1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভাইরাল ভিডিও

স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের ওপর মরিচের গুঁড়ো স্প্রে করা কি ঠিক?

যুক্তরাষ্ট্রের এক হাইস্কুলে ক্রিমিনাল সায়েন্স টেকনোলজি ক্লাসে প্রশিক্ষণের অংশ হিসেবে শিক্ষার্থীদের উপর পেপার, অর্থাৎ গোলমরিচের গুঁড়ো স্প্রে  করা হয়৷ সেই দৃশ্যের ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর সমালোচনার ঝড় উঠেছে৷

USA Protest gegen Polizeigewalt in St. Paul, Minnesota (Reuters/A. Bettcher)

যুক্তরাষ্ট্রে বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশে গোলমরিচের গুঁড়ো স্প্রে করছেন এক পুলিশ সদস্য

ওহাইয়োর বারবেটন হাই স্কুলে ক্রিমিনাল সায়েন্স টেকনোলজি কোর্সের অংশ হিসেবে একটি পরীক্ষায় অংশ নেন শিক্ষার্থীরা৷ সেখানে কোর্সের শিক্ষক তাদের উপর আলাদাভাবে পেপার স্প্রে বা মরিচের গুঁড়ার স্প্রে ব্যবহার করেন৷ সেই সময় সেখানে কিছু অভিভাবক এবং পুলিশও উপস্থিত ছিলেন৷ অবশ্য পরীক্ষাটি করার আগে এই স্প্রে’র ফলে শরীরে কী ধরণের প্রতিক্রিয়া হতে পারে, সে সংক্রান্ত একটি কাগজে অভিভাবকদের সই আগেই করিয়ে নিয়েছিলেন স্কুল কর্তৃপক্ষ৷

কিন্তু শোনা, দেখা আর করার মধ্যে যে ভীষণ পার্থক্য সেটা পরীক্ষার সময় টের পেলেন শিক্ষার্থীরা, পাশাপাশি অভিভাবকরাও বুঝলেন এটা যেনতেন কোনো স্প্রে নয়৷ স্প্রে দেয়ার সাথে সাথে একজন আর এক জনের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চিৎকার করতে থাকলো৷ কেউ বললো সে আর পারছে না৷ কেউ আবার বললো তার চোখ দিয়ে যেন লাভা বের হচ্ছে৷

ভিডিওটি প্রকাশ হওয়ার পর শিক্ষার্থীদের আর্তনাদ আর যন্ত্রণা দেখে অনেকেই শিক্ষক ও অভিভাবকদের সমালোচনা করেছেন৷ ১৭ ই মে ঐ ভিডিওটি প্রসঙ্গে ‘ইনসাইড এডিসন’ আর একটি ভিডিও নির্মাণ করেছে৷ তারা যে অভিভাবক ভিডিওটি করেছিলেন তাঁর ও তাঁর সন্তানের সাক্ষাৎকারসহ এই ভিডিটিও ইউটিউবে আপলোড করে৷ এখন পর্যন্ত ভিডিওটি অন্তত ৫ লাখ বার দেখা হয়েছে৷ ভিডিওটির নীচেও অনেকে মন্তব্য করেছেন৷ একজন লিখেছেন, ‘‘আমি তো ভেবেছিলাম স্কুলে শিক্ষার্থীদের শাস্তি দেয়া হচ্ছে৷ যেহেতু অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের অনুমতি নিয়ে এটা করা হয়েছে, আমি এতে ভুল কিছু দেখছি না৷’’

এপিবি/এসিবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন