1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

সামাজিক মাধ্যমে লতিফ সিদ্দিকীকে নিয়ে উত্তেজনা

আত্মসমর্পণের পর ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রীর পদ থেকে অপসারিত আবদুল লতিফ সিদ্দিকীকে ধর্মীয় উসকানির এক মামলায় কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছে আদালত৷ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ নিয়ে চলছে তর্ক বিতর্ক লেখালেখি৷

ডয়চে ভেলের কন্টেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডট কম প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ‘‘ঢাকার মহানগর হাকিম আতিকুর রহমান মঙ্গলবার দুপুরে আবদুল লতিফ সিদ্দিকীকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন৷

মন্ত্রিত্ব ও আওয়ামী লীগের সদস্যপদ হারানো এই সংসদ সদস্য এর ঘণ্টা খানেক আগে রাজধানীর ধানমন্ডি থানায় আত্মসমর্পণ করেন৷ গত ২৮শে সেপ্টেম্বর নিউ ইয়র্কে এক অনুষ্ঠানে লতিফ সিদ্দিকী হজে যাওয়াকে ‘অর্থ অপচয়' বলার পরপরই তা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার এক পর্যায়ে ইসলামি দলগুলো আন্দোলনে নামার ঘোষণা দেয়৷''

লতিফ সিদ্দিকীর গ্রেপ্তার এবং কারাগারে পাঠানোর খবরটি প্রায় প্রতিটি অনলাইন পত্রিকা টুইটারে ব্রেকিং নিউজ আকারে প্রকাশ করেছে৷

বাংলাদেশের জনপ্রিয় দৈনিক পত্রিকা প্রথম আলো তাদের ফেসবুক পাতায় লতিফ সিদ্দিকীকে কারাগারে পাঠানোর খবরটি দেয়ার সাথে সাথে মন্তব্যের ঝড় ওঠে সেখানে৷

মাসুম ওয়াহেদ লিখেছেন, ‘‘খুশি হবার কোনো কারণ নাই – এ সবই সরকারের পাতানো খেলা৷ নারায়নগঞ্জের সেভেন মার্ডারের আসামি র‍্যাব ব্যাটালিয়ন কমান্ডার লে. কর্নেল তারেক সাইদকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছিল৷ তারপর জামাই আদরে জেলখানায় নিরাপত্তা হেফাজতে রাখা হয়েছে৷ লিতিফ সিদ্দিকীকেও একই রকম জামাই আদরে জেল খানায় নিরাপত্তা দিবে৷

অনেকেই লতিফ সিদ্দিকীর ফাঁসি চেয়েছেন, অনেকে আবার সরকারের ভূমিকার কথা তুলেছেন৷ চন্দন বিশ্বাস বাবু লিখেছেন, ‘‘আপনারা যে কোন প্রকৃতির সব মানুষ৷ গ্রেপ্তার না করলে হরতালের হুমকি৷ আবার কারাগারে পাঠালে বলেন আরাম করবে, জামাই আদর দেবে৷ তাহলে করবে কী সরকার?''

রাজিত হাসান লিখেছেন, ‘‘যেখানে নবীজি (সাঃ) পর্যন্ত কোনো কাফেরকে/নাস্তিককে হত্যার নির্দেশ দেননি, সেখানে আপনারা কোন এমন তাওহিদি হয়ে গেছেন যে তাঁর ফাঁসির জন্য লাফালাফি করছেন?''

এদিকে ফেসবুক পাতায় খবরটি শেয়ার করে অনেকেই স্ট্যাটাস দিয়েছেন

আরিফুল হোসেইন তুহিন লিখেছেন, ‘‘মানুষের কথাবার্তার জন্য তাঁকে বিচার করার এই ফাউল সিস্টেম বন্ধ করা হোক৷ ‘ফ্রিডম অফ এক্সপ্রেশন'-এর অন্যতম শর্ত হচ্ছে ‘ফ্রিডম টু অফেণ্ড'৷ সেটা ধর্ম হোক আর জাতির জনক হোক সবার জন্যই সত্যি৷ অনুভূতির পাহাড়াদার হিসেবে সরকারকে দেখতে চাই না৷''

টুইটারেও এ নিয়ে প্রচুর টুইট হয়েছে৷ দেবজ্যোতি অধিকারী লতিফ সিদ্দিকীকে ঘিরে সোমবার বাংলাদেশে যে হইচই হয়েছে, সেটাই টুইট করেছেন৷

ইরোস বোনাজি বিডিনিউজের খবরটি শেয়ার করে হেফাজতের হুমকির খবরটি টুইট করেছেন৷

ডেইলি স্টারের খবর ঢাকায় লতিফ সিদ্দিকী পৌঁছানোর পর বিএনপি-র নিন্দা৷

রেহমান আসাদ, আহমেদ হুসাইন ও তালেজ আজেক্স সিদ্দিকীর আত্মসমর্পণ ও তাঁকে কারাগারে পাঠানোর খবরটি টুইট করেছেন৷

মাহের সাত্তার প্রশ্ন তুলেছেন, লতিফ সিদ্দিকী কি জানতেন না তাঁকে গ্রেপ্তার করা হতে পারে, তবে কেন তিনি দেশে ফিরলেন?

সংকলন: অমৃতা পারভেজ

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন