সেনা আতঙ্কে তটস্থ ছিলেন জারদারি | বিশ্ব | DW | 01.12.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সেনা আতঙ্কে তটস্থ ছিলেন জারদারি

পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আসিফ আলি জারদারি সেনা আতঙ্কে ভুগছিলেন৷ মনে করেছিলেন ক্ষমতাধর সামরিক বাহিনী তাঁকে হয়তো প্রেসিডেন্ট পদ থেকে সরিয়ে দেবে৷ এমনই এক গোপন কথা ফাঁস করল উইকিলিক্স৷

default

পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আসফি আলী জারদারি

জারদারির সেনা আতঙ্ক

২০০৯ সালের জানুয়ারিতে মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে সেনাবিদ্রোহের আতঙ্কের কথা জানান আসিফ আলি জারদারি৷ উইকিলিক্সের ফাঁস করা গোপন নথির বরাতে এই তথ্য জানিয়েছে দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস৷ পত্রিকাটি জানায়, জারদারির এই মন্তব্য থেকে এটা পরিস্কার নয় যে, তাঁকে মেরে ফেলার আশঙ্কা ছিল নাকি শুধুই ক্ষমতা থেকে সরাতে চাইছিল সেনারা৷ ইসলামাবাদের মার্কিন দূতাবাস থেকে এমন গোপন কূটনৈতিক বার্তা পাঠানো হয় মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে৷ এতে দেখা যাচ্ছে, পাকিস্তানের অজনপ্রিয় বেসামরিক সরকারকে সহায়তা করা নিয়ে উভয় সঙ্কটে পড়েছিল মার্কিনিরা৷ এতে করে আফগানিস্তানে মার্কিন সেনা অবস্থানের প্রতি পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থার সহানুভূতি কমার দুশ্চিন্তা ছিল৷

Flash-Galerie Logo WikiLeaks

উইকিলিক্স এর লোগো

জঙ্গি দমন

এই বছরের অক্টোবর পর্যন্ত তিন বছর মেয়াদে ইসলামাবাদে মার্কিন রাষ্ট্রদূত ছিলেন অ্যানা পেটারসন৷ টাইমস জানাচ্ছে, পাকিস্তানকে কোটি ডলার সহায়তার মাধ্যমে আরো সহযোগী করার উদ্যোগ নিয়ে সন্দেহ পোষন করেছিলেন পেটারসন৷ তাছাড়া তালেবান জঙ্গিদের সঙ্গে সম্পর্ক পুরোপুরি ছিন্ন করায় ব্যাপারে অনিচ্ছুক ছিল পাকিস্তান৷ কেননা পাকিস্তান আফগানিস্তানে তাদের প্রভাব প্রতিপত্তি এতটাই বাড়িয়ে রাখতে চায়, যাতে ভারত সেখানে নাক গলাতে না পারে৷ তাই কোটি ডলারের সহায়তা সত্ত্বেও পাকিস্তান জঙ্গি নিধনে কতটা সচেষ্ট তা নিয়ে সন্দিহান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র৷

জুলিয়ানকে খুঁজছে আন্তর্জাতিক পুলিশ

উইকিলিক্স এর প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনা হয়েছিল সুইডেনে৷ এরপর ১৮ই নভেম্বর সুইডেন তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে৷ এই অভিযোগের কারণে বুধবার ইন্টারপোল জুলিয়ানকে গ্রেপ্তারের আন্তর্জাতিক পরোয়ানা জারি করেছে৷

প্রতিবেদন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: সুপ্রিয় বন্দোপাধ্যায়

নির্বাচিত প্রতিবেদন