1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সিরিয়া সংকটের বলি হতে পারে যাত্রীবাহী বিমান?

ইউক্রেন সংকটের সময় মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের এমএইচ বিমান ধ্বংসের ঘটনার পুনরাবৃ্ত্তির আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না৷ সিরিয়ায় রাশিয়ার সামরিক অভিযান সম্পর্কে সতর্কতা জারি করেছে ইউরোপ৷

রাশিয়া আসরে নামার আগে সিরিয়ায় পশ্চিমা শক্তি আরব দেশগুলির সঙ্গে আইএস দমন অভিযানেই ব্যস্ত ছিল৷ সেই অভিযান তেমন জোরালো নয় বলে সমালোচকরা অভিযোগ করে এসেছেন৷ রাশিয়াও সেই আইএস দমনের নাম করে সিরিয়ায় তার নিজস্ব স্বাভাবিক অভিযান শুরু করে এখন বাশার আল-আসাদ প্রশাসনকে শক্তিশালী করার কাজকেই মূল লক্ষ্য হিসেবে স্থির করেছে৷

ন্যাটো মনে করে, আসাদের প্রতি রাশিয়ার সমর্থন সংকট দীর্ঘায়িত করবে৷ ন্যাটোর মহাসচিব ইয়েন্স স্টলটেনব্যার্গ তুরস্কের আকাশসীমা লঙ্ঘন সম্পর্কে একটি বিবৃতি দিয়েছেন৷

আসাদ প্রশাসনের প্রতি সমর্থন প্রকাশ করেছে চীনও৷ সিরিয়ার ঐক্য এ অখণ্ডতা রক্ষা ও সে দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের বিরোধিতা করেছে সে দেশ৷

ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রধান ফেডেরিকা মোগেরিনি মনে করেন, সিরিয়ায় রাশিয়ার হস্তক্ষেপ অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ৷

ইউক্রেনের আকাশে মালয়েশিয়ার একটি বিমানের মর্মান্তিক ধ্বংসকাণ্ডের কথা মানুষ ভোলেনি৷ এবার সিরিয়ায় রাশিয়ার বিমান হামলার ক্ষেত্রেও একই রকম আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না৷ ইউরোপীয় বিমান-চলাচল সংস্থা বেসামরিক বিমান সংস্থাগুলিকে এ বিষয়ে সতর্ক করে দিয়েছে৷

অক্সফ্যাম মনে করে, শক্তিশালী দেশগুলি নিজস্ব স্বার্থেই সিরিয়া সংকটে ইন্ধন যোগাচ্ছে৷

সিরিয়ায় রাশিয়ার অভিযানের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেছেন টুইটার ব্যবহারকারীরা৷

সংকলন: সঞ্জীব বর্মন

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়