1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সাক্ষাৎকার

‘সেল্ফ সেন্সরশিপ' চর্চা করছি: মাহফুজ আনাম

সাংবাদিকতায় তাঁর অভিজ্ঞতা দীর্ঘদিনের৷ গত চব্বিশ বছর ধরে বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টারের সম্পাদক, প্রকাশক তিনি৷ বর্তমানে কি সাংবাদিকতা জীবনের সবচেয়ে কঠিন সময় পার করছেন?

মাহফুজ আনাম, ডেইলি স্টারের সম্পাদক

মাহফুজ আনাম, ডেইলি স্টারের সম্পাদক

মাহফুজ আনাম একজন মুক্তিযোদ্ধা৷ ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে নিয়োগ পাওয়াদের একজন তিনি৷ দেশ স্বাধীন হওয়ার পর চাকুরিসূত্রে বিদেশে কাটিয়েছেন বেশ কয়েকবছর৷ আর বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক সরকার ব্যবস্থা ফেরার পর ১৯৯১ সাল থেকে রয়েছেন ডেইলি স্টার পত্রিকার সঙ্গে৷ গত চব্বিশ বছর ধরে পত্রিকাটির সম্পাদক, প্রকাশক তিনি৷

ইন্টারন্যাশনাল প্রেস ইন্সটিটিউটের (আইপিআই) বিশ্ব কংগ্রেসে যোগ দিতে জার্মানির হামবুর্গ শহরে এসেছিলেন মাহফুজ আনাম৷ বাংলাদেশে সাহসী সাংবাদিকতার জন্য পরিচিত এই ব্যক্তিত্ব বৃহস্পতিবার ডয়চে ভেলের সঙ্গে ফেসবুক আড্ডায় কথা বলেছেন বিভিন্ন বিষয় নিয়ে৷ বাংলাদেশে ক্রমশ দুর্বল হয়ে যাওয়া বাকস্বাধীনতা পরিস্থিতি নিয়ে বলতে গিয়ে অকপটে স্বীকার করেছেন যে, ‘সেল্ফ সেন্সরশিপ' চর্চা করতে বাধ্য হচ্ছেন তিনি৷ পরিস্থিতি যে স্বাধীন সাংবাদিকতার অনুকূলে নয়, সেটা তাঁর বক্তব্যে স্পষ্ট উঠে এসেছে৷

গত বছরের এক টেলিভিশন টকশো-তে মাহফুজ আনাম বলেছিলেন যে, ২০০৭-২০০৮ সালে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় সেনা গোয়েন্দাদের দেওয়া বিভিন্ন তথ্য যাচাই না করেই প্রকাশ করেছিল ডেইলি স্টার পত্রিকা৷ তিনি মনে করেন যে, সেই সিদ্ধান্ত ভুল ছিল এবং সে কারণে তিনি দুঃখিত৷ আনামের এই বক্তব্যের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর কড়া সমালোচনা করেন৷ ফলশ্রুতিতে আওয়ামী লীগ সমর্থকরা বর্ষিয়ান এই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে আশিটিরও বেশি রাষ্ট্রদ্রোহ এবং মানহানির মামলা করেছিল, যেগুলোতে ক্ষতিপূরণও চাওয়া হয়েছিল কয়েক হাজার কোটি টাকা৷

সেসব মামলার বর্তমান অবস্থা জানতে চাইলে মাহফুজ আনাম বলেন যে, মামলাগুলো ‘স্ট্যাটাস কুয়োতে' রয়েছে৷ তাঁর তরফ থেকে সেগুলো বাতিলের উদ্যোগও নেয়া হচ্ছে না, সরকারের তরফ থেকে পুনরায় চালুর উদ্যোগও নেয়া হচ্ছে না৷ সব মামলাই বর্তমানে স্থগিত অবস্থায় রয়েছে৷

আইপিআই কংগ্রেসে অংশ নেয়া অন্যান্যদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে তুরস্কে বন্দি সাংবাদিকদের মুক্তি দাবি করেন মাহফুজ আনাম

