1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

সাবধান – আজ কিন্তু ‘ফ্রাইডে দ্য থার্টিন’

ফ্রাইডে দ্য থার্টিন শুনলেই ভয়ঙ্কর সব চিত্র ভেসে ওঠে চোখের সামনে৷ কুসংস্কারে বিশ্বাসীরা এ দিনটিকে ভয় করেন, মেনে চলেন৷ কিন্তু কেন অন্য সব দিন-ক্ষণ-কাল ছাড়িয়ে বেছে নেওয়া হল শুক্রবার অর্থাৎ ফ্রাইডেকে, আর কেনই বা ১৩ তারিখকে?

default

অ্যামেরিকার স্টক এক্সচেঞ্জে ধ্বস নেমেছিলো এই দিনটিতে

বাইবেলের ভাষ্য অনুযায়ী, শুক্রবার যিশু খ্রিস্টকে ক্রুশবিদ্ধ করা হয়েছিল, আদম আর হাওয়া এই শুক্রবারেই খেয়েছিলেন নিষিদ্ধ ফল৷ আর ১৩ হচ্ছে শয়তানের সবচেয়ে প্রিয় নম্বর৷ জুডাসেরও প্রিয় নম্বর ছিল ১৩৷ এছাড়া ১৯২৭ সালে অ্যামেরিকার স্টক এক্সচেঞ্জে যেদিন ধ্বস নেমেছিল সেদিনটিও ছিল শুক্রবার৷ মার্কিনিরা আজো সেই দিনটি ‘কালো শুক্রবার' হিসেবে পালন করে৷ এছাড়া হলিউডের কল্যাণে ‘ফ্রাইডে দ্য থার্টিন' নামে বেশ কিছু ভৌতিক ছবিও পেয়েছে বিশ্বাবাসী৷ প্রতিটি ছবিই ছিল রোমহর্ষক৷

জার্মানিতেও ফ্রাইডে দ্য থার্টিন

শুধু অ্যামেরিকা নয়, জার্মানিতেও এই ‘ফ্রাইডে দ্য থার্টিন' মেনে চলেন অনেকে৷ জার্মানির হালে শহরের স্থপতি সুজানে অয়েন৷ তিনি কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ কোন কাজই শুক্রবার করেন না, যদি শুক্রবারটি হয় ১৩ তারিখ৷ সুজান বলেন , ‘‘আমি চেষ্টা করি এই দিনে খুব হালকা ধরণের কাজ করতে৷ গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো আমি আগের দিনই করে ফেলি অথবা পরে করি৷ যেমন কোনো অবস্থাতেই আমি এই দিনে ফ্লাই করি না, গাড়িও চালাই না৷ তবে কাজ করতে হলে আমাকে গাড়ি চালিয়েই যেতে হয়৷''

সুজানে অয়েনের জন্য ‘ফ্রাইডে দ্য থার্টিন' ভীতিকর একটি দিন৷ অন্য কোনো কুসংস্কারে তাঁর বিশ্বাস নেই৷ কিন্তু এই বিশেষ দিনটিতে তিনি সাবধান থাকতে পছন্দ করেন৷ সুজান আরো বললেন, ‘‘আমি কোনো ধরণের কুসংস্কারে বিশ্বাসী নই৷ কালো বিড়াল সামনে দিয়ে চলে গেলেও কিছু বলি না৷ দাঁড় করানো মইয়ের নিচ দিয়ে কেউ চলে গেলেও আমি ভড়কে যাই না৷ ভাঙা আয়নায় চেহারা দেখা খারাপ – এসব হকুসপকুসে আমি বিশ্বাসী নই৷ তবে আমি রাশিফল পড়ি এবং ফ্রাইডে দ্য থার্টিন মেনে চলি৷ কেন, তা অবশ্য আমি নিজেও জানি না৷''

প্রতিবেদন: মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদনা: মনিরুল ইসলাম