1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সেতু তৈরিতে মুম্বইয়ের ফ্লেমিঙ্গো পাখিদের বিপদ

শহরের মধ্যে ফ্লেমিঙ্গো পাখি বিশ্বের খুব বেশি শহরে দেখতে পাওয়া যায় না৷ পশ্চিম ভারতের মুম্বইতে একটি ব্রিজ তৈরির পরিকল্পনা চলেছে৷ সেই ব্রিজ যাবে ঠিক এই ফ্লেমিঙ্গোদের আবাসের ওপর দিয়ে৷

ফ্লেমিঙ্গো পাখিরা মুম্বইতে বাসা বেঁধেছে প্রায় ২০ বছর আগে – বাসা বেঁধেছে মানে তারা যাযাবর পাখি: বছরে পাঁচমাস করে তারা দক্ষিণ মুম্বইয়ের সেবড়ি এলাকায় দিন কাটায়৷ অথচ সেবড়ির বাসিন্দারাও জানেন না যে, মুম্বই ছাড়া একমাত্র নাইরোবি আর মায়ামিতে এভাবে ফ্লেমিঙ্গোদের দেখতে পাওয়া যায়৷

ওদিকে মুম্বই বন্দরের এপাশ থেকে ওপাশ জুড়ে একটি ব্রিজ তৈরির পরিকল্পনা চলেছে, মুম্বই ট্রান্স হার্বর লিংক৷ এই ব্রিজ যাবে ঠিক সেই এলাকার ওপর দিয়ে, ফ্লেমিঙ্গোরা যেখানে খাবার খোঁজে ও বাসা বাঁধে৷ বম্বে ন্যাচারাল হিস্টরি সোসাইটি নিয়মিত সেবড়িতে ফ্লেমিঙ্গো দেখার ব্যবস্থা করে থাকে৷

মে থেকে অক্টোবর মাস পর্যন্ত এই ফ্লেমিঙ্গোরা থাকে রাজস্থানের থর মরুভূমির গ্রেটার রান অফ কচ-এ৷ এই মরশুমি নোনা জলের হৃদ বা জলাভূমি এলাকাটি পাকিস্তান সীমান্তের কাছে৷ রান-এর কাদামাটির চরগুলি বর্ষায় আধ মিটার জলে ডুবে থাকে৷ সেই জলের ওপর ভেসে থাকা কাদার ঢিবিতে ডিম পাড়ে ফ্লেমিঙ্গোরা৷ তারপর ঠান্ডা পড়লে তারা ৬০০ কিলোমিটার উড়ে যায় মুম্বইয়ের সেবড়ি বে-তে, যেখানে তিনধারে ম্যানগ্রোভ অরণ্য৷ সেবড়ি বে-ও নিয়মিত জলে ডুবে যায়৷

জলের তলার বালির চর বেশ সমতল, কাজেই জোয়ার এলে প্রতিবারই ফ্লেমিঙ্গোদের জন্য প্রচুর খাবার ভেসে আসে৷ ওদিকে উপকূলে একটা বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র থাকায় এখানকার পানি বেশ গরম, ফ্লেমিঙ্গোরা যা পছন্দ করে৷ ফ্লেমিঙ্গোরা সামাজিক জীব, হাজারে হাজারে দল বেঁধে থাকতে ভালোবাসে৷ খাবার সময় তারা ঠোঁট দিয়ে জলকে ছাঁকনির মতো ছেঁকে ছোট ছোট চিংড়ি, কাঁকড়া, শ্যাওলা ইত্যাদি বার করে খায়৷ শুধু এই ফ্লেমিঙ্গোদের কারণে মুম্বই ট্রান্স হার্বর লিংক সেতুটি তৈরি বন্ধ রয়েছে গত ৩০ বছর ধরে৷ নয়ত ব্রিজটার যাওয়ার কথা সেবড়ি থেকে উরান ক্রিক অবধি, ২২ কিলোমিটার দূরে, যেখানে মুম্বইয়ের ভবিষ্যৎ বিমানবন্দর তৈরি হবে৷ ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে সেতু তৈরির কাজ শুরু হওয়ার কথা৷ ব্রিজ তৈরি হতে লাগবে পাঁচবছর৷ তারপর সেবড়ি বে-র ৩০ হাজার ফ্লেমিঙ্গোদের মাথার ওপর দিয়ে বইবে অবিশ্রান্ত যানবাহনের স্রোত; জলে থাকবে নানা ধরনের ধাতব, রাসায়নিক পদার্থ৷ ফ্লেমিঙ্গোরা এ সব থেকে পালিয়ে অন্য কোথাও যাবে৷ মুম্বই হারাবে তার ফ্লেমিঙ্গোদের৷

বন্ধু, আপনি কি কখনও ফ্লেমিঙ্গো পাখিদের স্বচক্ষে দেখেছেন? জানান আমাদের, লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন