1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সিটি নির্বাচনের ফল সরকারের জন্য সতর্ক বার্তা

বাংলাদেশের ৪টি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে ক্ষমতাসীন ১৪ দলের প্রার্থীরা ধরাশায়ী হয়েছেন৷ জয়ী হয়েছেন বিএনপির নেতৃত্বে বিরোধী ১৮ দলীয় জোট সমর্থিত প্রার্থীরা৷

খুলনা, রাজশাহী, সিলেট এবং বরিশাল – এই ৪ সিটি কর্পোরেশনে শনিবারের নির্বাচনে ৪টি মেয়র পদেই ১৮ দল সমর্থিত প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন৷ ১৪ দলের যে প্রার্থীরা হেরেছেন, তারা সবাই এর আগে ২০০৮ সালের নির্বাচনে মেয়র হয়েছিলেন৷ ৪টি সিটি কর্পোরেশনের ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা যায়, ২০০৯ সালে ১৪ দল ভোট পেয়েছিল ৬২ শতাংশ, ১৮ দল ৩৮ শতাংশ৷ ২০১৩ সালে ১৪ দল ভোট পেয়েছে ৪১ শতাংশ, ১৮ দল পেয়েছে ৫৯ শতাংশ৷

জাতীয় নির্বাচন পর্যবেক্ষক পরিষদের প্রধান নির্বাহী ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ ডয়চে ভেলেকে বলেন, এই নির্বাচনের ফলাফল বিশ্লেষণ করলে বোঝা যায় এর মাধ্যমে সরকারকে সতর্ক সংকেত দিয়েছেন ভোটাররা৷ কারণ উন্নয়নের হিসেব করলে ৪টি সিটি কর্পোরেশনেই দৃশ্যমান উন্নয়ন হয়েছে৷ সরকার সমর্থক প্রার্থীরা স্থানীয়ভাবে ভালো প্রার্থী হিসেবে পরিচিত৷

Narayanganj City Corporation Wahlen Flash-Galerie

ভোটাররা সরকারের জন্য সতর্ক বার্তা পাঠিয়েছেন

কিন্তু স্থানীয় সরকারের নির্বাচন হলেও ভোটাররা স্থানীয় ইস্যুকে মাথায় রেখে ভোট দেয়নি৷ তারা জাতীয় রাজনীতির নানা ইস্যুকে বিবেচনা করে ভোট দিয়েছেন৷ যেমন নির্বাচনকালীন সরকার ব্যবস্থা, দুর্নীতি, শেয়ার বাজার ও হলমার্ক কেলেঙ্কারি প্রভৃতি৷ হেফাজতে ইসলামও এখানে ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করেছে৷ ভোটাররা স্থানীয় পর্যায়ের উন্নয়নের চেয়ে জাতীয় পর্যায়ে যে দমবন্ধ করা অবস্থা, তা থেকে বের হওয়ার কথা মাথায় রেখে ভোট দিয়েছেন৷ যা সরকারে জন্য একটি বড় মাত্রার সতর্ক সংকেত৷ এর এই সতর্ক বার্তা সামনের জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে বিবেচনা করেই৷

বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন কমিটির সভাপতি আশরাফুজ্জামান ডয়চে ভেলেকে বলেন, তাদের এলাকায় সাবেক মেয়র ১৪ দলের তালুকদার আব্দুল খালেক উন্নয়নের জন্য প্রশংসা পেয়েছেন৷ কিন্তু ভোটের হিসাব তার দিকে যায়নি৷ বিজয়ী হয়েছেন ১৮ দলের মো. মনিরুজ্জামান মনির৷ এতে বোঝা যায় স্থানীয় উন্নয়নের হিসাব নয়, ভোট হয়েছে রাজনীতির হিসেবে৷

বিএনপি-র স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ বলেছেন, এই নির্বাচনে সরকারকে মানুষ প্রত্যাখ্যান করেছে৷ তাই সরকারের উচিত পদত্যাগ করে নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দেয়া৷ তিনি বলেন, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিরপেক্ষ এবং সুষ্ঠু হলে বর্তমান সরকারের চরম ভরাডুবি হবে৷

এদিকে সংসদে প্রধানমন্ত্রী সংসদে বলেছেন ৪ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন আবারো প্রমাণ করেছে, এই সরকারের অধীনে সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব৷ জনগণ যাদের ভোট দিয়েছে, তারাই জয়ী হয়েছে৷ ভোট কারচুপির দিন শেষ৷ কেউ ইচ্ছে করলেই ভোটের ফলাফল পরিবর্তন করতে পারেনা৷ নির্বাচন কমিশন সম্পূর্ণ স্বাধীন৷ তিনি বলেন, দলীয় দৃষ্টিকোণ থেকে বিবেচনা না করে দেখতে হবে এই নির্বাচনে গণতন্ত্রের জয় হয়েছে৷ তিনি বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন তাই সংবিধান মতই হবে৷ কোনো অনির্বাচিত সরকারের অধীনে নয়, নির্বাচন হবে নির্বাচিত ব্যক্তিদের অধীনে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়