1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

‘স্টার ওয়ার্স' সেট বাঁচাতে অভিনব উদ্যোগ

১৯৭৭ সালে ‘স্টার ওয়ার্স' ছবির মুক্তি কল্পবিজ্ঞান সংক্রান্ত ছায়ছবির ক্ষেত্রে বিপ্লব এনেছিল৷ আজ যখন সেই সিরিজের সপ্তম ছবি তৈরির তোড়জোড় চলছে, তখন প্রথম ছবির সেট বাঁচাতে শুরু হয়েছে উদ্যোগ৷

তখনও কম্পিউটার ঘরে-ঘরে ছড়িয়ে পড়েনি, মোবাইল ফোন তো দূরের কথা৷ অথচ চোখ ধাঁধানো ‘স্পেশাল এফেক্ট' একটা গোটা নক্ষত্রপূঞ্জের জগত রুপালি পর্দায় ফুটিয়ে তুলেছিল৷ গ্রহান্তরের আজব সব প্রাণী, বিশাল মহাকাশযান, লেজার তরবারি ও ‘জেডাই নাইটস' বীর যোদ্ধাদের কীর্তিকলাপ গোটা বিশ্বের দর্শকদের মুগ্ধ করেছিল৷

সত্তরের দশকে গ্রহান্তরের জগতের একটা অংশ গড়ে তোলা হয়েছিল টিউনিশিয়ার দক্ষিণের মরুভূমিতে৷ ছবির মূল চরিত্র লিউক স্কাইওয়াকার-এর টাটুউন গ্রহের ‘লোকেশন' ছিল সেই অঞ্চলে৷ ছবির আরও কিছু দৃশ্য তোলা হয়েছে আশেপাশের অঞ্চলে৷ পরে সিরিজের ‘ফ্যান্টম মেনেস' ছবির স্পেসপোর্ট বা মহাকাশযানের বন্দরও গড়ে তোলা হয় সেখানেই৷

Flash-Galerie Roboter

সত্তরের দশকে গ্রহান্তরের জগতের একটা অংশ গড়ে তোলা হয়েছিল টিউনিশিয়ার দক্ষিণের মরুভূমিতে

ফলে ‘স্টার ওয়ার্স' সিরিজের ভক্তদের কাছে প্রায় তীর্থস্থান হয়ে উঠেছিল সেই অঞ্চল৷ দলে দলে পর্যটকরা সেখানে গিয়ে স্বচক্ষে দেখে এসেছেন ছবির সেট৷ সরকার ও প্রশাসনও এই আকর্ষণের পূর্ণ সদ্ব্যবহার করে এসেছে৷ কিন্তু আজ সেই এলাকা বিপন্ন হয়ে উঠেছে৷ মরুভূমি গোটা অঞ্চল গ্রাস করে নিচ্ছে৷ সেটের অংশবিশেষ এরই মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে গেছে৷ প্রকৃতির এই আগ্রাসনের মোকাবিলা করতে চাই অনেক অর্থ৷ সরকার তাই সাহায্যের ডাক দিচ্ছে৷

সেই ডাকে সাড়া দিয়ে অভিনব উদ্যোগ শুরু করেছেন ‘স্টার ওয়ার্স' ফ্যানরা৷ তাঁরা সম্প্রতি রাজধানী টিউনিসের রাজপথে এক প্যারেড-এর আয়োজন করেন৷ ছবির অনেক চরিত্রের বিদঘুটে পোশাক পরে তাঁরা পথে নেমেছিলেন৷ ফ্যারেল উইলিয়ামস-এর ‘হ্যাপি' গানের ভিডিওর একটি সংস্করণও তৈরি করেছেন তাঁরা সেই পোশাক পরে৷ ইউটিউবে প্রায় ১৭ লক্ষ হিট পেয়েছে সেটি৷ আগামী ৪ঠা মে ‘স্টার ওয়ার্স ডে' ঘোষণা করা হয়েছে৷ সে দিনও ‘স্টার ওয়ার্স'-কে ঘিরে অনেক উন্মাদনার প্রত্যাশা রয়েছে৷

‘মে দ্য ফোর্স বি উইথ ইউ' – অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে শুভর জয় হোক – ‘স্টার ওয়ার্স' দর্শনের এই বেদবাক্য টিউনিশিয়ার ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হবে, এমনটাই আশা করছে সবাই৷

এসবি/ডিজি (ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন