1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানিতে উচ্চশিক্ষা

হাউপ্টশুলে থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর

জার্মানিতে বিদেশি বংশোদ্ভূত প্রফেসর বা অধ্যাপকের সংখ্যা আগের চেয়ে বৃদ্ধি পেয়েছে৷ অবশ্য অভিবাসীদের পক্ষে প্রফেসরের পদটি হাতে পাওয়া তেমন সহজ নয়৷ তুর্কি বংশোদ্ভূত আহমেত টোপ্রাক-এর পক্ষেও এই পথটি মসৃণ ছিল না৷

কিছুদিন আগে রেডিওতে আহমেত ট্রোপাকের ইন্টারভিউ শুনে এক মহিলা রেডিও স্টেশনে ফোন করে তাঁর সঙ্গে কথা বলতে চান৷ কেন না, তাঁর সন্দেহ হচ্ছিল ব্যক্তিটি আহমেত ট্রোপাক কিনা৷ এই মহিলা হাউপ্টশুলেতে তাঁর শিক্ষিকা ছিলেন৷ সাধারণত অপেক্ষাকৃত পিছিয়ে পড়া ছেলে-মেয়েরাই পড়াশোনা করে হাউপ্টশুলেতে৷

সিস্টেমে ভুল'

আহমেত তাঁর প্রাক্তন ক্লাস টিচারকে চিনতে পারেন, স্মরণ করতে পারেন তাঁর নামটাও৷ কিন্তু শিক্ষিকার সন্দেহ যায় না৷ তিনি বলেন, হয়ত সিস্টেমে ভুল হয়েছে৷

আজ সেই ‘সিস্টেমের ভুলই' ডর্টমুন্ড ইউনিভার্সিটির প্রফেসর৷ যিনি নিজের অফিসে বসে দৃষ্টি ছড়িয়ে দিতে পারেন ক্যাম্পাসে৷ দীর্ঘ সাত বছর ধরে শিক্ষাবিজ্ঞানের অধ্যাপক হিসাবে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কাজ করছেন তিনি৷

আহমেত টোপ্রাকের বয়স ৪৩৷ তুলনামূলক কম বয়সি৷ অবশ্য বিদেশি বংশোদ্ভূত প্রায় ৫০০০ প্রফেসরের গড় বয়স এটা৷ একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে বিদেশি বংশোদ্ভূত অধ্যাপকদের বয়স ৪০ থেকে ৫৫-এর মধ্যে৷ গণিত ও বিজ্ঞানেই তাঁদের হার বেশি৷ এক পঞ্চমাংশ ভাষা ও সংস্কৃতি বিষয়ে কর্মরত৷

প্রফেসর হতে হলে অভিবাসী আবেদনকারীদের অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়৷ ‘‘আমাদের সমীক্ষায় এই প্রথম এই বিষয়ে বিদেশি বংশোদ্ভূতদের নিয়ে জরিপ চালিয়েছি৷'' বলেন সমীক্ষার পরিচালক আইলা নয়সেল৷

নিজেও ভাবতে পারেননি

আহমেত নিজেও ভাবতে পারেননি যে, একদিন প্রফেসর হবেন৷ তুরস্ক থেকে ১০ বছর বয়সে এক ভাইয়ের সঙ্গে জার্মানির কোলন শহরে পা রাখেন আহমেত৷ বাবা-মা ও আরো চার ভাই বোন আগে থেকেই জার্মানিতে ছিলেন৷

অন্যান্য অতিথি শ্রমিকের সন্তানদের মতো যথারীতি হাউপ্টশুলেতে ভর্তি হন আহমেত৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘সেখানে কিছুটা জার্মান ভাষা শেখা হয়, কিন্তু আসল লক্ষ্য হলো এক সময় যার যার দেশে ফিরে যাওয়া৷'' আহমেতের ক্ষেত্রে তা হলো তুরস্কে৷

স্কুল শেষ করে শিক্ষানবিশের কাজ করার সুযোগ পান ফোর্ড-কারখানায়৷ যেখানে বাবাও কাজ করতেন৷ কিন্তু আহমেত তা প্রত্যাখ্যান করেন৷ এর পরিবর্তে ১৫ বছরের এই কিশোর তুরস্কে ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন৷ সেখানে গিমনাসিয়ুম বা হাইস্কুলে ভর্তি হন৷ পাশ করেন আবিট্যুর৷ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন৷ যে সময় পাশের হার ছিল মাত্র ১৮ শতাংশ৷

আঙ্কারায় ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্য নিয়ে পড়াশোনা শুরু করেন এই উদ্যোগী তরুণ৷ কিন্তু এক সেমিস্টার পর মা-বাবার কাছে জার্মানিতে চলে আসেন আবার৷ প্রথমে বন ইউনিভার্সিটিতে যাত্রা শুরু হয়৷ তারপর রেগেন্সবুর্গে শিক্ষাবিজ্ঞান ও মনস্তত্ত্ব নিয়ে পড়াশোনা শেষ করেন৷ এরপর ওপরে ওঠা আর থেমে থাকেনি৷ শেষ করেন ডক্টরেট৷ তারপর ১০৯ জন আবেদনকারীকে পেছনে ফেলে পেয়ে যান প্রফেসরের পদ৷

সমাজকর্মী হিসাবে যাত্রা শুরু

অ্যাকাডেমিক ক্যারিয়ার গড়ার চিন্তাটা সে সময় তাঁর মাথায় ছিল না৷ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা শেষে প্রথমে সমাজকর্মী হিসাবে কাজ করেন আহমেত৷ এই সময় হামবুর্গের এক প্রফেসরের সঙ্গে পরিচয় হয় তাঁর৷ তিনি তাঁকে ডক্টরেট করার পরামর্শ দেন৷

প্রফেসর আহমেত ট্রোপাক নিজের দ্বিধাদ্বন্দ্ব ও সংশয় সম্পর্কে খোলাখুলি কথা বলেন৷ আজ ফাতমার মতো অন্যান্য অভিবাসী ছেলে-মেয়েদের আদর্শ তিনি৷ তুর্কি মা বাবার সন্তান ফাতমা৷ মা গৃহবধূ, বাবা শ্রমিক৷ ‘সোশ্যাল ওয়ার্কে' পড়াশোনা করছেন এই তরুণী৷ ব্যাচেলরের থিসিস প্রফেসর ট্রোপাকের কাছেই করতে চান তিনি৷

‘‘আমার বিশ্বাস যে কোনো ছোটখাট ব্যাপারেই তাঁর কাছে ছুটতে পারবো৷ অন্যান্য প্রফেসরের চেয়ে তাঁর কাছে যেতে সাহসও পাবো'', জানান এই ছাত্রী৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন