1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

আলাপ

‘সেনাবাহিনীকে লোভাতুর পেশা দিয়েছেন হাসিনা’

‘‘গাধাকে চালাতে হলে যেমন গাধার সামনে গাজর ঝুলাতে হয়, তেমনি বাংলাদেশ সরকার তাদের গদি সামলাতে সেনাবাহিনীর সামনে ব্যবসা নামক গাজর ঝুলিয়েছে৷'' সামরিক বাহিনী নিয়ে প্রতিবেদনগুলো পড়ে এমন মন্তব্য করেছেন এক বন্ধু৷

মাহিদুল ইসলাম ফাহিমের কথায়, সরকার এটা করেছে যাতে ‘‘সেনাবাহিনী কোনো আওয়াজ না করে''৷

ব্যবসা-বাণিজ্য সেনাবাহিনীর কাজ নয়, কিন্তু বাংলাদেশে তাই হচ্ছে৷ অর্থাৎ সেনাবাহিনী দেশের নানা রকম ব্যবসা-বাণিজ্যে জড়িয়ে পড়েছে৷ এ সম্পর্কে আরাফাতুল ইসলামের লেখা প্রতিবেদনটি পড়ে পাঠক রায়হানের মন্তব্য, ‘‘শেখ হাসিনা শুধু তাঁর ক্ষমতা টিকিয়ে রাখার জন্য সেনাবাহিনীকে লোভাতুর পেশা দিয়েছেন৷''

‘‘ঢাকা শহরের অর্ধেক তো তারাই৷ ভবিষ্যতে মানুষের বউয়ের দায়িত্বও যে তারা নেবে, তা বোঝা যাচ্ছে৷ সেনাবাহিনীর বাড়াবাড়ি দেখে এই মন্তব্য পাঠক রাজদূতের৷

মো. সুমন বেশ রসিকতা করে মন্তব্য করেছেন, ‘‘কী করবে তারা, তা‌দের তো কোনো কাজ নেই৷ আমার হিসা‌বে তারা তা‌দের ‌বেত‌নের যে টাকা নেয়, সেটার জন্য তো তাদের কিছু কাজ করতে হ‌বে৷ সো নো টেনশন!''

পাঠক মাসুমের ভয় দেশে যেভাবে আর্মি বিস্তার লাভ করেছে, আগামীতে হয়ত দেশের শতকরা ৬০ ভাগই সেনাবাহিনীর আয়ত্বে চলে যাবে৷ তাঁর কথায়, ‘‘একটি গণতান্ত্রিক দেশে এটা মোটেও কাম্য নয়৷''

আশরাফুল ইসলাম অবশ্য সেনাবাহিনীকে সমর্থন করেন৷ কাজি রাসেল আহমেদও বলছেন যে, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী বাংলাদেশের গর্ব৷

অন্যদিকে একেবারে উল্টোমত প্রকাশ করেছেন মো.ইব্রাহিম হোসেন ভুঁইয়া৷ তাঁর মন্তব্য, ‘‘একটি অবৈধ দলের কাছে নিজেদের সত্যতা, আদর্শ, দেশপ্রেম বিক্রি করে দিচ্ছে বর্তমান সেনাবাহিনী৷....আগের সেনাবাহিনীর কাছে দেশ বড় ছিল. টাকা নয়৷ আর বর্তমান সেনাবাহিনীর কাছে টাকা বড়, দেশ নয়...৷''

সুমালিয়া রেহমান এখানে বিডিআর হত্যাকাণ্ডের কথা মনে করিয়ে দিয়ে লিখেছেন, ‘‘বিডিআর হত্যাকাণ্ডের কারণ ছিল অর্থনৈতিক৷ সেনাবাহিনী ঢাকা শহর জুরে জমি দখল করছে, বিল্ডিং উঠাচ্ছে, প্রফেশনালিজম অনেক আগেই গেছে৷ আজ একজন সিপাহীরও ঢাকায় বাড়ি আছে৷''

‘‘বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কর্মকাণ্ডের একটি উদারহণ দিতে গিয়ে হানিফ হোসেন লিখেছেন, ‘‘সাধারণ কৃষকের জমি দখল করে রূপগঞ্জে সেনাবাহিনী আবাসিক এলাকা তৈরি করেছে সরকারের সাহায্য৷ কৃষকরা তাদের জমির ন্যায্য মূল্য পায়নি৷''

অপু মোস্তাফিজুর রহমানের পরামর্শ – ‘‘যুদ্ধ নেই বলে আর্মির কোনো কাজ নেই৷ তাই সেনাবাহিনীকে দিয়ে দেশের বড় বড় উন্নয়ণমূলক কাজ করানো উচিত৷''

অথচ রাতুল মোহাম্মদ মনে করেন, সেনাবাহিনী দেশের উন্নতি না করে নিজের উন্নতি করছে৷

সরকারি চাকরি যারা করেন, তারা কেন ব্যবসা করবেন তা বুঝতে পারেন না ডয়চে ভেলের ফেসবুক বন্ধু অমিত৷

আবদুল্লাহ আল-ফাহিমও সেনাবাহিনীকে ব্যবসা করার সমর্থন করতে পারছেন না, কারণ সেনাবাহিনীর দায়িত্ব মাতৃভূমিকে রক্ষা করা৷ তাঁর কথায়, ‘‘দেশ তো আর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নয়৷''

এই সব ব্যবসা নিয়েই অফিসার আর ফোর্সদের ভেতরে গৃহযুদ্ধ লেগে যাবে বলে মনে করেন শামীম রেজা৷

ব্যবসা কি তাহলে শুধু রাজনীতিবিদরাই করবে? এই প্রশ্ন আশরাফ সারোয়ারের৷

‘‘সেনবাহিনীর যেসব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান আছে, তা বর্তমান এবং সাবেক সেনা কর্মকর্তারা পরিচালনা করেন মাত্র৷ সেখানে কাজ করেন সিভিলিয়ানরা৷ তাই আমি মনে করি, সেনাবাহিনীর সদস্যরা ক্ষতিগ্রস্ত বা অদক্ষ হওয়ার কোনো কারণ নেই৷ তাছাড়া সেনাবাহিনীর দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখারও একটা ব্যাপার আছে৷ তারা যদি এ সব প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে দেশে কর্মসংস্থান বাড়াতে পারে, তাহলে তো এটা খারাপ কিছু না৷ এটাকে কেন আপনি নেতিবাচক হিসেবে দেখছেন? আপনারাই তো বলেন সেনাবাহিনী শুধু বসে বসে দেশের সম্পদ নষ্ট করছে৷ তাই উৎপাদনমূলক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ করলে ক্ষতি কী?'' বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সম্পর্কে এই মন্তব্য পাঠক প্রাণের৷

সেনাবাহিনীর ব্যবসা করা পছন্দ করেন না ডয়চে ভেলের ফেসবুক বন্ধু জামালপুরের হারুন অর রশীদও৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘আমি মোটেও সেনাবাহিনীর এ রকম ব্যবসাকে সমর্থন করি না৷ প্রত্যেকেই বাড়ি, গাড়ির মালিক হয়ে বিলাসবহুল জীবনযাপন করবে৷ এ কারণেই তারা তাদের আদর্শকে ভুলে গিয়ে দলাদলি করতে পারে, যার প্রভাব সাধারণ জনগণের উপর পড়ে৷''

‘‘সেনাবাহিনীর বেসামরিক কাজে জড়ানো কোনো দেশের জন্য ভালো নয়৷ বেসামরিক কাজে তাদের যত জড়ানো হবে, ততই তাদের পেশাদার মনোভাব লোপ পাবে, রাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রণরেখা তাদের হাতে চলে যাবে৷'' এ মন্তব্য বন্ধু জহিরুল আলমের৷

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বর্তমানে ব্যবসা-বাণিজ্যে জড়িয়ে যাওয়া সম্পর্কে আবু ওবায়েদের মতামত হচ্ছে, ‘‘ক্ষমতালোভীরা দেশের কাণ্ডারিদের মেরুদণ্ডহীন করার জন্য এমন ফাঁদ পেতেছে৷''

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়