1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

সিংহ আর বাঘিনীর প্রেম, জন্মেছে বাসিং তাইওয়ানে

বাঘিনী আর সিংহের মিলন ঘটিয়ে ‘বাসিং’ বা ‘লিগার’-এর জন্ম দিয়ে বিপাকে পড়েছেন এক তাইওয়ানি পশুপ্রেমী৷ দু’দিন বয়সের দুটি বাসিং-কে বাজেয়াপ্ত করেছে প্রশাসন৷

default

জন্ম নেওয়া দুটি লিগার শাবক

নাম তাঁর হুয়াং কুয়ো নান৷ পেশা সাপেদের মিলন ঘটানো৷ সোজা কথায় সাপের চাষ করেন তিনি তাঁর ‘ওয়ার্ল্ড স্নেক কিং এজুকেশন ফার্ম'-এ৷ একটি বাঘিনী আর একটি সিংহের মধ্যে মিলন ঘটিয়ে তাঁর ফার্মেই জন্মেছে দুটি বাসিং বা বাঘ সিংহের মিলনের ফলে জাত লিগার৷ কিন্তু কাজটা বেআইনি৷ বেআইনি বলেই সেই বাসিং দুটিকে বাজেয়াপ্ত করেছে প্রশাসন৷ হুয়াং কুয়ো নান-এর ১৬০০ মার্কিন ডলার জরিমানা হওয়ার জোরদার সম্ভাবনা৷

Tiger in Südchina

কমে আসছে বাঘ ও সিংহের বংশবৃদ্ধি

ব্যাপারটা অনেকটা সেই হাঁসজারু বা বকচ্ছপের মত৷ কিন্তু যেহেতু বাঘ আর সিংহ দুটিই বিরল জাতের প্রাণী, অতএব তাদের মধ্যে মিলন ঘটানোটা অপরাধ৷ বলছে তাইওয়ানের প্রশাসন৷ সেদেশের কৃষি দপ্তরের প্রধান কুয়ো ই পিনের বক্তব্য, এই সদ্যোজাত বাসিং দুটি বড় হয়ে তাদের বাপ মায়ের মত চেহারা পাবে না৷ তারা আকারে অনেক বড় হতে পারে এবং পরবর্তীকালে তাদের কোন সঙ্গী বা সঙ্গিনীও জুটবে না৷ অতএব তাদের স্বাভাবিক জীবন কাটানোর কোন সম্ভাবনাই নেই৷ বেচারা বাসিং-দের থাকতে হবে খাঁচায় বন্দি হয়ে সারাটা জীবন৷

হুয়াং কুয়ো নান কিন্তু অন্যরকম সাফাই দিয়েছেন৷ তিনি বলছেন, এই বাঘ সিংহের মিলনটা তিনি ইচ্ছে করে ঘটান নি৷ ছোট্টবেলা থেকে ওই বাঘিনী আর সিংহ একসঙ্গে বড়ো হয়ে উঠেছে৷ তাদের মধ্য কখন যে প্রণয় ঘটে গেছে তা তিনি জানতেও পারেন নি৷ চোখেও পড়ে নি বিষয়টি তাঁর৷ হঠাৎ দেখা যায় বাঘিনী গর্ভবতী৷ তারপরেই এই কান্ড৷

হুয়ানের ফার্মে মোট তিনটি বাসিং শাবকের জন্ম হয়েছিল৷ তাদের মধ্যে একটি শাবক মৃত অবস্থায় জন্মেছে৷ বাকি দুটি বাসিং-কে আপাতত সরকারি হেফাজতে সযত্নে রাখা হয়েছে৷ আর হুয়াং জরিমানা দেওয়ার জন্য তৈরি হচ্ছেন৷ তাঁর বিরুদ্ধে আনা হয়েছে মামলা৷

প্রতিবেদন: সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

ইন্টারনেট লিংক