1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

সিরিজ পরাজয় ঠেকাতে ভারতের দরকার ২০৪ রান

শ্রীলংকার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ না হেরে কি দেশে ফিরতে পারবে ভারত? গতকাল চতুর্থ দিনে যেভাবে একের পর নাটকীয়তা দেখা গেছে তাতে এখন এই প্রশ্ন উঠেছে৷ জেতার জন্য ভারতের প্রয়োজন আরও ২০৪ রান, হাতে সাত উইকেট৷

Sachin Tendulkar

আজ দলকে কি জেতাতে পারবেন টেন্ডুলকার?

শেষ দিনে ২০৪ রান হয়তো খুব বেশি নয়৷ তার ওপর ক্রিজে রয়েছে টেন্ডুলকার, নামতে বাকি লক্ষণ, রায়না ও ধোনির৷ কিন্তু সিরিজ জিততে জোর লড়াই চালিয়ে যাবে লংকানরা৷ বিশেষ করে চতুর্থ দিনে প্রথম সেশনেই ছয় উইকেট হারিয়ে ফেলা লংকানরা যেভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছে তাতে এই কথা বলাই যায়৷ চতুর্থ দিনে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং করতে নামার সময় শ্রীলংকার স্কোর ছিল দুই উইকেটে ৪৫ রান৷ তখন তারা ভারতের চেয়ে ৩৪ রানের লিড নিয়েছে৷ কিন্তু প্রথম সেশনের পানি পানের বিরতির সময় তাদের স্কোর দাঁড়ায় ৫ উইকেটে ৭৮, এরপর মধ্যাহ্ন বিরতির সময় তা দাঁড়ায় আট উইকেটে ১৪৩, লিড মাত্র ১৩২ রানের৷ তখন অনেকেই ভেবেছিলেন, ম্যাচ পঞ্চম দিনে গড়াবে কিনা৷ কিন্তু মধ্যাহ্ন বিরতির পর দেখা গেল অন্য শ্রীলংকাকে৷ মেন্ডিসকে নিয়ে সামারাবিরা গড়ে তুললেন ১১৮ রানের জুটি৷ বিশেষ করে মেন্ডিসের ব্যাটিং দেখে কেউ বলতে পারছিল না যে তিনি টেইল এন্ডার ব্যাটসম্যান৷ সামারাবিরা ৮৩ এবং মেন্ডিস ৭৮ রান করেন৷ ২৬৭ রানে শ্রীলংকার ইনিংস যখন শেষ হয় তখন চা বিরতির পরে অনেক সময় পার হয়ে গেছে৷ ভারতের ওঝা, শেবাগ এবং মিশ্র তিনটি করে উইকেট নেন৷

এদিকে ২৫৭ রানের টার্গেট নিয়ে ব্যাটিং এ নেমে মাত্র ১০ রানেই শেবাগকে হারায় ভারত৷ এরপর ২৭ রানে দ্রাবিড় এবং ৪৯ রানে বিজয় বিদায় নেন৷ ফলে তিন উইকেটে ৫৩ রানে ভারত চতুর্থ দিন শেষ করে৷ ম্যাচ যেভাবে এগুচ্ছে তাতে ভারতের জন্য এখন ২০৪ রানও অনেক কঠিন বলে মনে হচ্ছে৷

এদিকে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের ব্যাটিং ব্যর্থতা অব্যাহত রয়েছে৷ দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম দিনে তাঁরা অলআউট হয়েছে মাত্র ৭২ রানে৷ দুই ইংলিশ বোলার জেমস অ্যান্ডারসন এবং স্টুয়ার্ট ব্রডের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি পাকিস্তানী ব্যাটসম্যানরা৷ মাত্র ৩৯ ওভারেই গুটিয়ে যায় তাঁদের ইনিংস৷ অ্যান্ডারসন এবং ব্রড চারটি করে উইকেট নেন৷ ব্যাটিংয়ে নেমে দুই উইকেট হারিয়ে ইংলিশদের সংগ্রহ ১১২ রান৷

প্রতিবেদন: রিয়াজুল ইসলাম

সম্পাদনা: জাহিদুল হক