1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

সিনেমার জগৎ আর ভিডিও গেমস’এর জগৎ ক্রমেই মিশে যাচ্ছে

যেমন ধরুন ‘প্রিন্স অফ পার্সিয়া: দ্য ফরগটেন স্যান্ডস’৷ ওটা হল একটি গেম৷ কিন্তু তার সঙ্গে প্রায় একই সময়ে রিলিজ হয়েছিল একটি মুভি বা চলচ্চিত্র: ‘প্রিন্স অফ পার্সিয়া: দ্য স্যান্ডস অফ টাইম’৷ এটাই হল আজকালকার ট্রেন্ড৷

default

চিন্তার কিছু নেই: স্বয়ং হ্যারি পটার'এর পরবর্তী ছবি - ‘হ্যারি পটার এ্যান্ড দ্য ডেথলি হ্যালোস' - শেষ হবার আগেই একটি কোম্পানি সেই ছবিটির সঙ্গী হিসেবে দু'টি গেম সৃষ্টি করছে৷ এবং সেই গেমগুলি যে কোনো প্ল্যাটফর্ম থেকে শুরু করে মোবাইল ফোন অবধি সর্বত্র খেলা যাবে৷ ইলেকট্রনিক্স আর্ট নামধারী কোম্পানিটির মটো হল: ‘গেম টু ফিল্ম টু বুক', হ্যারি পটারের ক্ষেত্রে যা বস্তুত বই থেকে ফিল্ম থেকে গেম৷

আবার ভিডিও গেম থেকে মুভি, মানে সিনেমা সৃষ্টি হওয়ার ঘটনাও বিরল নয়৷ সুবিখ্যাত মর্টাল কমব্যাট ভিডিও গেমগুলি থেকে শেষমেষ ছবিটি তৈরী হয়৷ এবং ফিল্ম থেকে বই মার্কেন্ডাইজিং প্রথা তো আরো পুরনো৷ তা'হলে এই সব টাই-আপের নতুনত্বটা কোথায়?

Olympia / Kumaritaschwili / Unfall / Rodeln

নতুনত্বটা হল সম্ভাব্য হাইব্রিডে: এমন সব ভিডিও গেম তৈরী করা, যা'তে সিনেমার স্বাদ পাওয়া যাবে৷ ‘দ্য আনচার্টেড' গেমগুলির মেজাজ অনেকটা ‘ইন্ডিয়ানা জোন্স' ছবিগুলির মতো৷ সাম্প্রতিক একটি গেম - ‘রেড ডেড রিডেম্পশন' - দেখলে ইটালো-ওয়েস্টার্ন ছবিগুলোর কথা মনে পড়বে৷

এবং ভিডিও গেমসের আবহসঙ্গীতের দিকে আজকাল ঠিক ততোটাই মনোযোগ দেওয়া হচ্ছে, যেমনটি দেওয়া হয় ফিল্ম মিউজিকের দিকে৷ ওদিকে মিউজিক ভিডিও তো একটা নিজস্ব কলা হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ যে প্রজন্ম টেলিফোনে টিভি দেখে, মেসেজ কি মেইল পাঠায়, ছবি তোলে, গান শোনে, তাদের কাছে গোটা জীবনটাই বস্তুত একটা টাই-আপ: বই থেকে ফিল্ম থেকে গেম থেকে গান থেকে রিংটোন - তাদের কাছে এই ধরণের অবিরত, ভালো কি মন্দ টাই-আপের পিছনে আদি ও অকৃত্রিম মুনাফা দেবীর ছবি ফুটে ওঠে কিনা, সেটাই জানার ইচ্ছে রইল৷

প্রতিবেদন: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: আরাফাতুল ইসলাম

সংশ্লিষ্ট বিষয়