1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মধ্যপ্রাচ্য

সিরিয়ায় কি যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া সংঘাতে জড়াবে?

রবিবার একটি সিরীয় আর্মি জেট ভূপাতিত করার দুই দিন পর ইরানের তৈরি একটি ড্রোনেরও একই পরিণতি করেছে মার্কিন সামরিক বাহিনী৷ ড্রোনটিতে অস্ত্র ছিল বলে দাবি তাদের৷

পেন্টাগন এক বিবৃতিতে বলেছে, সিরিয়ার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে উড়তে থাকা মার্কিন এফ-১৫ বিমান ইরানি ঐ ড্রোনকে গুলি করে ভূপাতিত করে৷ পেন্টাগন মুখপাত্র নৌবাহিনীর ক্যাপ্টেন জেফ ডেভিস জানান, ড্রোনটিতে ‘ডার্টি উইংস' ছিল, যার অর্থ হচ্ছে অস্ত্র৷ ইরানের তৈরি ড্রোনটি মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোটবাহিনীর দিকে অগ্রসর হচ্ছিল বলেও জানান তিনি৷ তবে ড্রোনটি কে পরিচালনা করছিল পেন্টাগনের ঐ মুখপাত্র সে সম্পর্কে স্পষ্ট কিছু জানাননি৷

এর আগে রবিবার সিরিয়ার একটি আর্মি জেট ভূপাতিত করেছিল যুক্তরাষ্ট্র৷ সিরিয়ার দক্ষিণাঞ্চলীয় রাকা শহরের কাছে এই ঘটনা ঘটে৷ যুক্তরাষ্ট্র সমর্থিত বাহিনীর কাছে বোমা ফেলার প্রতিক্রিয়ায় ঐ হামলা চালায় দেশটি৷ সিরীয় ঐ জেটটিতে পাইলট ছিলেন৷ ১৯৯৯ সালের পর এই প্রথম মানুষচালিত একটি জেট ভূপাতিত করল যুক্তরাষ্ট্র৷ ঘটনাটিকে সিরিয়ার সরকারি বাহিনীর বিরুদ্ধে ‘আগ্রাসন' হিসেবে দেখছে রাশিয়া৷

উল্লেখ্য, সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদকে সমর্থন করছে দেশটি৷ ফলে সেখানে সৈন্য, বিমান ও অস্ত্রশস্ত্র পাঠিয়েছে রাশিয়া৷ ইউফ্রেতিস নদীর পশ্চিম তীরে রুশ বাহিনীর অবস্থান৷ নদীটি রাকা শহরের পাশ দিয়ে বয়ে গেছে৷ মার্কিন হামলায় রাকায় সিরীয় জেট ভূপাতিত হওয়ার পর রাশিয়া যুক্তরাষ্ট্রকে হুমকি দিয়ে বলেছে, ইউফ্রেতিস নদীর পশ্চিম তীরে বিদেশি কোনো বিমান দেখলে সেটিকে ভূপাতিত করা হবে৷ এছাড়া সিরিয়ায় রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সামরিক সংঘাত এড়াতে স্থাপিত যোগাযোগ ব্যবস্থাটিও স্থগিত করে দিয়েছে রাশিয়া৷

এসব ঘটনার প্রেক্ষিতেসিরিয়ায় যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া সমর্থিত গোষ্ঠীগুলোর মধ্যে উত্তেজনা বেড়েছে৷ ভবিষ্যতে এই উত্তেজনা প্রত্যক্ষভাবে দুই দেশের মধ্যে ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে৷ সাবেক ওবামা প্রশাসনের কর্মকর্তা জনাথন স্টিভেনসন বলছেন, ‘‘রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে প্রত্যক্ষ দ্বন্দ্বের ঝুঁকি বেড়েছে৷'' ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের ইউএস স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক আয়ান মর্গান বলেন, ‘‘পরিস্থিতি খুবই ভয়াবহ৷ দুই দেশের মধ্যে সংঘাত হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেড়েছে৷''

তবে স্টিভেনসন ও মর্গান দুইজনই বলেন, সংঘাতের ঝুঁকি বাড়লেও দুই দেশ পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে দিতে আগ্রহী হবে না, বলেই মনে করছেন তাঁরা৷ স্টিভেনসন বলেন, পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হলে সিরিয়ায় আরও মার্কিন সেনা পাঠাতে হতে পারে– এই আশংকায় আর উত্তেজনা বাড়ুক তা হয়ত যুক্তরাষ্ট্র চাইবে না৷

মিশায়েল ক্নিগে/জেডএইচ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়