1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

হামবুর্গে হামলার পর বিপজ্জনক শরণার্থীদের বহিষ্কারের দাবি

জার্মানির হামবুর্গ শহরে শুক্রবার এক হামলার পর কট্টর ইসলামপন্থি ও ‘বিপজ্জনক' রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থীদের বহিষ্কার বা আটক করার জন্য চাপ বাড়ছে৷ তাদের অবাধ বিচরণ অবিলম্বে বন্ধ করার দাবি উঠছে৷

শুক্রবার দুপুরে হামবুর্গ শহরে এক সুপারমার্কেটে এক আততায়ী নির্বিচারে আশেপাশের মানুষের উপর ছুরি হামলা চালিয়েছে৷ সম্ভবত সেখানেই সে ছুরিটি চুরি করে স্বতঃস্ফূর্তভাবে হামলা চালিয়েছে৷ তার ছুরির আঘাতে এক ব্যক্তি নিহত ও সাতজন আহত হয়েছে৷ পুলিশ তাকে আটক করেছে৷ সংযুক্ত আরব আমিরাতে জন্মগ্রহণ করা ফিলিস্তিনি ব্যক্তি ২০১৫ সালে শরণার্থী হিসেবে জার্মানিতে এসেছিল৷ তার আগে সে নরওয়ে, সুইডেন ও স্পেনে গিয়েছিল বলে জানা গেছে৷ ২৬ বছর বয়সি আততায়ী যে উগ্র ইসলামি ভাবধারায় উদ্বুদ্ধ, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের তা অজানা ছিল না৷ কিন্তু সেই ব্যক্তিকে বিপজ্জনক হিসেবে চিহ্নিত করার কোনো কারণ দেখেন নি কর্মকর্তারা৷ আততায়ীর উদ্দেশ্য ও প্রেক্ষাপট নিয়ে পুলিশ এখনো তদন্ত চালাচ্ছে৷ তার মানসিক সমস্যা ছিল, এমন ইঙ্গিতও পাওয়া গেছে৷

জার্মানিতে কোনো হামলার নেপথ্যে রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী জড়িত থাকলে সেই অপরাধকে ঘিরে বাড়তি আগ্রহের সৃষ্টি হয়৷ বিশেষ করে সেই আশ্রয়প্রার্থীর আবেদন খারিজ হওয়ার পরেও তাকে কেন জার্মানি থেকে বহিষ্কার করা হয়নি বা যায়নি, এই প্রশ্ন বার বার উঠতে থাকে৷ গত বছর ডিসেম্বর মাসে বার্লিনে সন্ত্রাসী হামলার পর এমন আশ্রয়পার্থীদের প্রত্যর্পণের ক্ষেত্রে বাড়তি তৎপরতা দেখা যাচ্ছে৷ তবে হামবুর্গ শহরে সপ্তাহান্তে হামলার পর বিষয়টি নিয়ে আবার বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে৷

হামবুর্গের কর্তৃপক্ষ এমন মর্মান্তিক ঘটনা প্রতিরোধ করতে পারতো কিনা, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে৷ নগর রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, এবার পরীক্ষা করে দেখতে হবে, যে কর্তৃপক্ষ আততায়ী সম্পর্কে সব তথ্য ঠিকমতো বিশ্লেষণ করে বিপদের আশঙ্কার সঠিক মূল্যায়ন করেছিল কিনা৷ রক্ষণশীল মহলের রাজনীতিকদের মতে, কট্টর ইসলামপন্থি হিসেবে চিহ্নিত হবার পর এমন রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থীদের অবাধ বিচরণ অবিলম্বে বন্ধ করা উচিত৷ তাছাড়া যে সব দেশ তাদের নাগরিকদের ফিরিয়ে নিতে সহযোগিতা করছে না, তাদের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক চাপ বাড়ানো উচিত৷ তাছাড়া জার্মানির ফেডারেল কাঠামোর কারণে যে আমলাতান্ত্রিক জটিলতা রয়েছে, তার ফলেও এমন আশ্রয়প্রার্থীদের স্বদেশে ফেরাতে সমস্যা দেখা দেয় বলে সমালোচকরা মনে করছেন৷ এই দায়িত্ব পুরোপুরি ফেডারেল সরকারের হাতে তুলে দেবার জন্যও চাপ বাড়ছে৷ তবে প্রত্যর্পণ সংক্রান্ত বর্তমান নীতির ফলে অনেক আশ্রয়প্রার্থীর জীবন বিপন্ন হয়ে উঠছে বলেও অভিযোগ উঠছে৷

শনিবারই জার্মানিতে নতুন এক আইন কার্যকর করা হয়েছে, যার আওতায় আবেদন নাকচ হলে ‘বিপজ্জনক' হিসেবে চিহ্নিত আশ্রয়প্রার্থীদের অনেক সহজে আটক রাখা সম্ভব হবে অথবা তাদের উপর নজরদারি চালানো যাবে৷ তাছাড়া তাদের পায়ে ইলেকট্রনিক বেড়ি পরিয়ে রাখা যাবে, যাতে তাদের গতিবিধির উপর নজর রাখা সম্ভব হবে৷ 

 এসবি/ডিজি (ডিপিএ, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়