1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভাইরাল ভিডিও

সাবাস! এই না হলে হাতির বাচ্চা!

ছোট হলে কী হবে, ক্রুগার ন্যাশনাল পার্কের রাস্তায় সাফারি টুরিস্টদের হাত থেকে মা-কে বাঁচাতে হবে তো – তাই কান সাপটিয়ে, শুঁড় দুলিয়ে তাদের ভয় দেখাচ্ছে এই ‘বীরপুরুষ' হাতির বাচ্চা৷ এক অসাধারণ ভিডিও৷

ভিডিওটি গত ২৫শে মে আপলোড করা৷ এ পর্যন্ত দেখেছেন লাখ দেড়েক দর্শক৷

মারিয়া আর আর্নল্ড ইয়ানসেন আসলে পোলোকভানে-তে ছিলেন তাঁদের এক বন্ধুর বাড়িতে৷ পরে এক দিনের জন্য ক্রুগার ন্যাশবাল পার্কে বেড়াতে যান৷ হাজার হোক ক্রুগার ন্যাশনাল পার্ক বলে কথা, যেখানে নাকি গ্যারান্টি দিয়ে আফ্রিকার জীবজগতের ‘বিগ ফাইভ' অর্থাৎ সিংহ, চিতাবাঘ, গণ্ডার, বুনোমোষ আর হাতির দেখা পাওয়া যায়৷

ইয়ানসেনদের কপাল ভালো৷ প্রথমেই দেখলেন ১০০টি বুনোমোষের একটি দঙ্গল, সাথে অনেক বাছুরও ছিল৷ এভাবেই গাড়িতে করে সারাটা দিন ক্রুগার ন্যাশনাল পার্কে ঘুরলেন৷ দিনের শেষে জঙ্গলের ভিতর দিয়ে যাওয়া পিচের রাস্তা ধরে অর্পেন গেটের দিকে ফিরছেন৷ ঠিক তখনই দেখেন উল্টো দিক থেকে আসছে একটি হাতি পরিবার৷ বিশেষ করে টন তিনেক ওজনের এক মা আর তার খোকা হাতি৷ অর্থাৎ আমাদের বীরপুরুষ৷

বাকি গল্পটা বলে দিলে ভিডিও-র মজা মাটি হয়ে যাবে৷ শুধু এটুকু বললেই হলো যে, বীরপুরুষের কারণেই কিনা কে জানে, হাতিরা রাস্তা ছাড়ার উপক্রম করতে গিয়েও শেষমেশ রাস্তায় রয়ে গেল৷ কেননা, একরত্তি বাচ্চা হাতি তখন হাঁকডাক দিয়ে, ল্যাজ আর শুঁড় নাড়িয়ে, হাতপাখার মতো কানগুলো দুলিয়ে, ঠিক বড়দের অনুকরণে গাড়ির দিকে তেড়ে তেড়ে আসছে আর এই দাঁত-বার-করে-হাসা টুরিস্টগুলোকে ভয় দেখাচ্ছে, ‘‘খবদ্দার যদি মা-কে কিছু করো!''

মা-কে দেখলে কিন্তু একবারও মনে হবে না যে সে বিষয়ে তার বিশেষ চিন্তা আছে৷ বরং খোকা যাতে হম্বিতম্বি করতে গিয়ে খানাখন্দে পড়ে না যায়, তাই নিয়েই মায়ের চিন্তা৷

হাতিরা দুলকি চালে এগোচ্ছে, বীরপুরুষ রেগেমেগে বলছে, ‘‘দাঁড়াও আমি বড় হই, আমার চার-পাঁচ টন ওজন হোক৷ তারপর দেখব তোমরা ভয় পাও কিনা৷'' ওদিকে সাফারি গাড়ি ব্যাক করছে৷ তারই মধ্যে খুব সম্ভবত আর্নল্ড ইয়ানসেন ঠাট্টা করে মারিয়াকে বলছেন, ‘‘দেখলে তো? হি ইজ এ বিগ ম্যান!''

এসি/এসিবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন