1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

সিগারেটের প্যাকেট থেকে টাকা আয়!

ধূমপানের পর আমরা সাধারণত প্যাকেটটা ফেলে দেই৷ তেমনিভাবে দুধ ও ফাস্ট ফুডের প্যাকেটও আমাদের কোনো কাজে লাগেনা৷ আর লেমিনেটেড হওয়ায় এসব প্যাকেট রিসাইকেল বা পুনরায় ব্যবহারের উপযোগী করা যায় না৷

default

উন্নত বিশ্বে এসব প্যাকেট সাধারণত পুড়িয়ে ফেলা হয়৷

কিন্তু দিন বদলানোর সময় হয়তো সামনে আসছে৷ কারণ থাইল্যান্ডের পাইজিত শাংচাই বের করেছেন এক উপায়৷ তিনি কিছু এনজাইম তৈরি করতে সমর্থ হয়েছেন৷ যে এনজাইমগুলো ঐসব প্যাকেটে থাকা পাল্প বা ফাইবার বের করে আনতে পারে৷ এবং পরে সেগুলোকে প্লাস্টিকে পরিণত করতে পারে৷ অর্থাৎ পরিত্যক্ত প্যাকেটগুলো প্লাস্টিকে পরিণত হয়ে যাচ্ছে৷ যেটা পরবর্তীতে রিসাইকেল করে নতুন পণ্য তৈরি করা যাবে৷

আর যে পাল্প বের হবে সেটা দিয়ে কাগজের পণ্য তৈরি করা যাবে৷ ফলে বাঁচানো যাবে গাছ৷ এছাড়া এই পাল্পকে বিল্ডিং তৈরির উপকরণে পরিণত করা সম্ভব৷ যেটা অ্যাসবেস্টসের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করা সম্ভব৷ আর কে না জানে, অ্যাসবেস্টস স্বাস্থ্যের জন্য কতটা খারাপ৷

শাংচাই-এর এই আবিষ্কার ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরামের তৈরি করা ৩১টি ‘টেকনোলজি পাইওনিয়ার্স' এর তালিকায় স্থান পেয়েছে৷ ফলে বিভিন্ন দেশের বড় বড় বিনিয়োগকারীরা এখন চাইছে শাংচাইয়ের সঙ্গে কাজ করতে৷

মাশরুম থেকে এনজাইম তৈরি করেছেন শাংচাই৷ এজন্য দিনের পর দিন গবেষণা করতে হয়েছে তাঁকে৷ খরচও হয়েছে অনেক৷ এজন্য বন্ধক রাখতে হয়েছিল বাড়ি৷ আর গবেষণায় সময় দেয়ার জন্য ছেড়ে দিয়েছিলেন ভাল বেতনের চাকরিটিও৷

এতসব বিসর্জন দিয়ে অনিশ্চিত পথে হেঁটে কেবলমাত্র ইচ্ছের জোরে এখন কোটি কোটি টাকার স্বপ্ন দেখতেই পারেন শাংচাই৷

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: হোসাইন আব্দুল হাই

সংশ্লিষ্ট বিষয়