1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সারা বিশ্বে আজ ‘সুখের দিন'

‘হ্যাপিনেস' বা সুখ আসলে কী? সহজ করে বললে, মনের আনন্দ৷ আনন্দ মানুষ সাধারণত কী কী ভাবে প্রকাশ করে? হেসে-নেচে-গেয়ে৷ আজ জাতিসংঘেরও আহ্বান, আনন্দে থাকুন, গান শুনুন এবং আপনার সবচেয়ে প্রিয় সুখের গান সম্পর্কে জানান৷

‘সুখ তুমি কী বড় জানতে ইচ্ছে করে, আমার জানতে ইচ্ছে করে' – রুনা লায়লার এ গান শোনেননি বাংলাদেশে এমন সংগীতপ্রিয় মানুষ খুব কম আছে৷ সুখ কী তা বলে বোঝানো আসলেই কঠিন৷ আজ বিশ্বের সব মানুষের কাছে এই প্রশ্নটিই রেখেছে জাতিসংঘ৷ আজ যে ‘ইন্টারন্যাশনাল ডে অফ হ্যাপিনেস', অর্থাৎ আন্তর্জাতিক সুখের দিন!

২০১২ সালে ২০শে মার্চকে ‘ইন্টারন্যাশনাল ডে অফ হ্যাপিনেস' হিসেবে ঘোষণা করে জাতিসংঘ৷ বছরের একটি দিনকে হঠাৎ বা বিনা কারণে সুখের দিনের মর্যাদা দেয়া হয়নি৷ ভুটান এ আবেদন জানিয়েছিল৷ দক্ষিণ এশিয়ার এই দেশে টাকা-কড়ি-ধন-দৌলতের চেয়ে মনের সুখই যে বড় তা রাষ্ট্রীয়ভাবেও বোঝানো হয়৷ তাই সেখানে মোট অভ্যন্তরীণ বা দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) নির্ধারণ না করে প্রতিবছর ‘মোট জাতীয় সুখ' নির্ধারণ করা হয়৷ সে কারণে হিমালয়ের কাছের এই দেশটি জাতিসংঘের কাছে এই ২০শে মার্চকে ‘আন্তর্জাতিক সুখের দিন' ঘোষণা করার আহ্বান জানায়৷ ২০১২ সালে তা মেনে নিয়ে এই দিনটিতে বিশ্বের সবাইকে বিশেষ বিশেষভাবে সুখ বা আনন্দ প্রকাশের আহ্বান জানাতে শুরু করে জাতিসংঘ৷ তা করতে গিয়ে কোথাও কোথাও নিপীড়নের শিকারও হয়েছেন সাধারণ মানুষ৷

গত বছর ফারেলি উইলিয়ামসের ‘হ্যাপি' গানটির সঙ্গে নাচার আহ্বান জানানো হয়েছিল৷ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছেয়ে গিয়েছিল ‘হ্যাপি'-র তালে তালে নাচ-গানের ভিডিও৷ এমন ভিডিও প্রচার করায় ইরানের কয়েকজন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীকে শাস্তিও পেতে হয়েছে৷

এ বছর নিজের পছন্দের ‘সুখের গানটি' হ্যাশট্যাগ ‘হ্যাপিসাউন্ডসলাইক' বা #HappySoundsLike লিখে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে শেয়ার করার আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ৷ বিশ্বের সব মানুষের প্রতিই এ আহ্বান, অর্থাৎ যে কোনো প্রান্তের যে কোনো মানুষ নিজের পছন্দের গানটি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে পোস্ট করতে পারেন৷ সারা বিশ্বে যে গানগুলো পোস্ট করা হবে সেখান থেকে বেছে নিয়ে একটা প্লে-লিস্ট বা সংকলন করা হবে৷ গান বাছাইয়ের দায়িত্বে থাকবেন, ব্রিটেনের এড শিরান এবং জেমস ব্লান্ট, যুক্তরাষ্ট্রের জন লিজেন্ড, ফ্রান্সের ডিজে ডেভিড গুয়েত্তা পর্তুগালের পপস্টার দাভিদ কারেইরা৷

প্রিয় খুশির গানের কথা জানানো শুরুও হয়ে গেছে৷ স্বয়ং বান কি-মুনও জানিয়েছেন তাঁর প্রিয় গানের কথা৷ জাতিসংঘের মহাসচিবের প্রিয় গান সত্তরের দশকে স্টিভ ওয়ান্ডারের গাওয়া ‘সাইনড, সিলড, ডেলিভার্ড'৷ এক ভিডিওতে ঘটা করেই তা জানিয়েছেন বান কি-মুন৷ পাশাপাশি ‘আন্তর্জাতিক খুশির দিন'-এ সবাইকে খুশিতে থাকার এবং সবাইকে খুশি রাখার আহ্বানও জানিয়েছেন তিনি৷

এসিবি/ডিজি (এএফপি, জাতিসংঘের ওয়েবসাইট )

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়