আইপিআই কংগ্রেসে অংশ নেয়া অন্যান্যদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে তুরস্কে বন্দি সাংবাদিকদের মুক্তি দাবি করেন মাহফুজ আনাম

তবে এই বিষয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত বিভিন্ন প্রতিবেদন নিয়ে প্রশ্নের সুযোগ রয়েছে বলেও জানান মাহফুজ আনাম৷ সাংবাদিকদের একটা বড় অংশ আলোচিত সময়ে আনামের ভূমিকা নিয়ে অনুসন্ধানের বদলে তাঁর বক্তব্যকে ভুলভাবে উপস্থাপনের দিকে বেশি মনোযোগ দিয়েছে বলে মনে করেন বাংলাদেশের এই সম্পাদক৷ তিনি বলেন, ‘‘আমাদের দেশের সাংবাদিকরা কিন্তু রিপোর্ট করে দেখালো না আমি কতটুকু দোষী বা আমাকে হেয় করার জন্য এসব বলা হচ্ছে কিনা৷ আমার মনে হয়ে এখানে অনুসন্ধানের সুযোগ ছিলো৷'' আগামী বছর সম্পাদক, প্রকাশক হিসেবে পঁচিশ বছরে পা দেবেন মাহফুজ আনাম৷ বর্তমান সময়টা তাঁর সাংবাদিকতা জীবনের সবচেয়ে কঠিন সময় কিনা জানতে চাইলে একটু সাবধানে উত্তর দিয়েছেন তিনি৷ জানিয়েছেন, সম্পাদক হিসেবে ক্যারিয়ার শুরুর পঁচিশ বছর পর যে অবস্থা তিনি দেখতে চেয়েছিলেন বর্তমান অবস্থা সেরকম নয়৷

বলাবাহুল্য, ২০১৫ সালে সেনাবাহিনীর অভিযান নিয়ে এক প্রতিবেদন প্রকাশের পর ডেইলি স্টার এবং প্রথম আলো পত্রিকায় বিভিন্ন কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন বন্ধ হয়ে যায় বলে গণমাধ্যমে একাধিক প্রতিবেদন প্রকাশ হয়েছিল৷ একটি বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান স্বীকারও করে যে চাপের কারণে পত্রিকা দুটিতে বিজ্ঞাপন বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছে প্রতিষ্ঠানটি৷ ডয়চে ভেলের সঙ্গে ফেসবুক আড্ডায় বিজ্ঞাপন বন্ধ হয়ে যাওয়ার কথা স্বীকার করেছেন মাহফুজ আনাম৷ ডয়চে ভেলের দর্শকদের প্রশ্নের উত্তরও দিয়েছেন তিনি৷

বর্তমান সরকার প্রধান তাঁর কড়া সমালোচনা করলেও আন্তর্জাতিক অঙ্গণে, অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়ার ভূয়সী প্রশংসা করেছেন মাহফুজ আনাম৷ জানিয়েছেন, অতীতের সরকারগুলো চীন বা ভারতের প্রতি সমর্থিত বলে চিহ্নিত হলেও বর্তমান সরকার ভারত, চীনসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে সম্পর্ক রক্ষা করে চলছে যা এক ইতিবাচক ব্যাপার৷ ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে সরকারের উদ্যোগেরও প্রশংসা করেন তিনি৷ ভবিষ্যতে ডেইলি স্টার শুধুমাত্র প্রিন্ট সংস্করণের উপর নির্ভরশীল থাকবে না বলেও জানিয়েছেন তিনি৷ যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে পত্রিকাটি ক্রমশ কন্টেন্ট প্রডিউসার হিসেবে নিজেদের গড়ে তুলবে যেখানে প্রিন্ট সংস্করণ হবে কন্টেন্ট প্রকাশের একটি মাধ্যম মাত্র৷ মোবাইল, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কন্টেন্ট প্রকাশের হার বাড়ানো হবে বলেও জানিয়েছেন মাহফুজ আনাম৷ ডয়চে ভেলের সঙ্গে তাঁর পুরো আলোচনা দেখতে ক্লিক করুন এখানে

আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়