-এর চক্রান্ত চলছিল৷ এতদিন পর তারা সেই প্রক্রিয়াই শুরু করেছে৷ অন্যদিকে, ইসরায়েলের এক সাংবাদিক টেম্পল মাউন্টে ইসরায়েলি পুলিশ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে দেশটির এক মুসলিম নেতার যোগ আছে বলে অভিযোগ করেছেন৷

ভিডিও দেখুন 00:44

তবে এ বিষয়টিকে অনেকেই পুরোপুরি ‘রাজনৈতিক' বলে ব্যাখ্যা দিয়েছেন৷ ইসরায়েলের নিরাপত্তা মন্ত্রী গিলাড এরডান রেডিওতে বলেছেন যে, এর সঙ্গে ধর্মের কোনো যোগ নেই৷ টেম্পল মাউন্টে যেসব ঘটনা ঘটেছে, সেগুলো ঠেকাতে এই মেটাল ডিটেক্টর বসানোর বিকল্প ছিল না বলে মনে করেন তিনি৷

অন্যদিকে, প্যালেস্টাইনের রামাল্লা থেকে প্রকাশিত হওয়া পত্রিকা আল-আইয়ামও মনে করছে যে, এই সংকট একেবারেই ধর্মীয় নয়৷ বরং ইসরায়েল ঘটনাটিকে ‘ধর্মীয় রং' দিয়ে সারা বিশ্বকে দেখাচ্ছে৷ এই সংকটের রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণটিকে পাশ কাটিয়ে গেলে তা প্যালেস্টাইনদের সার্বভোমত্ব, স্বাধীনতা ও নিজস্ব রাষ্ট্র গঠনের অধিকারকে পাশ কাটিয়ে যাওয়া হয় বলে মনে করে পত্রিকাটি৷

এদিকে, আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও এ ঘটনাটি ব্যাপক আলোচিত হচ্ছে৷ আরব লিগের চেয়ারম্যান আহমেদ আবদুল ঘাইত ইসরায়েল ‘আগুন' নিয়ে খেলছে বলে অভিযোগ করেছেন৷ তুর্কি প্রেসিডেন্ট এর্দোয়ান মেটাল ডিটেক্টর বসিয়ে ইসরায়েল মুসলিম বিশ্বকে অপমান করেছে বলে মন্তব্য করেছেন৷

ক্যার্সটেন ক্নিপ/জেডএ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়