1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

সাহায্য পৌঁছাতে হিমশিম খাচ্ছে ত্রাণসংস্থাগুলি

সন্ত্রাস, হামলা, অপহরণ ইত্যাদি কারণে উন্নয়ন সাহায্যকর্মীদের পক্ষে বিভিন্ন দেশে কাজ করা বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে৷ বিশেষ করে আফ্রিকার অনেক দেশে এই ধরনের সহিংসতা ঘটছে অহরহ৷

ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে

সিরিয়াতেও কাজ করা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে৷ সিরিয়ার অনেক শহর এত বিধ্বস্ত হয়েছে যে, তা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়৷ ‘‘অনেক জায়গায় কেবল ধ্বংসাবশেষই দেখা যায়৷'' ২০১৩ সালের বাৎসরিক প্রতিবেদনে এই কথাই বলেন জার্মানির অন্যতম সাহায্য প্রতিষ্ঠান ‘ভেল্টহুঙারহিল্ফে'-র প্রেসিডেন্ট ব্যার্বেল ডিকমান৷ বিশ্বব্যাপী জরুরি সাহায্যে তৎপর প্রতিষ্ঠানটি৷

বিশ্বব্যাপী সমালোচিত সিরিয়ার সাম্প্রতিক নির্বাচনও কোনো সুরাহা এনে দিতে পারবে না৷ সংকট সমাধানের কোনো লক্ষণ সেখানে দেখা যাচ্ছে না৷ ‘‘কেননা বিবদমান দলগুলি একেবারেই কাছাকাছি আসতে চাইছে না'', বলেন ডিকমান৷

গত বছর চরম মানবিক সংকটের মধ্যে কাটাতে হয়েছে সিরিয়ার মানুষকে৷ ‘ভেল্টহুঙারহিল্ফে' নামক এই জার্মান এনজিও-টির মোবাইল সাহায্য টিমকে প্রায় সবসময় সাহায্য কাজে ব্যস্ত থাকতে হয়েছে৷ ‘‘প্রায় প্রতিমাসেই সংকট লেগে ছিল৷'' জানান সাহায্য প্রতিষ্ঠানটির জেনারাল সেক্রেটারি ভল্ফগাং ইয়ামান৷

উন্নয়ন পরিকল্পনা বাধাগ্রস্ত হচ্ছে

এইসব সংকটের কারণে সংস্থাটির পক্ষে স্থায়ীভাবে কোনো উন্নয়ন পরিকল্পনা করা সম্ভব হচ্ছে না৷ সাহায্য প্রতিষ্ঠানটির পক্ষে কর্মী পাওয়াও মুস্কিল হচ্ছে৷ অনেক এলাকা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে৷ উন্নয়ন সাহায্য কর্মীরা অপহরণ ও হামলার শিকার হচ্ছেন৷ বিশেষ করে সাহারার দক্ষিণাঞ্চলের দেশগুলিতে কাজ করা বেসরকারি সাহায্য সংস্থাগুলির জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক হয়ে পড়েছে৷ সারা অঞ্চলজুড়ে বিরাজ করছে যুদ্ধংদেহী অবস্থা৷ নানা ধরনের চরমপন্থার বিস্তৃতি ঘটছে৷ এভাবেই বলেন ইয়ামান৷

এছাড়া লেবাননের অনেক প্রাক্তন সেনা ও বেতনভোগী যোদ্ধা আল-কায়েদা ও অন্যান্য চরমপন্থি গ্রুপের সঙ্গে সম্পৃক্ত হচ্ছেন৷ এই ধরনের পরিবেশে দুঃস্থ মানুষদের কাছে সাহায্য পৌঁছে দেওয়া অত্যন্ত কঠিন হয়ে পড়েছে৷ উদাহরণস্বরূপ বলা যায় দক্ষিণ সুদানের কথা৷

বাড়িঘর ছাড়া হচ্ছেন বহু মানুষ

‘ভেল্টহুঙারহিল্ফে' জানিয়েছে, দেশটিতে ক্রমাগত সংঘর্ষের কারণে প্রায় ১০ লক্ষ মানুষ ঘরবাড়ি ছাড়া হয়েছেন৷ কোনো কোনো অঞ্চলে আবার শুধু হেলিকপ্টারের মাধ্যমে সাহায্য সামগ্রী নিক্ষেপ করতে হয়, জানান ডিকমান৷

পাকা রাস্তার অভাবে কাজ করতে আরো অসুবিধা হয় বর্ষাকালে৷ ডিকমান আশঙ্কা করেন, এইভাবে যুদ্ধ চলতে থাকলে চাষিরা কৃষিখেতে কাজ করতে পারবেন না৷ এরফলে দুর্ভিক্ষ দেখা দিতে পারে৷ এ কারণে তিনি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও আফ্রিকা ইউনিয়নের প্রতি সংঘর্ষ বন্ধ করার ব্যাপারে সচেষ্ট হতে আহ্বান জানান৷ তাঁর মতে, এই অঞ্চলে শান্তি স্থাপনের ব্যাপারে সবারই আগ্রহ থাকা উচিত৷ এই ধরনের সহিংসতা গোটা অঞ্চলে তো বটেই অন্যান্য দেশেও ছড়িয়ে পড়তে পারে৷ যেমন হঠাৎ করে হামলা ঘটলো কেনিয়ায়৷

জরুরি সাহায্য প্রকল্প

ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও বিদেশ দপ্তরের মতো বিভিন্ন ইন্সটিটিউশন এবং ব্যক্তিগত চাঁদার অর্থে চলে ‘ভেল্টহুঙারহিল্ফে'-র কাজকর্ম৷ গত বছর সব মিলিয়ে ১৪০ মিলিয়ন ইউরো বিদেশের প্রকল্পগুলির কাজে ব্যয় করেছে প্রতিষ্ঠানটি৷ জরুরি ভিত্তিতে কাজ করা হয়েছে দক্ষিণ সুদান, সিরিয়া ও ফিলিপাইন্সে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়