1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ব্লগ

সেল্ফি তুলিয়া ‘পশু' হইবেন না

ছাত্রলীগ নেতার চাপাতির কোপে ক্ষতবিক্ষত খাদিজার পাশে দাঁড়িয়ে সেল্ফি তুলেছেন আওয়ামী লীগের দুই নেত্রী৷ খবরটি পড়ে কোরবানির ঈদের একটা ছবি মনে পড়ে গেল৷ সেই ছবি দেখে মনে হয়েছিল সেল্ফি তুলতে গিয়ে কিছু মানুষ যেন ‘পশু' হয়ে যায়৷

হুমায়ূন আহমেদ অবশ্য এক নাটকে মানুষকে পশুর সঙ্গে তুলনা করে পশুকে লজ্জা না দেয়ার অনুরোধ জানিয়েছিলেন৷ তিনি মনে করতেন, কিছু মানুষ এতটাই নির্মম এবং বিবেকবর্জিত যে তারা আসলে পশুর চেয়েও অধম৷ আবার বহুব্রীহি নাটকে তিনি টিয়াপাখিকে দিয়ে বলিয়েছিলেন, ‘তুই রাজাকার'৷ রাজাকার শব্দটি তখন থেকে আগের চেয়ে অনেক বেশি ঘৃণা প্রকাশক৷ সবাইকে ‘রাজাকার' নিশ্চয়ই বলা উচিত নয়৷ তবে অনেক মানুষের কার্যকলাপ যে পশুকেও লজ্জায় ফেলতে পারে সে বিষয়ে প্রয়াত হুমায়ূন আহমেদের সঙ্গে আমি সম্পূর্ণ সহমত৷

গত কোরবানির ঈদে দু'টি সেল্ফি দেখে গা শিউরে উঠেছিল৷ এক তরুণ তার সঙ্গীদের নিয়ে একটি গরু কোরবানি দেয়ার পর সেই গরুর পিঠে বসেই সেল্ফি তুলেছিলেন৷ আরেক সেল্ফিতে ছিল সেই তরুণের পরিবারেরই কয়েকজন শিশু-কিশোর-কিশোরী৷ সেল্ফি তোলার আগে তারাও সেই রক্তাক্ত, মৃত গরুটির ওপরেই চেপে বসেছিল৷ ‘সুস্থ' সাংবাদিকতার নীতি বহির্ভূত বলে বহুল আলোচিত সেই সেল্ফি দু'টো এখানে প্রকাশ করা হলো না৷

তবে আওয়ামী লীগের এমপি সাবিনা আক্তার তুহিন এবং যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সাংসদ অপু উকিলের সেল্ফি গণমাধ্যমে বড় খবর হিসেবেই প্রকাশিত হয়েছে৷

স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে তোলা স্বাভাবিক কোনো সেল্ফি সেটা নয়৷ আওয়ামী লীগের দুই নেত্রী তাঁদের এক সঙ্গীকে নিয়ে সেল্ফিটি তুলেছেন এক ছাত্রলীগ নেতার উপর্যুপরি চাপাতির কোপে আহত কলেজ ছাত্রী খাদিজা বেগম নার্গিসের শয্যার পাশে দাঁড়িয়ে৷ খাদিজাকে গত সোমবার সিলেটের এমসি কলেজের মসজিদের পাশের রাস্তায় চাপাতি দিয়ে নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করে সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র, ছাত্রলীগের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সহ-সম্পাদক বদরুল আলম৷ মুমূর্ষু খাদিজা এখন ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন৷ খাদিজা যখন মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছেন তখন তাঁর পাশে আওয়ামী লীগ নেত্রীদের সেল্ফি তোলার বিষয়টিকে অনেকে খুব স্বাভাবিকভাবেই ভালোভাবে নিতে পারেননি৷

সরকারদলীয় দুই নেত্রীর মানবিক মূল্যবোধ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সবাই৷ সমালোচনার মুখে অপু উকিল সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন , ‘‘ছবি তোলা একেবারেই উচিত না, এই ঘটনার সাথে আমি জড়িত না, আমি ছবি তুলিনি এবং আপলোড দেইনি৷ যারা করেছে তাদেরও কোনো অশুভ উদ্দেশ্য ছিল না৷ খাদিজার পাশে দাঁড়ানের জন্যই হয়ত তারা এটা করেছে৷''

সেল্ফিটি প্রথমে সাবিনা আক্তার তুহিন এমপি-র ফেসবুক পাতাতেই প্রকাশ করা হয় ৷ তীব্র সমালোচনার মুখে তিনিও ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘‘আমার গতকালের স্ট্যাটাসের জন্য যদি আমার কোনো ভুল হয়ে থাকে এবং কেউ মর্মাহত হয়ে থাকেন আমি এ ব্যপারে দুঃখিত৷''

তিনি জানান, একটি ভুলবোঝাবুঝি দূর করতেই এক ছোট ভাইকে দিয়ে ছবিটি তুলিয়েছিলেন তিনি৷ তাঁর দাবি, খাদিজা মারা গেছে বলে গুজব ছড়িয়ে পড়েছিল৷ তাঁর এক বান্ধবীও নাকি ‘বোন খাদিজা, ক্ষমা করিস' লিখে স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন৷ ওই গুজব মিথ্যে প্রমান করতেই নাকি সেল্ফিটি তোলা হয়৷ সাবিনা আক্তার তুহিনের ভাষায়, ‘‘আমাদের ছবি দেয়ার উদ্দেশ্য কেবল আমরা নারী সমাজ খাদিজার পাশে আছি এটা বোঝানোর জন্য আর ও বেঁচে আছে এটা জানানোর জন্য৷ আমার ফেসবুকে বদরুলের ফাঁসি চেয়ে নির্মম ঘটনার নিন্দা করে সট্যাটাসও দেয়া হয়েছে৷ আমার যদি ভুল হয়ে থাকে তবে আমি ক্ষমা পার্থী৷ আমরা সব নির্যাতিত নারী সমাজের পাশে আছি, থাকবো৷ এটা দেয়া যদি আমার সাংবাদিক ভাইদের কাছে দৃষ্টিকটু হয়ে থাকে তবে আমি আন্তরিক দুঃখিত৷'' 

আশীষ চক্রবর্ত্তী

আশীষ চক্রবর্ত্তী, ডয়চে ভেলে

কিন্তু তারপরের বাক্যগুলোতে একরকম ক্ষোভ নিয়ে আওয়ামী লীগের তরুণ নেত্রী লিখেছেন, ‘‘আমরা যারা রাজনীতি করি তাদের চিন্তা-ভাবনায় যত সততাই থাকুক আমাদের দোষ তো খুঁজে বের করতে হবে, এটাই তো স্বাভাবিক৷ আমি মনে করি, যা কিছু হয়েছে মঙ্গলের জন্য, অনেক কিছু আবেগ থেকে না করে চিন্তা ভাবনা করে করতে হবে৷ খাদিজার ওখানে গিয়ে আবেগী হয়ে আমরা আছি ওর পাশে বদরুল কে ধিক্কার জানাই এটা বোঝানোর জন্য৷ সাংবাদিকরা যে লিখেছে আমি সাংবাদিক পরিবারের মানুষ আমার তো জানা উচিত ছিল খবরের শিরোনাম তো উনারা খুঁজবেন, আমি কেন রসদ দিবো? আবেগ দিয়ে বিবেচনা না করে মাথা খাটিয়ে চলতে হবে৷ কেউ যদি কাজ করে, সম্মোলচনা তারই বেশি হয়৷ কালকে পাশে গিয়ে তার পাশে দাঁড়ানোর অঙ্গীকার না করে ঘরে বসে তার জন্য বড় করে স্ট্যাটাস দিলেই তো হতো৷ সংসদে ঢোকার আগ মুহূর্তে গেলাম লিপস্টিক কেন দিয়ে গেলাম, এটাও তো দোষ৷ সব কিছুর পর এটাই বলবো, আমিই দায়ী, আমার একক দায়িত্ব৷''

দেশের সচেতন এবং দায়িত্বশীল নাগরিকদেরই সংসদ সদস্য হওয়ার কথা৷ রাজনৈতিক দলের নেতৃত্বেও অনুকরণীয় ব্যক্তিদেরই আসা উচিত৷ সাবিনা আক্তার তুহিন এবং অপু উকিল খাদিজার ওপর হামলা চালানো ছাত্রলীগ নেতার বিচার দাবি করে থাকলে নিশ্চয়ই খুব ভালো কাজ করেছেন৷ খাদিজার পাশে দাঁড়ানোও নিশ্চয়ই প্রশংসনীয়৷ তবে দেখতে গিয়ে অচেতন এক রোগীর পাশে দাঁড়িয়ে ছবি তুলে তা আবার প্রচার করা কোনোভাবেই প্রত্যাশিত বা কাম্য নয়৷

দুই আওয়ামী লীগ নেত্রীর সেল্ফি দেখে কিন্তু কোরবানির ঈদের সময় গরুর পিঠে বসে ছবি তোলা ওই লোকগুলোর কথাই মনে পড়েছে৷ অপু উকিল, সাবিনা আক্তার তুহিন, মুমূর্ষু খাদিজার পাশে দাঁড়ালেও আপনারা তাঁর এবং তাঁর স্বজনদের যাতনাটা ঠিক অনুধাবন করতে পেরেছেন বলে মনে হয় না৷ কোরবানির ঈদের সময় গরুর পিঠে বসে সেল্ফি তোলা মানুষগুলোর মতো আপনাদের মনুষ্যত্ববোধ নিয়েও প্রশ্নটা তাই থেকেই গেল!

বন্ধুরা, আপনি লেখকের সঙ্গে একমত? জানান আমাদের, লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন