1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

‘সেরা ব্লগ’ পুরস্কার ছিনিয়ে নিল লি চেনপেং

অন্য ১৩টি ভাষাকে পিছনে রেখে ‘দ্য বব্স ২০১৩’-র মুখ্য বিজয়ী চীন৷ এ’বছরের ‘সেরা অনলাইন অ্যাক্টিভিজম অ্যাওয়ার্ড’-টি নিজ ঝুলিতে ভরেছেন দেশটির বিশিষ্ট ব্লগার লি চেনপেং৷ বিশ্বের সামনে তুলে ধরেছেন প্রতিবাদের এক নতুন ভাষা৷

এ বছরের সূচনায় লি শুধু চীনেই নয়, বহির্বিশ্বের ব্লগোস্ফিয়ারেও হৈচৈ ফেলে দেন৷ লেখক হিসেবে ট্যুরে বেরিয়ে লি তাঁর প্রবন্ধ সংকলন ‘সারা বিশ্ব জানে' পরিবেশন করছিলেন৷ সঙ্গে সঙ্গে কর্তৃপক্ষ তাঁর মুখে লাগাম পরায়৷ এমনকি লি'কে তাঁর ফ্যানদের কাছ থেকে বিদায় নেবার বা দু'চারটা কথা বলারও সুযোগ দেওয়া হয়নি সে সময়৷ পুরো ঘটনাটি সম্পর্কে চীনের মাইক্রোব্লগ ‘সিনা ওয়াইবো'-তে লি'র মন্তব্য: ‘‘ওরা সবাই পাগল৷''

একবার এক বই স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে লি চেনপেং কালো মুখ-ঢাকা মুখোশ পরে আসেন৷ তাঁর গায়ে ছিল ‘আমি তোমাদের সবাইকে ভালোবাসি' লেখা একটি টি-শার্ট৷ গোটা সময়টি ধরে লি একটিও কথা বলেননি৷ তাঁর সমর্থকদের অনেকেও গ্যাস প্রতিরোধী মুখোশ পরে ছিল৷ তরুণ চীনারা যে মত প্রকাশের স্বাধীনতার জন্য লড়তে রাজি, সেটাই সেদিন প্রমাণ হয়৷ আজও ইউটিউবে দেখা যায় ভিডিওটি৷

Screenshot Li Chengpeng http://blog.sina.com.cn/lichengpeng

চীনের সিচুয়ান প্রদেশে ২০০৮ সালের ভূমিকম্প লি'কে বদলে দেয়

আর সেটা দেখে ‘দ্য বব্স ২০১৩' সালের বিচারকমণ্ডলী মুগ্ধ৷ একটাও কথা না বলে প্রতিবাদের কি অভূতপূর্ব ভাষা! যাতে কোনো শব্দ নেই, আছে শক্তিশালী অচ্ছিদ্র নিরবতা৷

‘সিনা ওয়াইবো'-তে লি চেনপেং-এর সত্তর লাখ অনুসরণকারী৷ লি'র বক্তব্য, তাঁর কোনো রাজনৈতিক উচ্চাকাঙ্খা নেই৷ তিনি শুধু বলার ও লেখার স্বাধীনতা রক্ষা করতে চান৷ বলা বাহুল্য, লি চীনের নতুন প্রতিবাদ সংস্কৃতির ধারক ও বাহক৷ যার সুর ধরে, চীনের ব্লগাররা আজ আর সাধারণভাবে সমালোচনা করে না৷ বরং তাঁরা কোনো বিশেষ কেলেঙ্কারির কথা জানলে, সেটা সোজাসুজি ফাঁস করতে তৎপর হয়৷

সিচুয়ান প্রদেশে ২০০৮ সালের ভূমিকম্প লি'কে বদলে দেয়৷ নয়ত তখনও পর্যন্ত তিনি একজন ‘‘দেশপ্রেমী'' ছিলেন, লি নিজেই কিন্তু একথা বলেছেন৷ ২০০৮ সাল থেকেই তাঁর সচেতনতার সূচনা, সূচনা সমাজ-সরকারকে সমালোচনামূলক দৃষ্টিতে দেখার৷ এরপর বেশ তাড়াতাড়িই সমাজে বিভিন্ন অব্যবস্থার সমালোচনামূলক লেখা লিখে নাম করে ফেলেন তিনি৷ তার মধ্যে সরকারের জোর করে মানুষের বাড়িঘর অধিগ্রহণ কার এবং সেগুলি মাটির সাথে মিশিয়ে দেওয়ার মতো ঘটনাও ছিল৷

তাঁর সৎসাহস ও কৌতূকবোধ দিয়ে ‘‘বিগ-আই-লি'' বব্স জুরিকে মোহিত করেন৷ আর এই সব মিলিয়েই নিজ ব্লগ http://blog.sina.com.cn/lichengpeng -এর জন্য ডয়চে ভেলের ‘বেস্ট অব অনলাইন অ্যাক্টিভিজম অ্যাওয়ার্ড'-এর ‘সেরা ব্লগ' পুরস্কারে ভূষিত হন লি চেনপেং৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়