1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

স্থল নিম্নচাপে পরিণত ঘূর্ণিঝড় মোরা, আসছে মৃত্যুর খবর

ঘূর্ণিঝড় মোরায় কক্সবাজার ও রাঙামাটিতে গাছচাপা পড়ে চারজন মারা গেছেন; ভোলায় আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ার পথে বৃষ্টির মধ্যে মৃত্যু হয়েছে অসুস্থ এক শিশুর৷ ক্ষয়-ক্ষতি ব্যাপক না হলেও মৃতের সংখ্যা বাড়ছে৷

ঘূর্ণিঝড়টি এখন স্থল গভীর নিম্নচাপ আকারে রাঙামাটি ও সংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে৷ এটি বৃষ্টি ঝরিয়ে ধীরে ধীরে দুর্বল হয়ে পড়তে পারে৷ চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারকে ১০ নম্বর মহাবিপদসংকেতের পরিবর্তে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে৷ মংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৮ নম্বর মহাবিপদসংকেত নামিয়ে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে৷ উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারগুলোকে আজ রাত নয়টা পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে৷

নিহতদের মধ্যে ভোলার মনপুরা উপজেলার আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ার সময় মায়ের কোলে থাকা এক বছর বয়সি এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে৷ আশ্রয়কেন্দ্রে থাকা এক বৃদ্ধা মারা গেছেন হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে৷ মনপুরার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আমানতউল্যাহ আলমগীর বলেছেন, ‘‘কলাতলীচরে আশ্রয় কেন্দ্রে খোঁজ নিয়ে জেনেছি, শিশুটি আগে থেকেই নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত ছিল৷''

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ছয় জেলায়  ৩ লাখ ১৭ হাজারের বেশি লোককে রাতেই নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে৷

মঙ্গলবার ভোরে উপকূলে আঘাত হানার পর স্থলভাগে এসে কমতে শুরু করেছে প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা'র শক্তি৷ সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে ক্ষয়ক্ষতির চিত্রও স্পষ্ট হতে শুরু করেছে৷ উপকূলীয় জেলাগুলোতে ঝড়ে প্রায় ২০ হাজার কাঁচা ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন৷ চট্টগ্রামের বাঁশখালী ও সন্দ্বীপে ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত ও গাছপালা উপড়ে গেছে৷ সেন্টমার্টিন থেকেও ঘরবাড়ি ও গাছপালার ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া গেছে৷ চট্টগ্রামের আনোয়ারা, বাঁশখালীতে ছয়টি ও কক্সবাজারের মহেশখালীতে দু'টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে৷

কুতুবদিয়া, মহেশখালী ও টেকনাফের সাথে দেশের অন্যান্য অংশের সড়ক ও টেলিফোন যোগাযোগ সম্পূর্ণভাবে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে৷ ফলে সেখান থেকে ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি৷ কক্সবাজারের ঘূর্ণিঝড় নিয়ন্ত্রণকক্ষ থেকে সকালে জানানো হয়, ঘূর্ণিঝড় মোরার প্রভাবে কক্সবাজারের সেন্ট মার্টিন ও টেকনাফে ক্ষয়ক্ষতি বেশি হয়েছে৷ ঝড়ে এসব এলাকায় বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে৷ ভেঙে পড়েছে বহু গাছপালা৷ অন্যদিকে মঙ্গলবার সকাল থেকে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, খাগড়াছড়ি, রাঙামাটি ও বান্দরবানের পার্বত্য এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়েছে বলে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (দক্ষিণ) সূত্রে জানা গেছে৷ দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে চট্টগ্রাম বন্দরের সব কার্যক্রম বন্ধ রাখা হয়েছে৷

ঘণ্টায় একশ' কিলোমিটারের বেশি গতির বাতাস নিয়ে উপকূল অতিক্রম করার পর স্থলভাগে এসে কমতে শুরু করেছে প্রবল ঘূর্ণিঝড় মোরা'র শক্তি৷ তবে ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ভোর থেকে কক্সবাজার ও চট্টগ্রাম অঞ্চলে ভারি বৃষ্টির সঙ্গে যে ঝোড়ো হাওয়া চলছে, তা আরও ১২ ঘণ্টা অব্যাহত থাকতে পারে৷ আর সাগরের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে ২৪ ঘণ্টা সময় লাগতে পারে বলে আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অফিস৷

এপিবি/এসিবি (এপি, বিডিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডট কম)

 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক