1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মতামত

সু চির নোবেল শান্তি পুরস্কার ফিরিয়ে নেওয়ার দাবি

‘‘সু চির নোবেল শান্তি পুরস্কার ফিরিয়ে নেওয়া হোক এবং জাতিসংঘ ও বিশ্ব নেতাদের উচিত হবে রোহিঙ্গা মুসলিমদের মাতৃভূমিতে পুনর্বাসন করার ব্যবস্থা করা৷'' ডয়চে ভেলের ফেসবুক পাতায় এই মন্তব্য একজন পাঠকের৷ এমন মন্তব্য এসেছে আরো..৷

‘‘অং সান সু চি কি সত্যিই শান্তির জন্য পুরস্কার পেয়েছিল, নাকি অশান্তি সৃষ্টির জন্য? মিয়ানমারে এত হত্যাযজ্ঞ হচ্ছে, মুসলিম নারী-পুরুষ-শিশু নিধন হচ্ছে, অথচ শান্তিতে নোবেল বিজয়ীরা চুপ কেন? জাতিসংঘ, মানবাধিকার সংস্থা, ওআইসি চুপ কেন? রোহিঙ্গারা কি মানুষ না?''  একসাথে এরকম অনেকগুলো প্রশ্ন  করেছেন ডয়চে ভেলের পাঠক রফিকুল হক কাওসার৷

এদিকে পাঠক রুহূল আমীন লিখেছেন, সু চিসহ শান্তিতে নোবেল পাওয়া সবার পুরস্কার প্রত্যাহার করা হোক৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘সু চি'র নোবেল প্রাইজ অবশ্যই বাতিল করা উচিত৷'' এর কারণ হিসেবে তিনি বলছেন,  ‘‘তার দেশে মুসলিম/হিন্দু বলে কথা নয়...‘নির্বিচারে মানুষ হত্যা' করা হচ্ছে সরকারীভাবে৷ অতএব শুধু ‘নোবেল বাতিল' নয়, সাথে তার সরকারের বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগে আন্তর্জাতিক মহলের জরুরিভাবে ‘সাজা' র ব্যবস্হা করা উচিত৷'' ডয়চে ভেলের পাঠক গোলাম মোর্তজাও রুহুল আমীনের সাথে একমত৷

শরীফ হোসেন ভুইয়া এবং আবদুল আজিজ, মুরাদ মন্ডল, আসিফ, বেলাল শেখ, মাহমুদুল মিজন, জাহির উদ্দিন, মো.শহীদুল ইসলাম, ইমামুল মোস্তাকিমের মতে সু চি'র নোবেল প্রাইজ ধরে রাখার কোনো অধিকার নেই৷ তাই নোবেল প্রাইজ বাতিল করা উচিত৷

আর জেসমিন সুলতানা তো রসিকতা করে লিখেই ফেলেছেন, ‘‘কী বলেন! সুচির নোবেল পুরস্কার এখনো বাতিল করে নাই!! এত মানুষের উপর অত্যাচার হচ্ছে  আর উনি শান্তির ডিব্বা নিয়া একাই শান্তিতে থাকবেন, তা তো হতে দেয়া যায় না৷''

পাঠক মহিনূর মিশুক রোহিঙ্গা হত্যার বিচার চান৷ সু চি'র বিচার চান পাঠক মো.ইমরানও৷

সকলেরই মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর কাছ থেকেরোহিঙ্গামুসলমান ও হিন্দুদের সাহায্য করা উচিত বলে মনে করেন তাহিয়া তাবাসসুম৷

আর হায়দার আলী মনে করেন, সু চি'র নোবেল বাতিল না করলে জনগণের বিশ্বাস উঠে যাবে৷ 

কাজি ফিরোজ উদ্দিন জোর গলায় বলছেন, ‘‘অবশ্যই সু চি'র নোবেল প্রাইজ বাতিল করা উচিত, কারণ, সু চি গনহত্যাকারী,  মানবতার শত্রু৷''

তবে ভিন্ন কথা বলছেন আনিসুর রহমান৷ তিনি লিখেছেন,  ‘‘হয়ত সু চি'র কোনো ক্ষমতা নেই, হয়ত তিনি এক্ষেত্রে অসহায়৷ তাকে আরো কিছুদিন সময় দেওয়া হোক৷''

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: আশীষ চক্রবর্ত্তী

নির্বাচিত প্রতিবেদন