1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

হংকং বিক্ষোভের আগুনে ঘি ঢালছে নতুন অ্যাপ

হংকং এর এই বিক্ষোভকে অবৈধ বলে ঘোষণা করেছে চীন৷ মঙ্গলবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জানান, হংকং সরকার বিক্ষোভ দমনে যে পদক্ষেপ নিচ্ছে তাকে স্বাগত জানিয়েছেন তাঁরা৷ তবে হংকং এ বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে৷

পূর্ণ গণতান্ত্রিক নির্বাচনের দাবিতে শুক্রবার থেকে হংকং-এ যে বিক্ষোভ চলছে মঙ্গলবার তা পঞ্চম দিনে গড়ালো৷ হংকং-এর সিটি সেন্টারে বিক্ষোভকারীদের সাথে পুলিশের দফায় দফায় সংঘর্ষ হচ্ছে৷ ঘটেছে গ্রেফতারে আর দফায় দফায় টিয়ার শেল ছোড়ার ঘটনাও৷ তবে, গ্রেফতার ও পুলিশের হামলা উপেক্ষা করেও এই প্রতিবাদ চালিয়ে যাবার ঘোষণা দিয়েছে আন্দোলনকারীরা৷

অন্যদিকে হংকং সরকার জানিয়েছে, ২০১৭ সালের নির্বাচন যেভাবে করার পরিকল্পনা করা হয়েছে ঠিক সেভাবেই সেই নির্বাচন হবে৷

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিক্ষোভ

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিক্ষোভের আগুন ছড়িয়ে পড়েছে৷ তবে নেটওয়ার্কের সমস্যার কারণে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে যোগাযোগের সমস্যায় পড়েছেন বিক্ষোভকারীরা৷

চীনের বাইডু ইঙ্ক সার্চ ইঞ্জিন এবং টুইটারের মত ওয়াইবো ক্রপ মাইক্রোব্লগ হংকং বিক্ষোভের সব খবর ডিলিট করে ফেলছে৷ এমনকি সবচেয়ে জনপ্রিয় মেসেজ অ্যাপ উইচ্যাটও সরিয়ে ফেলা হয়েছে৷

হংকং পলিটেকনিক বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী অস্কার জানালেন, ‘‘আমরা ফেসবুক এবং হোয়াটসঅ্যাপের সাহায্যে বিক্ষোভকারীদের সাথে যোগাযোগ করছি, যা সবচেয়ে নিরাপদ মাধ্যম বলে মনে হচ্ছে৷ এটা আসলে নির্ভর করছে তুমি কী ধরনের ফোন ব্যবহার কর৷ কেননা চীনা কোম্পানির ফোনগুলোতে এই সমস্যা রয়েছে যে তারা এ ধরনের অ্যাপ ও মেসেজ ডিলিট করতে পারে৷''

Hongkong Proteste 01.09.2014

আইনজীবীরাও নির্বাচনের দাবি নিয়ে রাস্তায়

বিক্ষোভে নতুন অ্যাপ

তবে এই আন্দোলনে সবচেয়ে জনপ্রিয় হয়েছে ফায়ার চ্যাট৷ ব্লু টুথের সাহায্যে একে অপরের সাথে খুব সহজেই যোগাযোগ করা যাচ্ছে এই মেসেজিং অ্যাপের মাধ্যমে৷ সোমবার থেকে হংকং এর সবচেয়ে বেশি ডাউনলোড করা হয়েছে এই অ্যাপটি৷ এই ডিভাইসের রেঞ্জ ৪০ থেকে ৭০ মিটার৷ অর্থাৎ ৪০ থেকে ৭০ মিটার দূরত্বে থাকা ব্যক্তির সাথে এই অ্যাপের সাহায্যে যোগাযোগ করা যাবে৷ গত ২৪ ঘণ্টায় হংকং এর ১ লাখ মানুষ ফায়ার চ্যাট ডাউনলোড করেছে৷

বিক্ষোভের শুরু

হংকং হচ্ছে চীনের একটি বিশেষ প্রশাসনিক অঞ্চল৷ হংকংয়ের প্রধান নেতা নির্বাচনের ক্ষেত্রেও চীন পছন্দসই প্রার্থী-তালিকা অনুমোদন করে দিতে পারে৷ বিক্ষোভকারীরা বলছে, আগামী ২০১৭ সালে হংকং-এ যে নির্বাচন হবে তা হতে হবে পুরোপুরি গণতান্ত্রিক একটি নির্বাচন৷ অর্থাৎ প্রার্থী তালিকার উপর বেইজিং-এর কোনো নিয়ন্ত্রণ থাকলে চলবে না৷ কিন্তু ক'দিন আগেই চীন সেই দাবি নাকচ করে দেয়ার পর থেকেই হংকং-এ দানা বাঁধে বিক্ষোভ৷ হংকংয়ে গণতন্ত্রপন্থি বিক্ষোভকারীরা পুলিশের লাঠিপেটা ও কাঁদানে গ্যাস উপেক্ষা করে রাজপথে অবস্থান নিয়েছে৷ অচল হয়ে পড়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থা, ব্যবসা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান৷

চীনের জাতীয় দিবসের দিন ১লা অক্টোবরে বিক্ষোভ আরো জোরদার হবে বলে মনে করা হচ্ছে৷ চীনের বিশেষ প্রশাসনিক অঞ্চল হংকং-এ ২০১৭ সালে পুরোপুরি গণতান্ত্রিক একটি নির্বাচনের দাবি কর্তৃপক্ষ নাকচ করে দিলে চলতি মাসের শুরুতে এ বিক্ষোভের পট প্রস্তুত হয়৷

এপিবি/এসবি (এপি, এএফপি, ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়