1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত

সোনার থেকেও দামি সাপের বিষ

মাদকাসক্তি যাঁদের চরমে পৌঁছেছে, হেরোইন, মারিজুয়ানা বা কোকেনেও নেশাটা ঠিক জমছে না, তাঁদের মাদকে এখন মেশানো হচ্ছে সাপের বিষ৷ তাই দিনকে দিন চাহিদা বাড়ছে সাপের বিষের৷ ফেঁপে উঠছে এই বিষের অবৈধ ব্যবসাও৷

শুনতে অবিশ্বাস্য মনে হলেও কথাটা সত্যি৷ হ্যাঁ, সোনার চেয়েও সাপের বিষের দাম বেশি এখন বাজারে৷ বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো ভারতেও মাদকাসক্ত লোকের অভাব নেই৷ এদের মধ্যে কিছু লোকের মাদকাসক্তি এমন স্তরে পৌঁছেছে, যে কোকেন, হেরোইন, মারিজুয়ানা, আফিমেও নেশাটা ঠিক জমছে না৷ তাঁদের আরও কড়া নেশা দরকার৷ তাই তাঁদের মাদকে এখন মেশানো হচ্ছে সাপের বিষ৷ ফলে সাপের বিষের চাহিদা বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে৷ ফুলে ফেঁপে উঠছে ড্রাগ সিন্ডিকেটের অবৈধ ব্যবসা৷

বলা বাহুলয, সাপের বিষের ব্যবসা অসম্ভব লাভজনক৷ কোটি কোটি টাকার সাপের বিষ পাচার হচ্ছে দেশের বাইরেও৷ এ মুহূর্তে এক লিটার সাপের বিষের বাজার দাম প্রায় চার কোটি টাকা৷ ভারতে বিষ নিষ্কাশনের জন্য ধরা হয় প্রধানত চার প্রজাতির সাপ – গোখরো, রাসেল ভাইপার, পিট ভাইপার এবং শাখামুটে৷ বিষ নিষ্কাশনের পর সেই বিষ চালান করা হয় দেশে এবং বিদেশে৷ দেশে চোরা চালানকারীদের নারকটিক সিন্ডিকেটের নেটওয়ার্ক ব্যাপক৷ সরকারি নজরদার এজেন্সিও নাকের ডগায়৷ কিন্তু তাদের ধরা সম্ভব হচ্ছে না৷

তবে একেবারে ধরাও যে পড়ছে না, তা নয়৷ বিষের চোরা চালানকারীরা প্রায়ই ধরা পড়ছে বন বিভাগের জালে৷ কিন্তু তাতে চোরা ব্যবসায় ইতরবিশেষ কিছু হয়নি৷ গত মাসে বন্যজীবন অপরধ দমন ব্যুরো এবং গুজরাটের বন বিভাগ আমির খান নামে একজন চোরা চালানকারীকে গ্রেপ্তার করে৷ তার কাছে পাওয়া যায় ৮০ মিলি লিটার সাপের বিষ, যার বাজার দাম সাত-আট লাখ টাকা৷ বিহারের পুর্ণিয়ায় গ্রেপ্তার করা হয় আরো দু'জনকে৷ তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় এক বোতল সাপের বিষ৷ এতে ছিল ৯০০ গ্রাম গোখরো সাপের বিষ, যার বাজার দাম তিন কোটি টাকা৷ বোতলের গায়ে লেবেলে লেখা ছিল মেড ইন ফ্রান্স৷ জানা যায়, বাংলাদেশ থেকে চোরাপথে বিহারে ঢোকে সেই বিষ

দিল্লির রাজধানী এলাকায় সম্প্রতি ধরা পড়ে সাপের বিষের আরো কিছু চোরা চালানকারী৷ উত্তর প্রদেশ রোডওয়েজের বাসে তারা যাচ্ছিল মিরাটের দিকে৷ গোপনসূত্রে খবর পেয়ে পুলিশ তাঁদের গ্রেপ্তার করে৷ তাদের কাছে ছিল সফটড্রিঙ্কের বোতলে ৫০০ মিলি লিটার সাপের বিষ৷ শুধু তাই নয়, তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় দু-দু'টো জ্যান্ত সাপও, যা রাখা ছিল থার্মোকলের বাক্সে৷ বিষের বোতল ও বাক্সটা যে ট্রাভেল ব্যাগে ছিল, তাতে ঝুলছিল বিমান সংস্থার ট্যাগ৷ অর্থাৎ সেসব এসেছিল দেশের বাইরে থেকে৷ মিরাট হয়ে সম্ভবত তা যাচ্ছিল নেপালে৷

তবে শুধু নেপাল নয়, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের সীমান্ত দিয়ে এ সব চালান হয়ে থাকে ইউরোপীয় দেশগুলিতেও, বলেন ‘পিপলস ফর অ্যানিমেলস' নামে এক এনজিওর কর্মকর্তা সৌরভ গুপ্ত৷ সাপের বিষ দিয়ে ওষুধ কোম্পানিগুলি তৈরি করে অ্যান্টি-ভেনাম সিরাম৷ এটা সাপে কাটা মানুষের জীবনদায়ী ওষুধ৷ তাই সাপের বিষের এই অবৈধ ব্যবসার ফলে ওষুধ কোম্পানিগুলি পড়েছে নানা ধরনের সমস্যার মুখে৷ সাতপুরা ফাউন্ডেশনের এক পরিবেশবিদ বলেন, অ্যান্টি-ভেনাম ওষুধ তৈরি চাহিদা ও জোগানের মধ্যে ফারাক বাড়ছে৷ একমাত্র সরকারি হফকিন ইনস্টিটিউটই সাপের বিষ নিষ্কাশনের বৈধ সংস্থা৷ তাই এই পরিবেশবিদের মতে, এই ধরনের আরো বৈধ সংস্থা থাকা দরকার৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ওষুধের পাশাপাশি গবেষণার কাজেও ব্যবহার করা হয় সাপের বিষ, বলেন ভারতের বন্য জীবন মনিটারিং নেটওয়ার্ক সংক্ষেপে ট্রাফিক ইন্ডিয়ার পশ্চিমাঞ্চলীয় শাখার অধিকর্তা৷ এই চার প্রজাতির সাপ ধরার পর দু-তিনবার বিষ বের করে আবার সাপগুলো জঙ্গলে ছেড়ে দেয়া হয়৷ বছর দুই আগে মহারাষ্ট্র সরকার সাপের বিষের ব্যবসাকে বৈধ করতে চেয়েছিল৷ বৈধ সাপুড়েদের সাপ ধরার অনুমতি দেওয়ারও সিদ্ধান্ত নিয়েছিল তারা৷ বিষধর সাপ হামেশাই বসত অঞ্চলে ঢুকে পড়ে৷ তাই ভাবা হয়েছিল, সেইসব সাপ ধরে সাপুড়েরা বিষ বের করে বনে জঙ্গলে ছেড়ে দেবে৷ ঠিক হয়েছিল, বছরে আট হাজারের বেশি সাপের বিষ বের করা যাবে না৷ কিন্তু এই সিদ্ধান্তে খাপ্পা হন পরিবেশবিদরা৷ তাঁদের আশংকা, এতে সাপের বিষের চোরাচালান বাড়বে বই কমবে না৷ তাছাড়া সাপের বিষ ছাড়াও বাড়বে সাপের চামড়া ও অঙ্গপ্রত্যঙ্গের চোরা ব্যবসা৷

কীভাবে মাদকে মেশানো হয় সাপের বিষ? সাপের বিষ নিষ্কাশনের পর প্রথমে তা রাখা হয় খুব কম তাপমাত্রার আধারে৷ কিছুদিন পর তরল বিষ শুকিয়ে দানা বেঁধে গেলে তা গুঁড়ো করা হয়৷ তারপর তা মেশানো হয় মদ বা অন্যসব মাদকে৷ সাধারণত ১০০ লিটার মদে ১০ গ্রাম সাপের বিষের গুঁড়ো মেশানো হয়৷

বন্ধু, কেমন লাগলো প্রতিবেদনটি? জানান আমাদের, লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়