1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

স্মার্টফোনের যুগেও ক্যালিগ্রাফির কদর বাড়ছে

কম্পিউটার ও স্মার্টফোনের যুগে হাতের লেখা প্রায় লোপ পেতে বসেছে৷ কিন্তু ব্রিটিশ এক শিল্পী ইন্টারনেট ও সোশ্যাল মিডিয়া কাজে লাগিয়ে নিজের ক্যালিগ্রাফির কাজ গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে দিচ্ছেন৷

দেখলে মনে হয় অতি সহজ৷ ইনস্টাগ্রামে ১৫ সেকেন্ডের ভিডিও ক্লিপ৷ তৈরি করেছেন সেব লেস্টার৷ অন্যদের মতো কম্পিউটারের সাহায্য না নিয়ে তিনি হাত দিয়ে অক্ষরগুলি লেখেন৷ এমন সব ক্যালিগ্রাফির ভিডিও সৃষ্টি করে ৪৩ বছর বয়স্ক এই ব্রিটিশ শিল্পী ইন্টারনেটে লক্ষ লক্ষ মানুষকে মুগ্ধ করছেন৷ লেস্টার বলেন, ‘‘কী ভাবে যে আমি সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রায় ১৩ লাখ ফলোয়ার পেয়ে গেলাম, সেটা সত্যি বিস্ময়কর৷ তবে মানুষ ‘সন্মোহনী', ‘হিপনোটিক'-এর মতো শব্দ ব্যবহার করেন৷ অনেকে ক্যালিগ্রাফি আঁকার দৃশ্য দেখতে ভালোবাসেন৷''

লন্ডনের প্রায় ৮০ কিলোমিটার দক্ষিণে লিউইস শহর৷ গ্রাফিক ডিজাইনার সেব লেস্টার এখানেই থাকেন৷ আগে লন্ডনের এক এজেন্সিতে চাকরি করতেন তিনি৷ সে সময়ে কম্পিউটারই ছিল তাঁর কাজের সাথি৷ ইন্টেল, ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ এবং এইচঅ্যান্ডএম-এর মতো কোম্পানি তাঁর খদ্দের ছিল৷

Arabische Teilnahme an der ITB 2015 (Bildergalerie)

ইন্টারনেটের মাধ্যমে অনেক এজেন্সি হাতে লেখা চিঠি পাঠানোর ব্যবস্থা করছে

বছর চারেক আগে তিনি ক্যালিগ্রাফির প্রেমে পড়ে যান৷ কম্পিউটার ছেড়ে তুলি ও কালি নিয়ে মেতে ওঠেন৷ সেব বলেন, ‘‘আসলে এটা জেন ধর্মের ধ্যান ও শান্ত ব্যায়ামের মতো৷ নির্দিষ্ট সময়সীমার চাপে কাজ হয় না৷ খুবই মানবিক ও স্বাভাবিক মনে হয়৷''

হাতের লেখার কদর ভীষণ বাড়ছে৷ ইন্টারনেটের মাধ্যমে অনেক এজেন্সি অর্থের বিনিময়ে হাতে লেখা চিঠি পাঠানোর ব্যবস্থা করছে৷ ইনস্টাগ্রামে ক্যালিগ্রাফি সংক্রান্ত পোস্ট বেড়েই চলেছে৷ সেখানে সেব লেস্টার সবচেয়ে সফল ক্যালিগ্রাফারদের অন্যতম৷ ৬ লক্ষেরও বেশি মানুষ তাঁকে ‘ফলো' করেন৷ ইউটিউবে তাঁর কিছু ভিডিও ১০ লক্ষেরও বেশিবার দেখা হয়েছে৷ এটা সত্যি সাফল্যের কাহিনি৷ কারণ বেশ কিছুকাল ধরে ক্যালিগ্রাফিকে লুপ্তপ্রায় শিল্পের পর্যায়ে ফেলা হচ্ছিল৷ সেব লেস্টার বলেন, ‘‘মজার কথা হলো, প্রযুক্তিই কিন্তু ক্যালিগ্রাফিকে ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করছে৷ সোশাল মিডিয়া অবশ্যই ক্যালিগ্রাফি সম্পর্কে আগ্রহ জাগিয়ে তুলতে সাহায্য করছে৷ নতুন মানুষের কাছে ক্যালিগ্রাফিকে পৌঁছে দিচ্ছে৷ যাঁরা আমাকে ফলো করছেন, তাঁদের মধ্যে আফ্রিকার স্কুলবাসের ড্রাইভারও আছেন৷''

সেব লেস্টার বিশ্ববিখ্যাত কোম্পানিগুলির লোগো নকল করে ইন্টারনেটে অনেকের মনোযোগ আকর্ষণ করেছিলেন৷

নকলকে হুবহু আসলের রূপ দিতে কমপক্ষে ২ দিনের প্রস্তুতি লাগে৷ লেস্টার বলেন, ‘‘এই সব লোগো মোটেই উচ্চ স্তরের শিল্প নয়৷ আসলে মজা ও মনোরঞ্জনই এর লক্ষ্য৷ লেটারফর্ম ডিজাইন সত্যি দারুণ কাজ৷ সেগুলির ঘনত্ব ও গতি দেখতে ভালো লাগে৷''

ইন্টারনেটে বিপুল সাফল্যের দৌলতে সেব লেস্টার ডিজাইনের বদলে শিল্পের প্রতি বেশি মনোযোগ দিতে পারেন৷ কালি ও কলম ছাড়াও তিনি এ কাজে কম্পিউটারেরও সাহায্য নেন৷ গোটা বিশ্বের অনেক গ্যালারি ও নিজের অনলাইন শপ-এ তাঁর কাজের নিদর্শন দেখা যায়৷ সেব লেস্টার বলেন, ‘‘কিছু জিনিস ক্যালিগ্রাফি টুল খুব ভালো করে করে, ডিজিটাল টুল যা পারে না৷ বিপরীতটাও দেখা যায়৷ আমার মতে, কিছু ক্ষেত্রে দু'ভাবেই আঁকা সম্ভব৷ তার ফলাফল খুব শক্তিশালী হয়, কারণ ক্যালিগ্রাফি আমার কাছে শক্তিশালী এক শিল্পশাখা৷''

সেব লেস্টার-এর ভক্তরা ভবিষ্যতেও নতুন নতুন ক্যালিগ্রাফি ভিডিও দেখতে পাবেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়