1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

স্বেচ্ছামৃত্যুর অধিকার নিয়ে বিতর্ক ভারতে

৩৭ বছর ধরে কোমায় থাকা অরণা শানবাগকে স্বেচ্ছামৃত্যুর অনুমতি দিতে ভারতের সুপ্রিম কোর্টে যে আর্জি জানানো হয়েছিল, শীর্ষ আদালত আজ তাঁর রায়দান স্থগিত রাখেন৷ সরকার বলেছে, বর্তমান অবস্থাতেও অরুণার বাঁচার অধিকার কেড়ে নেয়া যায়না৷

default

সুপ্রিম কোর্টের দুজন বিচারকের ডিভিশন বেঞ্চ আজ অরুণা শানবাগের স্বেচ্ছা মৃত্যুর আবেদনের ওপর রায়দান স্থগিত রেখেছেন৷ আবেদন করেছিলেন ৬৩ বছর বয়সি অরুণার শুভাকাঙ্খী এক সাংবাদিক পিঙ্কি ভিরানি৷ তাঁর যুক্তি ডাক্তারা যেহেতু অরুণার সেরে ওঠার আশা ছেড়ে দিয়েছেন, তাই জড়পিন্ড অবস্থায় তাঁকে বাঁচিয়ে রাখা জীবনের প্রতি অমর্যাদা৷ অরুণার ফুড পাইপ খুলে নেয়া হোক৷

ভারতের অ্যাটর্নি জেনারেল এর বিরোধিতা করে বলেছেন, এই অবস্থাতেও কারোর বেঁচে থাকার অধিকার কেড়ে নেয়া যায়না৷ ঐ হাসপাতালের ডাক্তার সঞ্জয় ওক বলেন, অরুণা নিজে না জানালে আমরা সেটা ঠিক করতে পারিনা৷ সসম্মানে মৃত্যুর অধিকার নামে এক এনজিও সদস্য রবীন্দ্র ডেলিয়া মনে করেন, স্বেচ্ছামৃত্যু মানে জীবন নেয়া নয়, জীবন্মৃত অবস্থা থেকে সসম্মানে মুক্তি৷ ভারতে স্বেচ্ছামৃত্যু বেআইনি যেহেতু এর সঙ্গে জড়িত নৈতিকতার প্রশ্ন৷ বিতর্কটা সেখানেই৷ ভারতের সুশীল সমাজও এবিষয়ে একমত হতে পারেনি৷ যদিও ইওরোপের কিছু কিছু দেশে স্বেচ্ছামৃত্যু স্বীকৃত৷

কে এই অরুণা ? কেন তাঁর এই করুণ পরিণতি ? ২৫ বছরের অরুণা মুম্বাই-এর কে ইএম হাসপাতালের নার্স ছিলেন যে হাসপাতালে আজ তিনি শয্যাশায়ী৷ ঐ হাসপাতালের একজন ওয়ার্ডবয় কুকুরের গলার বেল্ট দিয়ে অরুণার গলায় ফাঁস লাগিয়ে তাঁকে ধর্ষণ করে৷ গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় অরুণার মস্তিষ্কে অক্সিজেন যাওয়া বন্ধ হয়ে যায়৷ সে কোমায় চলে যায়৷ ৩৭ বছর ধরে সে এই অবস্থায় আছে৷ কথা বলতে পারেনা, দেখতে পারেনা৷ স্থবির অঙ্গপ্রত্যঙ্গ এবং ইন্দ্রিয় নিয়ে পড়ে আছে হাসপাতালের বিছানায় ৩৭ বছর৷

প্রথম দিকে তাকে মুখ দিয়ে খাওয়ানো হতো, পরে ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হবার পর অরুণার মুখ দিয়ে খাবার ক্ষমতা হারিয়ে যায়৷ এখন তাঁ কে খাওয়ানো হয় নল দিয়ে৷

প্রতিবেদন: অনিল চট্টোপাধ্যায়,নতুনদিল্লি

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়