1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

সৌরশক্তি যখন মুশকিল আসান

গ্রামেগঞ্জে চুল-দাড়ি কাটার ছোট সেলুন ভালো ব্যবসা হতে পারে৷ কিন্তু নির্ভরযোগ্য বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকলে যে কোনো ব্যবসা চালানো কঠিন৷ নাইজেরিয়ার এক উদ্যোগপতি এর এক অভিনব সমাধানসূত্র বার করেছেন৷

স্যামুয়েল চুকউকা-র কাজের দিন এভাবেই শুরু হয়৷ লাগোস শহরে তাঁর একটি চুল কাটার সেলুন রয়েছে৷ কিন্তু বিদ্যুৎ সরবরাহে ব্যাঘাতের ফলে তাঁকে নিজস্ব জেনারেটর চালাতে হয়৷ নাইজেরিয়ার বিদ্যুৎ কোম্পানি নেপা ঘনবসতিপূর্ণ শহর ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলিকে চাহিদা অনুযায়ী বিদ্যুৎ দিতে ব্যর্থ হচ্ছে৷ চুকউকা বলেন, ‘‘আজ এই প্রথম গ্রাহক এলেন৷ এই এলাকায় নেপা বড় চ্যালেঞ্জ৷ জেনারেটর চালাতে প্রতি সপ্তাহে আমাকে ৭ থেকে ৮ হাজার নায়রা খরচ করতে হয়৷ বিকট শব্দ, ধোঁয়া হয়৷ সরকার যদি নেপা সমস্যার সমাধান করতে পারতো...৷’’

গত দুই দশক ধরে সরকার জ্বালানি ক্ষেত্রে উন্নতির প্রতিশ্রুতি দিয়ে চলেছে৷ তা সত্ত্বেও জনসংখ্যার মাত্র অর্ধেকের কাছে বিদ্যুৎ পৌঁছেছে৷ কনসিস্টেন্ট এনার্জি লিমিটেডের সেগুন আডুজু নির্ভরযোগ্য জ্বালানি সরবরাহের একটি সমাধানসূত্র বার করেছেন৷ সোলার সেল মুশকিল আসান হতে পারে৷ তাঁর ব্যবসার মডেল হলো ‘ফেলো কড়ি মাখো তেল’৷ ছোট ও মাঝারি মাপের সংস্থাগুলি তাঁর লক্ষ্য৷ তারাই নাইজেরিয়ার গড় জাতীয় উৎপাদনের প্রায় অর্ধেকের অংশীদার৷ অতএব বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে৷ সেগুন আডুজু বলেন, ‘‘আগামী ৪ থেকে ৫ বছরের মধ্যে নাইজেরিয়ায় ১০ লক্ষেরও বেশি জেনারেটর সরিয়ে জায়গা করে নেওয়াই আমাদের লক্ষ্য৷ লাগোস থেকে সেই কাজ শুরু হচ্ছে৷ তাই আমরা নাপিত সংগঠনের সঙ্গে জোট বেঁধে তাদের সেলুনের জন্য সৌরশক্তির ব্যবস্থা করছি৷’’

এই পরিবর্তনের ফলে সেলুনগুলির যথেষ্ট লাভ হবার কথা৷ সারাক্ষণ লোডশেডিং-এর ধাক্কার ফলে পিটার ওবিনা গ্রাহকদের ধরে রাখতে হিমশিম খাচ্ছেন৷ সুযোগ লুফে নিয়ে তিনি সৌরশক্তির পথ বেছে নিয়েছেন৷ পিটার ওবিনা বলেন, ‘‘এখন আর জ্বালানি আর জেনারেটর নিয়ে ঝামেলা নেই৷ আমার গ্রাহকরাও এটা পছন্দ করছেন, কারণ বিকট শব্দ আর নেই, অনেক শান্ত পরিবেশ৷ কখনো তারা প্রশ্ন করেন – কীভাবে আলো পেলে, এখানে নেপা আছে কি? তখন আমি বলি – না শুধু সৌরশক্তি আছে৷’’

সেগুন আডাজু গোটা শহরে আরও নাপিতের কাছে গিয়ে জেনারেটর ত্যাগ করে সোলার প্যানেল বসানোর পরামর্শ দিয়ে থাকেন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমরা আপনার ছাদের উপর সোলার প্যানেল বসাই৷ কমপক্ষে দুটি ক্লিপার থাকলে আপনার ৪-৫টা আলোর বাল্ব, দুটি ফ্যান, মোবাইল ফোন চার্জের ব্যবস্থা হয়ে যায়৷ কোনো শব্দ নেই, দূষণ নেই, আপনার গ্রাহকরা খুশি হবেন৷ ভালো ব্যবসা করবেন, টাকাও বাঁচবে৷’’

তিনি স্যামুয়েল চুকউকা-কে বুঝিয়ে বললেন, যে একটি সোলার প্যানেলের আয়ু ২০ বছর পর্যন্ত হতে পারে৷ তাছাড়া আর জেনারেটর চালাতে জ্বালানি কিনতে হবে না৷ স্যামুয়েল বলেন, ‘‘আমি আসলে এই সোলার ডায়রেক্ট-এর আইডিয়া পছন্দ করছি৷ এটি নাইজেরিয়ায় নেপা নিয়ে সমস্যার সমাধান করে৷ আমি পরখ করে দেখবো৷’’

সেগুন আরও ছোট ও মাঝারি আকারের প্রতিষ্ঠানগুলির কাছে সোলার সেল বিক্রি করেন৷ গ্রাহকদের অবিলম্বে তার মূল্য দিতে হয় না৷ ১০ থেকে ১৫ ডলারের মাসিক কিস্তি মেটালেই চলে৷ সেগুন আডুজু বলেন, ‘‘সপ্তাহে তাদের মাত্র ৩ থেকে ৫ হাজার নায়রা দিলেই চলে৷ ১২ থেকে ১৮ মাসের মধ্যে সব টাকা শোধ দেবার পর আমরা তাদের হাতে মালিকানা তুলে দেই৷’’

সেগুন-এর ‘পে অ্যাজ ইউ গো সোলার’ ব্যবসা অবশ্যই রাষ্ট্রচালিত বিদ্যুৎ গ্রিডের বিকল্প হতে পারে না৷ তবে তিনি তাঁর মডেল দিয়ে লাগোস শহরে অনেক গ্রাহকের মন জয় করেছেন৷ এর মধ্যেই প্রায় ২০০ নাপিত এই কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছেন৷

বাবস/আইসেনহার্ট-রোটে/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক