1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

হাতের লেখা যখন ব্যবসা হয়ে ওঠে

আমাদের মধ্যে অনেককেই স্কুলে থাকতে সুন্দর হাতের লেখা প্র্যাকটিস করতে হতো৷ আজকাল কম্পিউটারের যুগে কে আর হাতে লেখে! কিন্তু হাতের লেখার কদর যে কমার বদলে বাড়ছে এবং এ নিয়ে যে ব্যবসাও করা যায়, তা জানতেন কি?

অন্যের নির্দেশে লেখা প্রেমপত্র৷ ফাউন্টেন পেন বা ফেল্ট পেন দিয়ে কাগজে লেখা৷ বার্লিনের এক সংস্থা লুপ্তপ্রায় এই সাংস্কৃতিক ধারা বাঁচিয়ে রেখেছে৷ বলছি সুন্দর হাতের লেখার কথা৷ এমন ‘লেখক'-দের একজন আঙ্গেলিকা ভল্ফ৷ তিনি বলেন, ‘‘এটা ব্যক্তিগত অভিব্যক্তি, অনেকটা নিজস্ব কণ্ঠের মতো, অত্যন্ত ব্যক্তিগত ও নিজস্ব৷'' তাঁর সহকর্মী লোরে বিয়র্কনার-এর মতে, ‘‘এতে অনেক আনন্দ পাওয়া যায়৷ কম্পিউটার জগতের তুলনায় অনেক বেশি ব্যক্তিগত৷''

৬০ জনেরও বেশি ‘পেনম্যান' বা সুন্দর হাতের লেখা বিশেষজ্ঞ এই সংস্থায় কাজ করেন৷ বেশিরভাগই নারী৷ অনেকেরই কোনো প্রথাগত প্রশিক্ষণ নেই, আছে শুধু প্রতিভা৷ প্রতি দিন দু'হাজারেরও বেশি চিঠি, আমন্ত্রণপত্র বা টেবিলের ‘প্লেস কার্ড' লেখা হয় এখানে৷ বছর দেড়েক আগে সংস্থাটি কাজ শুরু করেছে৷ সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা টরস্টেন পেৎসল্ড বলেন, ‘‘আজকাল কে আর হাতে লেখে! আমি নিজেই তো তার দৃষ্টান্ত ছিলাম৷ কখনো চিরকুটে হয়ত কয়েক লাইন লিখতাম৷ কিংবা বেড়াতে গিয়ে পোস্টকার্ড৷ এর চেয়ে বেশি আবেগ আর আসতো না৷ কিন্তু সুন্দর হাতের লেখায় চিঠি? আজকের দিনে ধীরে-সুস্থে হাতে লেখার চল আর নেই বললেই চলে৷''

ভ্যালেন্টাইনস ডে কার্ড অথবা প্রাচীন জার্মান হরফে লেখা অভিনন্দন বার্তা৷ সুন্দর ক্যালিগ্রাফি অথবা হাতে লেখা ‘অফিশিয়াল' চিঠি৷ এমন পরিষেবার চাহিদা বাড়ছে৷ এর অন্যতম কারণ – ছাপার অক্ষরে লেখা চিঠির তুলনায় হাতে লেখা চিঠির মূল্য বা গুরুত্ব অনেক বেশি৷ টরস্টেন বলেন, ‘‘আজকাল ব্যক্তিগত চিঠি লেখার চল আর নেই৷

খুব ঘনিষ্ঠ বন্ধু অথবা এমন কাউকে লেখা হয়, যার জন্য অনেক সময় নেওয়া যায়৷ সেও তখন বোঝে, কেউ তার প্রতি আগ্রহী, তার জন্য সময় রয়েছে৷ সে তখন খাম খুলে মন দিয়ে সেই চিঠি পড়ে৷''

কিছু হাতের লেখা অত্যন্ত মূল্যবান৷ যেমন জার্মান লেখক হাইনরিশ ফন ক্লাইস্টের৷ কিন্তু কলম ধরেছেন মিরিয়াম সাক্স৷ তিনি হাতের লেখা নকল করার বিশেষজ্ঞ৷ এই প্রেরণা এসেছে বিখ্যাত লেখকদের কাছ থেকে৷ তবে আত্মীয়-স্বজনের হাতের লেখাও কপি করেছেন তিনি৷ ক্যালিগ্রাফি শিল্পী মিরিয়াম সাক্স বলেন, ‘‘ছোটবেলা থেকেই আমার এ বিষয়ে আগ্রহ রয়েছে৷ এক জার্মান শিক্ষিকা ছিলেন, যাঁর হাতের লেখা ছিল মুক্তোর মতো৷ এখন বুঝি, তিনি মহাকবি গ্যোটের বড় ভক্ত ছিলেন, নিজেকে কিছুটা তাঁর মতো করে গড়ে তুলেছিলেন৷ শিক্ষিকা হিসেবে আমি তাঁর খুবই অনুরাগী ছিলাম৷ গোপনে আমিও সেই হাতের লেখা নকল করতাম৷ কিন্তু এ যেন লুকিয়ে অন্যের মধ্যে প্রবেশ করা৷''

অভিনেতা ও নাটক পরিচালক হিসেবেও মিরিয়াম তাঁর হাতের লেখা কাজে লাগান৷ যেমন ক্লাইস্টের এই নাটকে৷ চলচ্চিত্র-শিল্প ও মিউজিয়াম থেকেও বায়না আসে৷ নকল করার এই প্রতিভাকে তিনি পেশাদারী রূপ দিয়েছেন৷ নতুন পরিষেবার নাম – মহাকবি ইয়োহান ভল্ফগাং ফন গ্যোটের হাতের লেখা৷

মিরিয়াম ইতিমধ্যে আরেক লেখক ফ্রানৎস কাফকার বাঁকানো হাতের লেখাও ভালোই রপ্ত করেছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘‘টি' অক্ষরটি মোটা ও বলিষ্ঠ৷ তিনি যেন শব্দটি লেখার পর সেটিকে আবার হত্যা করছেন৷''

কাফকার তুলনায় অনেক সুন্দর হলো নিকোলা উশনির-এর কারুকার্যর মতো অক্ষর৷ ক্যালিগ্রাফি জগতে ফরাসি এই বিশেষজ্ঞ তারকার মর্যাদা পেয়েছেন৷ গত ১১ বছর ধরে তিনি বড় বড় ফ্যাশন কোম্পানির জন্য আমন্ত্রণপত্র লিখছেন৷ সেই লক্ষ্যে তিনি নতুন হরফেরও উদ্ভাবন করে চলেছেন৷

শুধু তাই নয়, নিজের লেখার শৈলিকে একটি ফ্যাশন ‘ব্র্যান্ড' হিসেবেও বাজারে এনেছেন তিনি৷ ক্যালিগ্রাফি শিল্পী নিকোলা উশনির বলেন, ‘‘বল পেন ও ভালো ফাউন্টেন পেনের মধ্যে একটি বাছতে হলে দ্বিতীয়টি বেছে নেওয়াই ভালো বলে আমি মনে করি৷ কারণ তখন আপনি বেশ কসরত করে লিখতে বাধ্য হবেন, শব্দগুলি ভালো করে ভেবে দেখবেন৷ মনে রাখতে হবে যে, কালির টান তো থেকেই যায়৷''

টর্স্টেন পেৎসল্ড-এর সংস্থাও এর মধ্যে এত সাফল্য পেয়েছে, যে পরিষেবার সম্প্রসারণ করতে হয়েছে৷ ২০১৩ সালে তিনি ‘সুন্দর চিঠি' নামের এক অনলাইন দোকান খুলেছেন৷ সেখানে সাধারণ ক্রেতারা ১৭ ইউরো ব্যয় করে একটা আস্ত হাতে লেখা চিঠি অর্ডার করতে পারেন৷ পোস্ট কার্ড লেখানোর খরচ ৮ ইউরো থেকে শুরু৷ নিজের হাতে লিখতে না পারলেও বিষয়বস্তু যেন হৃদয় থেকে আসে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়