1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সিরিয়ায় সংঘাত বন্ধের আহ্বান

সিরিয়া সংকট সমাধানে বিশ্বনেতারা যখন আলোচনায় ব্যস্ত, তখন এক অডিও বার্তায় সিরিয়ার জঙ্গি বিদ্রোহীদের প্রতি সংঘাত বন্ধ করার আহ্বান জানালেন আল-কায়েদা নেতা আয়মান আল-জওয়াহিরি৷

বুধবার ইসলামিস্ট ওয়েবসাইটে প্রকাশিত অডিও বার্তায় আল-কায়েদা নেতা আয়মান আল-জওয়াহিরি বলেছেন, ‘নিজেদের মধ্যে সংঘাত বন্ধ করতে হবে, হানাহানি বন্ধ করতে হবে৷'' পরস্পরের মধ্যে মতপার্থক্য দূর করতে বিচারিক কমিটি গঠনের আহ্বানও জানিয়েছেন তিনি৷ কোন স্থান থেকে বার্তাটি পাঠানো হয়েছে তা জানতে পারেনি বার্তা সংস্থা রয়টার্স৷

এদিকে, সিরিয়া সংকট নিয়ে বুধবার মন্ট্রেয়ায় শুরু হওয়া আলোচনা চলছে৷ শুক্রবার জেনেভায় শুরু হবে দ্বিতীয় পর্বের আলোচনা৷ আলোচনায় বিশ্বের ৪০টিরও বেশি দেশের প্রতিনিধি রয়েছেন৷

Ayman al-Zawahiri

আল-কায়েদা নেতা আয়মান আল-জওয়াহিরি

তবে, আলোচনা থেকে শেষ মুহূর্তে ইরানকে বাদ দেয়ার বিষয়টি নিয়ে এখনও সমালোচনা হচ্ছে৷ সিরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়ালিদ আল-মোয়ালেম জানিয়েছেন, ‘‘ইরানকে আলোচনা থেকে বাদ দিয়ে জাতিসংঘ বড় ভুল করেছে, কেননা, ঐ অঞ্চলে স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে ইরানের ভূমিকা অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই৷'' এমনকি বুধবারের আলোচনায় খোদ মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরিও বলেছেন, ইরানের উপস্থিতি আলোচনায় বড় ধরনের পরিবর্তন আনতে পারে৷ কিন্তু তিনি এ-ও জানান, তেহরানকে ছাড়া ফলপ্রসূ আলোচনা সম্ভব৷ সিরিয়ার বিদ্রোহীদের মতো যুক্তরাষ্ট্র এবং সৌদি আরবও আসাদকে বাইরে রেখেই সমাধানের পক্ষে৷ অন্যদিকে আসাদ সরকারের পক্ষে বলে ইরানের এ আলোচনায় অংশ গ্রহণের বিরোধীতা করছে বিদ্রোহীরা৷

কেরি জানান, সমাধানের অনেক পথ রয়েছে এবং তাঁর বিশ্বাস আগামী কয়েক সপ্তাহ বা কয়েক মাসের মধ্যে আসাদ সরকারও গঠনমূলক সমাধানের জন্য আলোচনায় যোগ দিতে আগ্রহী হবে৷

তবে মধ্যপ্রাচ্য বিশ্লেষক আয়হাম কামেল বলেছেন, ‘‘রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট বিবেচনায় নয়, বাস্তবতা বিচার করেই এগিয়ে যেতে হবে৷ চূড়ান্ত সমঝোতায় আসতে হলে বাস্তবতা নিয়ে ভাবতে হবে, যদি আসাদকে বাদ দিতেই হয়, তবে তার অনুপস্থিতিতে কী অবস্থা দাঁড়াবে সেটাও বিবেচনায় রাখা উচিত এবং সেটা ইরান ও রাশিয়ার সহযোগিতায় করা সম্ভব৷''

২০১১ সালের মার্চ থেকে আসাদ সরকারের অনুগত বাহিনীর সঙ্গে বিদ্রোহীদের যুদ্ধ চলছে৷ যুদ্ধে এ পর্যন্ত কমপক্ষে ১ লাখ ৩০ হাজার মানুষ মারা গেছে৷ যুদ্ধের ভয়াবহতার কারণে আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থাগুলো গত জুলাই থেকে গৃহহীন সিরীয়দের কাছে ত্রাণসামগ্রী পৌঁছাতে পারছে না৷

এপিবি/এসিবি (রয়টার্স, এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন