1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

স্বল্পখরচের প্রযুক্তির সঙ্গে মিতালি ভারতের কৃষকদের

স্বল্পখরচে মোবাইল ফোন ব্যবহার করে আবহাওয়া, বাজারদর, স্বাস্থ্য ইত্যাদি বিষয়ে তথ্য পাচ্ছেন ভারতের কৃষকরা৷ এই প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে সময়, অর্থ ও জনশক্তির সাশ্রয় হচ্ছে, যা দেশটির অর্থনীতিতে বিশেষ অবদান রাখতে পারে৷

মোবাইল, ফোন, আবহাওয়া, বাজারদর, স্বাস্থ্য, ভারত

ভারতের পশ্চিমাঞ্চলের নাসিক শহরের উপকণ্ঠে আঙুরের একটি জমি৷ সঞ্জয় শেঠ তার এই জমিতে দাঁড়িয়ে মোবাইল ফোনে একটি নম্বর টিপছিলেন৷ বলছিলেন, ‘‘সঞ্জয় শেঠ বলছি৷'' ৩৬ বছর বয়সি এই আঙুর ও টমেটো চাষী স্থানীয় মারাঠি ভাষায় বলছিলেন, ‘‘আগামীকাল কি বৃষ্টি হতে পারে?'' কথা বলার ধরণ এমন যেন তাঁর কোন বন্ধুর সঙ্গে কথা বলছেন৷ ফোনের অপরপ্রান্ত থেকে বলা হলো, ২৫ মিলিমিটার বৃষ্টি হতে পারে এবং তাপমাত্রা ২৪ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডে নেমে আসতে পারে৷

ভারতের প্রতিযোগী মোবাইল ফোন মার্কেটের প্রধান ক্রেতা হিসেবে সঞ্জয়ের মতো কৃষকদের সংখ্যা দিনদিন বাড়ছে, যারা দেশটির মোবাইল ফোনের গ্রাহক সংখ্যা বাড়ার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছেন৷

ভারতে প্রতিমাসে গ্রাহক সংখ্যা ১৬ থেকে ২০ মিলিয়ন করে বাড়ছে৷ শুধু গত বছরেই দেশটির মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা মোট জনসংখ্যার শতকরা ৪৯ ভাগে এসে পৌঁছেছে৷ অনেকেই বলছেন, আগামী দু'বছরের মধ্যে ভারতে মোবাইল ফোন গ্রাহকের সংখ্যা ১ দশমিক ১ বিলিয়নে এসে দাঁড়াবে৷ কেউ কেউ এখনই একের বেশি মোবাইল ফোন ব্যবহার করছেন, যাদের চারভাগের একভাগই বাস করেন গ্রামে৷

কিন্তু যেখানে ভারতের বড় বড় শহরের মানুষরা এরইমধ্যে দ্রুতগতি সম্পন্ন ইন্টারনেটসহ তৃতীয় প্রজন্মের ফোন ব্যবহার করে, সেখানে কম দামের এইসব প্রযুক্তি গ্রামের সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করেই তৈরি করা হচ্ছে৷ এ নিয়ে মুম্বই এর অ্যাম্বিট ক্যাপিটাল'এর টেলিকম গবেষণা বিশ্লেষক অমিত আহিরে বললেন, ‘‘মোবাইল ফোন প্রতিষ্ঠানগুলো এলাকাভেদে বাজার বিবেচনা করে তাদের পণ্য সরবরাহ করছে৷''

এরই মধ্যে কৃষকদের জন্য বিশেষ কিছু প্যাকেজের ব্যবস্থা করেছে ভোডাফোন, ভারতি এয়ারটেলসহ নামিদামি ফোন কোম্পানিগুলো৷

প্রতিবেদন: জান্নাতুল ফেরদৌস

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন