1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

‘স্মার্ট টেনিস ব়্যাকেট’ আসতে চলেছে

স্মার্টফোনে অভ্যস্ত মানুষেরা আশ্চর্য হবেন না, শীঘ্রই নাকি রোলাঁ গ্যারো আর উইম্বলডনে নামি-দামি টেনিস খেলোয়াড়দের স্মার্ট ব়্যাকেট হাতে নিয়ে কোর্টে নামতে দেখা যাবে, জানিয়েছেন এর উদ্ভাবক স্বয়ং৷

ফরাসি কোম্পানিটির সিইও হলেন এরিক বাবোলা৷ এই ‘‘কনেক্টেড ব়্যাকেট''-গুলোয় সেন্সর লাগানো থাকে, যা দিয়ে প্লেয়ারদের ফোরহ্যান্ড, ব্যাকহ্যান্ড ইত্যাদি ছাড়াও অন্য নানারকমের ফিডব্যাক পাওয়া যায়৷ দশ বছর ধরে এই স্মার্ট ব়্যাকেটগুলো নিয়ে কাজ চলেছে৷ এতদিনে তাদের টুর্নামেন্টে আত্মপ্রকাশ করার সময় এসেছে৷

বাবোলা-র সঙ্গে রয়টার্সের প্রতিনিধির কথা হচ্ছিল লন্ডনে, ব্রিটেনের ন্যাশনাল টেনিস সেন্টারে৷ বহু প্লেয়ার নাকি স্মার্ট ব়্যাকেট পরীক্ষা করে দেখছেন, জানিয়েছেন বাবোলা৷ প্রতিযোগিতামূলক টেনিসে এই স্মার্ট ব়্যাকেট উদয় হতে নাকি আর মাত্র কয়েক মাসও নয়, কিছু দিন৷

এ বছরের সূচনাতেই ইন্টারন্যাশনাল টেনিস ফেডারেশন (আইটিএফ) স্মার্ট ব়্যাকেটের ব্যবহারকে বৈধ বলে ঘোষণা করে৷ স্মার্ট ব়্যাকেটের প্রযুক্তিকে বিধিসম্মত করার জন্য একটি নতুন রুলও চালু করা হয়৷ বাবোলা-র স্মার্ট ব়্যাকেটের সেন্সরগুলি থাকে তার হাতলে৷ ‘‘এ ধরনের তথ্য আগে কখনো পাওয়া যায়নি,'' গর্ব করে বললেন বাবোলা৷

‘‘তথ্য আসছে সরাসরি ব়্যাকেট থেকে, স্ট্রিং বেড থেকে, এবং আমাদের জানাচ্ছে, ঠিক কি ঘটছে – শুধু খেলোয়াড়ের অনুভূতি থেকে নয়৷ আমার কাছে এটা একটা অবিশ্বাস্য ব্যাপার: বিশ্বের পয়লা নম্বর টেনিস খেলোয়াড় রাফায়েল নাদাল-ও জানেন না, তাঁর ব়্যাকেটে কি ঘটছে – এক তাঁর নিজের অনুভূতি ছাড়া৷ তাঁর কাছে অন্য কোনোরকম তথ্য নেই – যা ভাবা যায় না,'' মাথা নেড়ে বললেন বাবোলা৷ ‘‘যেন কোনো ফর্মুলা ওয়ান রেসিং ড্রাইভার জানেন না, তিনি কতো স্পিডে গাড়ি চালাচ্ছে৷''

কি ধরনের তথ্য দেখাতে সক্ষম হবে এই স্মার্ট ব়্যাকেট? শটের পাওয়ার; বল ব়্যাকেটের ঠিক কোথায় লেগেছে; ক'টা স্ট্রোক নেওয়া হয়েছে; কোন স্ট্রোকে কি পরিমাণ স্পিন দেওয়া হয়েছে; মোট কতোক্ষণ খেলা হয়েছে; এক কথায় সহনশীলতা, কৌশল, সঙ্গতি, শক্তি ও বলের আদানপ্রদান সংক্রান্ত সব তথ্য৷ ব্লুটুথ-এর মাধ্যমে ব়্যাকেটের তথ্য পাঠানো হয় বিভিন্ন স্মার্টফোন ও ট্যাবলেটে, যা-তে কোচ ও প্লেয়াররা পরে সেই সব তথ্য দেখতে ও বিশ্লেষণ করতে পারেন৷

বাবোলা তাঁর স্মার্ট ব়্যাকেটের বাণিজ্যিক সম্ভাবনা সম্পর্কেও পুরোপুরি সচেতন৷ কে একজন নাকি তাঁকে এসে বলেছেন, ‘‘আমি টেনিস ভালোবাসি, আর ভালোবাসি ভিডিও গেম খেলতে৷ আপনি আমার এই দু'টি জগৎকে এক করে দিয়েছেন৷'' বাবোলা একেই বলেন, টেনিসের ‘গেমিফিকেশন'৷ দৃশ্যত টেনিস জগতের হর্তাকর্তারাও জানেন যে, টেনিস আজ – অন্যান্য সব খেলাধুলার মতোই – এন্টারটেইনমেন্ট ইনডাস্ট্রির আর একটি শাখা৷ সে হিসেবে টেনিসকে ভিডিও গেমগুলির সঙ্গেও প্রতিযোগিতায় নামতে হবে৷ স্মার্ট ব়্যাকেটের সেন্সরগুলি হল সেই অজানা কিন্তু সম্ভাবনাপূর্ণ ভবিষ্যতের পথে প্রথম পদক্ষেপ৷

পেশাদার খেলোয়াড়রা ইতিমধ্যেই সে' ভবিষ্যৎকে অনিবার্য বলে মেনে নিয়েছেন: রাফা নাদাল, লি না, স্যাম স্টোসার, জো উইলফ্রিড চঙ্গা, সকলেই বাবোলা-র স্মার্ট ব়্যাকেটের স্পন্সর৷

এসি/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন